thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ৬ রবিউস সানি ১৪৪০

বিনোদন মানেই ফ্যান্টাসি কিংডম

২০১৫ ডিসেম্বর ০৩ ১৪:৩৪:৩১
বিনোদন মানেই ফ্যান্টাসি কিংডম

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক : মানুষের কর্মব্যস্ত জীবনে একটু অবসর সবারই দরকার। আর অবসরের এই সময়ে পরিবারের সবাই মিলে কোথাও ঘুরতে যাওয়া চাই-ই চাই। এখন বছরের শেষ সময় শিশু-কিশোর এবং বাচ্চাদের স্কুল ছুটির সময়। আর কিছুদিনের মধ্যে সব বয়সের শিক্ষার্থীদের ফাইনাল পরীক্ষাও শেষ হয়ে যাবে। এই সময় আমাদের অভিভাবকদের উচিত ছেলেমেয়েদের একটু সময় দেওয়া, একটু বিনোদনের সুযোক করে দেওয়া। ইট-পাথরের শহরে পরিবারের আপনজন সবাইকে নিয়ে ঘুরে বেড়াতে ছোট-বড় সকলের প্রিয় ও আদর্শ জায়গা ঢাকার অদূরে অবস্থিত বিনোদন কেন্দ্র ফ্যান্টাসি কিংডম কমপ্লেক্স।

বিনোদনের সব সুযোগ-সুবিধা নিয়ে গড়ে ওঠা এই কমপ্লেক্সে রয়েছে ফ্যান্টাসি কিংডম, ওয়াটার কিংডম, এক্সট্রিম রেসিং (গো কার্ট), রিসোর্ট আটলান্টিস ও হেরিটেজ পার্ক- এই পাঁচটি বিশ্বমানের বিনোদন কেন্দ্র। এ ছাড়া চট্রগ্রামের বিনোদন কেন্দ্র ফয়’স লেক কনকর্ড, সি ওয়ার্ল্ড কনকর্ড ও ফয়’স লেক রিসোর্ট- এই তিন বিনোদন কেন্দ্র নিয়ে গড়ে উঠেছে ফয়’স লেক কমপ্লেক্স।

ফ্যান্টাসি কিংডম

ঢাকার অদূরে অবস্থিত বিনোদনের স্বর্গরাজ্য বলে খ্যাত ফ্যান্টাসি কিংডম বিনোদনপ্রিয় বাঙালীদের কাছে একটি জনপ্রিয় নাম। বিশ্বমানের বিনোদন সেবা, চমৎকার ল্যান্ড স্কেপিং ও উত্তেজনাকর সব রাইডস্ নিয়ে তৈরি ফ্যান্টাসি কিংডম, যা এরই মধ্যে বিনোদনপিপাসু ছোট-বড় সকলের কাছে বিনোদনের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। দুরন্ত গতিতে ছুটে চলা রোমাঞ্চকর অনুভূতি ও শিহরণ জাগানো রাইড রোলার কোস্টার এই পার্কের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাইডগুলোর মধ্যে অন্যতম। বিনোদনের স্বর্গরাজ্য এই ফ্যান্টাসি কিংডমের রাজা আশু ও রানী লিয়া। বিশ্বমানের আদলে তৈরি এই পার্কের সবকিছুর মধ্যে রয়েছে রাজা-রানীর সেই হারানো রাজ্যের সুর। এ ছাড়া রয়েছে জায়ান্ট ফেরিস হুইল, জুজু ট্রেন, হ্যাপি ক্যাঙ্গার, বাম্পারকার, ম্যাজিক কার্পেট, সান্তা মারিয়া, জায়ান্ট স্প্ল্যাশ, জিপ এ্যারাউন্ড, পনি এ্যাডভেঞ্চার, ইজি ডিজিসহ ছোট-বড় সকলের জন্য মজাদার সব রাইডস্।

বিনোদন করতে এসে দর্শনার্থীদের রসনা বিলাসের জন্য রয়েছে তিন তারকা মানের রেস্টুরেন্ট আশু ক্যাসল ও ওয়াটার টাওয়ার ক্যাফে। চমৎকার ও আকর্ষণীয় সব দেশী ও বিদেশী খাবারের সমারোহ রয়েছে এ সব রেস্টুরেন্টে। এ ছাড়া পুরো পার্কের ভেতর ছড়িয়ে রয়েছে আরও অনেক ছোট ছোট ফুড কোর্ট। সেখানে পাবেন মুখরোচক সব খাবার ও ফাস্টফুড। বিনোদনের এই রাজ্যে রয়েছে গিফট শপ। এগুলোতে পাওয়া যায় রকমারি সব গিফট। ৪০০ গাড়ি পার্কিংয়ের সুব্যবস্থাসহ এই পার্কের নিরাপওা ব্যবস্থাও চমৎকার। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে পার্ক কর্তৃপক্ষ সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির দিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ও অন্যান্য দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পার্ক খোলা রাখে।

