thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬,  ৭ রবিউস সানি 1441

৩৫ বছরের নিভৃতিচার থেকে পরলোকে সুচিত্রা সেন

২০১৪ জানুয়ারি ১৮ ০০:০৮:৪৮

সুচিত্রা সেন আর নেই, আট দশক ধরাধামে কাটিয়ে পরলোকে চলে গেলেন বাংলা সিনেমার কিংবদন্তি এই মহানায়িকা। ৫০টি সিনেমায় তিনি নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করেন, যার ৪৩টিই ছিল বাংলা। কলকাতার বাংলা সিনেমার মহানায়কখ্যাত উত্তম কুমারের সঙ্গে সফল জুটি হিসেবে সুচিত্রা সেন দুই বাংলার সিনেমাপ্রেমিক মানুষের কাছে ছিলেন ভালোবাসায় সিক্ত এক নায়িকাদের নায়িকা। যে কারণে দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবৎ সিনেমা জগৎ বা মিডিয়ায় তার দর্শন না মিললেও তিনি কখনোই তার ভক্তকূলের কাছ থেকে হারিয়ে যাননি, তাদের হৃদয়ে আজও সুচিত্রা সেন নায়িকা হিসেবেই অম্লান।

কেন সুচিত্রা সেন কাউকে না জানিয়ে, না বলে তার প্রিয় সিনেমা জগৎ ছাড়লেন, কেন তিনি পর্দার একজন হৃদয় কাঁপানো নায়িকা হয়েও জীবনের একটি বড় সময় পর্দার আড়ালে রয়ে গেলেন, তা যেন এক রহস্যময়তা সৃষ্টি করেছে। সেই রহস্য জারি রেখেই সুচিত্রা সেন চলে গেলেন।

ছোটবেলার ২-১টি পারিবারিক ছবি বাদে সুচিত্রা সেনকে চির যৌবনবতী এক চেহারায় তার ভক্তরা দেখেছেন এবং দেখবেন। সম্ভবত ভক্তদের কাছে অন্য কোনো চেহারায় হাজির হতে চাননি বলেই সুচিত্রা সেন দীর্ঘ ৩৫টি বছর মিডিয়া এবং ক্যামেরার সামনে আসেননি, কাটিয়েছেন নিভৃতচারী জীবন। অভিনয় সাধনার চেয়ে তার এই নিভৃতচার-সাধনা অনেক বড় বলেই মনে হয়।

সুচিত্রা সেন চলে গেছেন, তার কর্ম বহুকাল ধরে জীবন্ত হয়ে থাকবে হাজারও ভক্তের হৃদয়ে। অনুপ্রেরণা হয়ে কাজ করবে বাংলা সিনেমায় যারা অভিনয় করে মানুষের মন জয় করতে চান সেই সব অভিনয় শিল্পীর কাছে।

এই মহান শিল্পীর তীরোধানে ভারতবর্ষের সিনেমা জগতে আজ শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শুধু সিনেমা জগৎ নয়, রাজনৈতিক ও সামাজিক জগতকেও তার এ চলে যাওয়া নাড়া দিয়েছে। সীমানা পেরিয়ে তা আছড়ে পড়েছে তার জন্মভূমি পূর্ববাংলায়। ভারতের রাজনৈতিক নেতৃত্বের পাশাপাশি বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতৃত্ব তার চিরবিদায়ে শোকাহত হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেত্রী আনুষ্ঠানিক শোক জানিয়েছেন তার মৃত্যুতে। তবে যাদের শোক কেউ কখনও জানবে না- সেই সাধারণ ভক্তরা সুচিত্রা সেনের মতোই নিভৃতে তার জন্য এক ফোঁটা চোখের পানি ফেলবে।

পাঠকের মতামত:

SMS Alert