thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫,  ১৪ মহররম ১৪৪০

অনেক প্রশ্নেরই উত্তর নেই

২০১৫ জুন ১১ ২১:২২:৫০
অনেক প্রশ্নেরই উত্তর নেই

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : নিয়মের কারণে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে আসতে পারেননি। কারণ, খেলা চলাকালে অপেশাদার আচরণের কারণে ডাগ আউট থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে কোচকে। এ অবস্থায় কোচের সংবাদ সম্মেলনে আসার নিয়ম নেই।

খেলা শেষে সব ফুটবলারও চলে গেছেন ড্রেসিংরুমের দিকে। অনেকটা বিলম্বে সংবাদ সম্মেলনে এসেছেন সহকারী কোচ সাইফুল বারী টিটু। বলা যায়, দায়সারাভাবে কিছু কথা বলে গেছেন তিনি। অনেক বিষয়ে তিনি কিছুই বলতে পারেননি, যা প্রধান কোচের এখতিয়ারভুক্ত। গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচ নিয়ে যেন সংবাদ সম্মেলনকে গুরুত্বই দিতে চাইল না বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল!

মাঠে মোটামুটি দর্শক এসেছিলেন। যারা শেষ মিনিট পর্যন্ত কিরগিজস্তানের বিপক্ষে দলকে সমর্থন জানিয়ে গেছেন। কিন্তু তাদের কাছে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরতে যেন কোনো দায় নেই খেলোয়াড়দের। ফুটবল নিয়ে বাজেটে নতুনভাবে থোক বরাদ্দও দেওয়া হয়েছে। বাইরে থেকে দুটি দলকে নিয়ে এসে খেলা হয়েছে প্রস্তুতি ম্যাচ। দীর্ঘ সময়ব্যাপী ক্যাম্প চলেছে। এরপরও দলের খেলার এই অবস্থা কেন, তা জানার অধিকার আছে বাংলাদেশের মানুষের। কিন্তু তা জানানোর দায়িত্বটা খেলোয়াড়দের কেউই যেন ঘাড়ে নিতে চাননি। এক ধরনের দায় এড়ানোর প্রচেষ্টা তারা চালিয়েছেন বলা যায়।

এরপর সাইফুল বারী টিটু এসে দায়সারা বক্তব্য দিয়েছেন। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বাংলাদেশের মনযোগ ছিল প্রথম দুটি ম্যাচকে ঘিরেই। দুটি হোম ম্যাচ থেকে পয়েন্ট আদায়ের প্রতি সর্বোচ্চ গুরুত্ব ছিল। অথচ সেই দুই ম্যাচের প্রথমটিতে এমন ব্যর্থতা (৩-১ গোলের হার) নিয়ে সাইফুল বারী টিটু বলেছেন, ‘আমাদের মূল লক্ষ্য ছিল প্রথম দুটি হোম ম্যাচে ভাল খেলা। কিন্তু সেই অনুযায়ী খেলতে পারিনি। আমরা যা খেলেছি, তাতে এ রকম ফল হওয়াটাই স্বাভাবিক। আমাদের খেলায় অনেক দুর্বলতা ছিল।’

এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ বাছাইপর্বে সেট পিসে গোল খেয়েছে বাংলাদেশ। এ ব্যাপারে দলের প্রতি নির্দেশনা ছিল পেনাল্টি এরিয়ার আশপাশে অহেতুক ফাউল না করা। কিন্তু সেই কাজ তারা করতে পারেনি। সাইফুল বারী টিটু বলেছেন, ‘আমরা খেলোয়াড়েদের বলেছি অহেতুক ফাউল করা থেকে বিরত থাকতে। কিন্তু সেই নির্দেশনা কাজে লাগেনি। আমরা শারীরিক, কৌশলগত ও মানসিকভাবে পিছিয়ে ছিলাম। হয়তো এ কারণে মনযোগের ঘাটতি হয়েছে।’

কিরগিজরা যেসব বলে গোল দিয়েছে তাতে বাংলাদেশের খেলার গতি নিয়ে অসন্তুষ্ট সাইফুল বারী টিটু। তিনি বলেছেন, ‘হেমন্ত যে ফাউলটি করেছে তা ছিল অপ্রয়োজনীয়। ইয়ামিন যেভাবে ট্যাকল করে কিরগিজদের পেনাল্টি দিয়েছে, সেটিও দরকার ছিল না। কারণ, পেছনে নাসির ছিল; সে দায়িত্ব নিতে পারত। শেষ যে বলে গোল হয়েছে সেটিতেও আমাদের পায়ে বল এসেছিল। কিন্তু আমরা তড়িৎ তা ক্লিয়ার করতে পারিনি। যার খেসারত দিতে হয়েছে।’

স্ট্রাইকার হিসেবে এনামুল ও এমিলি ছিলেন নিষ্প্রভ। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে সাইফুল বারী টিটু এনামুল-এমিলিদের পক্ষেই সাফাই গাইলেন। টিটু বলেছেন, ‘আমরা এমিলি বা এনামুলের বিকল্প তৈরি করতে পারিনি। তাই নতুন করে কেউ উঠে না আসা পর্যন্ত ওদেরই খেলতে হবে। ওরা অনেকদিন ধরে দলকে সার্ভিস দিচ্ছে। সেদিক থেকে বলা যায়, ওরা ভালই করেছে।’

সাইড বেঞ্চে জুয়েল রানা, শাহেদুল আলম শাহেদ ও তৌহিদুল আলম সবুজের মতো ফরোয়ার্ড ছিল। তাদের দিয়ে চেষ্টা করা যেত। সেই কাজ কেন করা হল না এর সদুত্তর দিতে পারেননি সাইফুল বারী টিটু। বলেছেন, ‘আসলে কিছু টেকনিক্যাল বিষয়ে কোচ ভাল জানেন। সব বিষয়ে তো আর আমার নলেজে ছিল না। তাই এ বিষয়ে কোচকে জিজ্ঞাসা করলেই জানা যাবে।’

এখন অপেক্ষা ১৬ জুন তাজিকিস্তানের বিপক্ষে পরবর্তী ম্যাচ নিয়ে। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে সেই ম্যাচের আগে ভুলগুলো নিয়ে কাজ করার আশ্বাস দিয়েছেন সাইফুল বারী টিটু।

(দ্য রিপোর্ট/কেআই/জেডটি/সা/জুন ১১, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

খুঁজে ফেরা এর সর্বশেষ খবর

খুঁজে ফেরা - এর সব খবর



রে