বছরের বিশেষ দিনগুলোকে স্মরণীয় ও আরও আনন্দমুখর করে তোলার জন্য পার্ক কর্তৃপক্ষ আকর্ষণীয় ও জমজমাট কনসার্ট, ফ্যাশন শো, গেম শো, র‌্যাফেল ড্রসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। ঈদ উপলক্ষে পার্ক কর্তৃপক্ষ পার্কটিকে মনোমুগ্ধকর আলোকসজ্জায় সজ্জিতসহ জমকালো কনসার্ট, ডিজে শো ও বিশেষ প্রমোশনের ব্যবস্থা করেছে।

ওয়াটার কিংডম

সুবিশাল জলরাজ্যে বিনোদন এক অভাবনীয় সুযোগ, যা কিনা কনকর্ড ওয়াটার কিংডমেই সম্ভব। মাটির নিচ দিয়ে মনোমুগ্ধকর ও আকর্ষনীয় ভার্চুয়াল এ্যাকুরিয়াম টানেল পার হয়ে প্রবেশ করতে হয় ওয়াটার কিংডমে। কৃত্রিমভাবে সৃষ্ট সাগরের উত্তাল ঢেউ তৈরি করা রাইড ওয়েভপুল এই পার্কের সবচেয়ে আকর্ষণীয় রাইড। এ ছাড়া এই পার্কে রয়েছে স্পাইড ওয়ার্ল্ড, ফ্যামিলি পুল, টিউব স্পাইড, লেজি রিভার, মাল্টি স্পাইড, ওয়াটার ফল, ডুম স্পাইড, লস্ট কিংডম, ড্যান্সিং জোনসহ মজাদার সব রাইডস্। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে এই পার্কে রয়েছে পুরুষ ও মহিলাদের জন্য দুটি আলাদা চেঞ্জ রুম ও লকারের ব্যবস্থা।

দর্শনার্থীরা নিজেদের সঙ্গে অতিরিক্ত কাপড় ও তোয়ালে আনতে পারেন। এ ছাড়া এখানে তোয়ালে ও সুইম স্যুট ভাড়া নেওয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে। কেনাকাটা ও খাওয়া-দাওয়ার জন্য রয়েছে গিফট্ শপ, একাধিক ফুড কোর্ট ও আইসক্রিম শপ। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে পার্ক কর্তৃপক্ষ সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির দিনগুলোতে সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এবং অন্য দিনগুলোতে বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পার্ক খোলা রাখে। বছরের বিশেষ দিনগুলোকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য পার্ক কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন বিনোদনমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে। ঈদ উপলক্ষে পার্ক কর্তৃপক্ষ দর্শনার্থীদের জন্য আয়োজন করেছে ডিজে শো, ড্যান্স শো, গেম শো, র‌্যাফেল ড্র, এ্যাক্রোব্যাট শোসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের।

হেরিটেজ পার্ক

ইতিহাস-ঐতিহ্য ও বিভিন্ন সংস্কৃতির সমন্বয়ে গঠে ওঠা আমাদের এই বাংলাদেশ। আর এই ইতিহাস ও সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার প্রয়াসেই গড়ে উঠেছে হেরিটেজ পার্ক কনকর্ড। দেশের ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা ও চমৎকার সব রাইডস্ নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে এই হেরিটেজ পার্ক। হেরিটেজ পার্কে যে সব ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা রয়েছে তাদের মধ্যে জাতীয় স্মৃতিসৌধ, আহ্সান মঞ্জিল, চুনাখোলা মসজিদ, কান্তজীর মন্দির, জাতীয় সংসদ ভবন, ষাট গম্বুজ মসজিদ, পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার, সীতাকোট বিহার, পুটিয়া রাজবাড়ি ও গ্রিক মেমোরিয়াল উল্লেখযোগ্য।

ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সঙ্গে পরিচিত হওয়ার পাশাপাশি সপরিবারে এই পার্কের মজাদার সব রাইডস্ উপভোগ করতে পারবেন। এই পার্কের উল্লেখযোগ্য রাইডগুলো হচ্ছে- কফি কাপ, ফ্যামিলি রোলার কোস্টার, পাইরেট শিপ, ফ্যামিলি ট্রেন, ড্রাই স্পাইড, প্যাডেল বোট, জায়ান্ট ফেরিস হুইল, ফ্লুম রাইড, বাউন্সি স্পাইড, বাউন্সি ক্যাসল্, ব্যাটারিকার, সার্কাস স্যুইং ও ঈগলু হাউস। খাওয়া-দাওয়ার জন্য অত্যাধুনিক রেস্টুরেন্ট ও ফুড কোর্টের ব্যবস্থাও রয়েছে এই পার্কে।

