thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৩ আশ্বিন ১৪২৫,  ৭ মহররম ১৪৪০

‘লক্ষ্য এবার জাতীয় দলে খেলা’

২০১৫ মে ০৯ ১৯:২৪:৫৯
‘লক্ষ্য এবার জাতীয় দলে খেলা’

খাদেমুল ইসলাম, দ্য রিপোর্ট : বেশ কয়েক বছর আগে এসেছিলেন ঢাকায়। লক্ষ্য ছিল বাছাই প্রক্রিয়ায় অংশ নিয়ে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবে খেলার সুযোগ করে নেওয়া। তখন কাঙ্ক্ষিত ক্লাবে খেলার সুযোগ পাননি জুয়েল রানা। তবে সেই আশা অপূর্ণ থাকেনি। খেলার সুযোগ পেয়েছেন স্বপ্নের ক্লাব মোহামেডানে। ব্রাদার্স ইউনিয়ন থেকে গত বছর এসেছেন ঢাকার এই ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটিতে। মোহামেডানে এসে দলটির আক্রমণভাগের অন্যতম নির্ভরতায় পরিণত হয়েছেন ২০ বছর বয়সী এই ফুটবলার। এখন লক্ষ্য বাংলাদেশ জাতীয় দলে খেলার।

জাতীয় দলে না খেললেও লাল-সবুজ জার্সিতে জুয়েল রানা বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করেছেন বয়সভিত্তিক পর্যায়ে। অনূর্ধ্ব-১৯ ও অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে খেলেছেন। অনুশীলন করেছেন জাতীয় দলের প্রধান কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফের অধীনেও।

দক্ষিণ কোরিয়ায় ইনচনে ২০১৪ সালে সর্বশেষ এশিয়ান গেমসে চূড়ান্ত দলে ছিলেন জুয়েল রানা। যেখানে একটি প্রস্তুতি ম্যাচে কিছুটা ব্যথা পেয়েছিলেন। তাই মূল ম্যাচগুলোতে আর খেলা হয়নি। তবে যুব দলের হয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্ট এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ চ্যাম্পিয়নশিপ ফুটবলের বাছাইপর্বে খেলেছেন তিন ম্যাচেই। গত মার্চে ঢাকায় অনুষ্ঠিত এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দল কোনো গোল করতে পারেনি। তবে প্রস্তুতি ম্যাচে যুব দল শেখ জামালকে হারিয়েছিল এই জুয়েল রানার গোলেই।

মোহামেডানে খেলা শুরুর পর চলতি মৌসুমে ফেডারেশন কাপে কোনো গোলের দেখা পাননি জুয়েল। তবে সহায়তা করেছেন দলের পক্ষে একাধিক গোল করার ক্ষেত্রে। চলমান মান্যবর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে করেছেন দুটি গোল। এর মধ্যে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শেখ জামালের বিপক্ষে ২০ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ডের গোলেই পয়েন্ট পেয়েছে মোহামেডান।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের আগে লিগের খেলা পর্যবেক্ষণ করছেন ডাচ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ। ঢাকায় এসে প্রথম দিনে যাদের খেলার প্রশংসা করেছেন, তাদের মধ্যে জুয়েল রানাও আছেন। মাঝে ফেনী সকারের বিপক্ষে ম্যাচে একটু নিষ্প্রভ থাকলেও শেখ জামালের সঙ্গে শেষ খেলায় দারুণভাবে ‍ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে করেছেন মূল্যবান গোল।

সব মিলিয়ে শুধু মোহামেডানে খেলাই নয়, দলের অন্যতম নির্ভরতার প্রতীক হয়ে উঠছেন জুয়েল রানা। তাই একটা স্বপ্ন পূরণ হয়েছে ঝিনাইদহের এই ফুটবলারের। বাকি আছে আরেকটি স্বপ্ন পূরণের। তা হল জাতীয় দলে খেলা। গত বছরই পূরণ হতে পারত সেই স্বপ্ন। ভারতের বিপক্ষে গোয়ায় প্রীতিম্যাচে ভিসা সংক্রান্ত জটিলতায় শেষ পর্যন্ত যেতে পারেননি জুয়েল।

কে জানে হয়তো এর চেয়েও বড় মঞ্চে শুরু করতেই তেমনটি হয়েছে কিনা। আগামী মাসেই বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে এশিয়া অঞ্চলের দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা শুরু হবে। বাছাইপর্বের দলে ডাক পেলে হয়তো বড় মঞ্চেই অভিষেক হতে পারে জুয়েল রানার। সেই স্বপ্ন পূরণের অপেক্ষায়ই এখন আছেন তিনি। বলেছেন, ‘আমরা স্বপ্ন ছিল মোহামেডান ক্লাবে খেলব। তা পূরণ হয়েছে। এখন জাতীয় দলের পালা। প্রত্যেকটি খেলোয়াড়েরই দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার আকাঙ্ক্ষা থাকে। অবশ্যই আমার ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম নয়।’

কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফের অধীনে আগেও অনুশীলন করেছেন জুয়েল রানা। লিগের পারফরম্যান্সও ভাল। এখন এই পারফরম্যান্সের ফল হিসেবে জাতীয় দলে ডাক পাওয়ার আশাটা করতেই পারেন জুয়েল রানা। বলেছেন, ‘এএফসি বাছাইয়ের মূলপর্বে কেউ গোল করতে পারেনি। প্রস্তুতি ম্যাচে শেখ জামালের বিপক্ষে আমার গোলেই জাতীয় দলে জিতেছে। এখন লিগে খেলছি। কোচিং স্টাফরাসহ সবাই খেলা দেখছেন। আমার খেলা তাদের সবার কাছে ভাল লাগলে হয়তো ডাক পাব।’

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বাংলাদেশ আছে ‘বি’ গ্রুপে। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া, লেবানন, কিরগিজস্তান ও তাজিকিস্তান। ৪ দলের বিপক্ষে হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে ভিত্তিতে ৮টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রথম দুটি ম্যাচ ১১ ও ১৬ জুন। প্রতিপক্ষ কিরগিজস্তান ও তাজিকিস্তান। বাছাইপর্বের জন্য প্রাথমিক দলে ডাক পেলে প্রথম দুই ম্যাচে চূড়ান্ত দলে অন্তর্ভুক্ত হতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাবেন জুয়েল রানা। এখন অপেক্ষা জুয়েল রানার পারফরম্যান্স নির্বাচকদের কতটুকু আকৃষ্ট করতে পারে তা দেখার। সেই ফল পেতে আরও কয়েক দিন অপেক্ষা করতে হবে।

পেশাদার লিগের প্রথম লেগের খেলা শেষ হবে আগামী ২১ মে। এর আগেই প্রাথমিক দল ঘোষণা করা হবে। সেই দল নিয়ে লিগ শেষ হওয়ার পরপরই ক্যাম্পে নেমে যাবেন লোডভিক ডি ক্রুইফ।

(দ্য রিপোর্ট/কেআই/সা/মে ০৯, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

ফুটবল এর সর্বশেষ খবর

ফুটবল - এর সব খবর



রে