একঘেঁয়ে কর্মব্যস্ত নাগরিক জীবন হতে সাময়িক অবসর নিয়ে সপরিবারে ও বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে আনন্দমুখর একটি দিন কাটানোর জন্য হেরিটেজ পার্ক কনকর্ডে পাঁচটি সুবিশাল পিকনিক স্পট রয়েছে। বৃক্ষরাজির সবুজ-শীতল ছায়ায়, মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে আপনজনদের নিয়ে একটি আনন্দঘন সুন্দর দিন কাটানোর জন্য হেরিটেজ পার্ক একটি আদর্শ স্থান। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে পার্ক কর্তৃপক্ষ সাপ্তাহিক ও সরকারি ছুটির দিনগুলোতে সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পার্ক খোলা রাখে।

এক্সট্রিম রেসিং গো-কার্ট

বাংলাদেশে প্রথম বারেরমতো কনকর্ড এক্সট্রিম রেসিং নিয়ে এসেছে বিশ্বমানের গো-কার্ট রেসিং, যা কার রেসিং দুনিয়ার এক অনন্য সংযোজন। ছোট চার চাকার প্রায় মাটি ছুঁই ছুঁই এই রেসিংকারগুলো আপনাকে দেবে রেসিংয়ের এক অবিস্মরণীয় অভিজ্ঞতা। আন্তর্জাতিক মানের এই গো-কার্টগুলো ব্যবহৃত হয় ফর্মুলা ওয়ান বিজয়ী মাইকেল শুমাকারের ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে। অংশগ্রহণকারীদের গো-কার্ট চালানোর সুবিধার্থে রয়েছে দক্ষ প্রশিক্ষক। এ ছাড়া এখানে গো-কার্ট চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম যেমন- হ্যান্ড গ্লাভস, হেলমেট, রেসিং জ্যাকেট, রেসিং বুট ইত্যাদির ব্যবস্থা রয়েছে।

এই রোমাঞ্চকর রাইডটিতে চড়ে উপভোগ করুন প্রায় ৪০০ মিটার ট্র্যাক জুড়ে রেসিংয়ের উত্তেজনাকর প্রতিটি মুহূর্ত। আপনার রেসিংকে আরও উপভোগ্য ও উত্তেজনাকর করে গড়ে তুলতে এখানে বাজবে ডিজে মিউজিক। অংশগ্রহণকারীদের সুবিধার্থে পার্ক কর্তৃপক্ষ প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত পার্ক খোলা রাখে। ঈদের আনন্দকে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিতে ঘুরে আসতে পারেন কনকর্ড এক্সট্রিম রেসিং গো-কার্ট-এ।

রিসোর্ট আটলান্টিস

ব্যস্ত জীবনের কর্মমুখর দিনগুলোর ক্লান্তি দূর করে নিজেকে নতুনভাবে আবিষ্কার করতে শহরের বাইরে কোলাহলমুক্ত পরিবেশে অবস্থিত তিন তারকা বিশিষ্ট রিসোর্ট আটলান্টিস অতুলনীয়। আপনার ভ্রমণ ও একান্ত বিশ্রামকে মোহময় করে তুলতে আধুনিক জীবনের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সুসজ্জিত হয়েছে রিসোর্ট আটলান্টিস। এই রিসোর্টে অবস্থানকালে আপনি ফ্যান্টাসি কিংডম, ওয়াটার কিংডম ও হেরিটেজ পার্কের মনোরম সৌন্দর্য ও রাইড উপভোগ করতে পারবেন। ইকোনমি, ডিলাক্স, সুপার ডিলাক্স ও স্যুইট- এই চার ধরনের রুম রয়েছে এই রিসোর্টে।

রিসোর্টটিতে আধুনিক সুযোগ-সুবিধার মধ্যে রয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম, ক্যাবল টিভি, রেস্টুরেন্ট, ক্রেডিট কার্ড সুবিধা, সাইবার ক্যাফে, টেলিফোন, কার পার্কিং, লন্ড্রি সার্ভিস, কনফারেন্স সেন্টারসহ আরও অনেক কিছু। এ ছাড়া বিনোদনের জন্য রয়েছে ডলবি ডিজিটাল সাউন্ড সিনেমা হল, বিলিয়ার্ড, পুল ও এয়ার হকিসহ বিভিন্ন রকম গেমের আয়োজন। রিসোর্ট আটলান্টিসে আগত অতিথিদের জন্য রয়েছে বার-বি-কিউ নাইট ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের চমৎকার সব আয়োজন।

আরও রয়েছে রুম ভাড়ার সঙ্গে সকালের নাস্তা, ফ্যান্টাসি কিংডম ও ওয়াটার কিংডমের রাইড উপভোগ করার সুযোগ। এই অভিনব রোমাঞ্চকর সুযোগ উপভোগের জন্য ওয়াটার কিংডমে অবস্থিত তিন তারকা বিশিষ্ট রিসোর্ট আটলান্টিস আপনাকে জানাচ্ছে সাদর আমন্ত্রণ।

(দ্য রিপোর্ট/একেএস/এজেড/ডিসেম্বর ০৩, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জনশক্তি-এয়ারলাইন্স এর সর্বশেষ খবর

জনশক্তি-এয়ারলাইন্স - এর সব খবর