thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫,  ১৪ মহররম ১৪৪০

ভোলা মুক্ত দিবস বৃহস্পতিবার

২০১৫ ডিসেম্বর ১০ ০৮:০৫:৪০
ভোলা মুক্ত দিবস বৃহস্পতিবার

ভোলা প্রতিনিধি : ভোলা মুক্ত দিবস বৃহস্পতিবার। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর পাক-হানাদারমুক্ত হয় এ দ্বীপ জেলা।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রায় এক মাস পর ভোলায় পাকবাহিনী হানা দেয়। শহরের পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভবনে কিছু রাজাকারের সহযোগিতায় আস্তানা গেড়ে ধ্বংসযজ্ঞ চালায় পাকসেনারা। ভোলায় প্রথম দিকে কয়েকটি সম্মুখযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটলেও শেষদিকে ভোলার অন্য সব উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

ডিসেম্বরের ৫-৬ তারিখ থেকে মুক্তিযোদ্ধারা পাকসেনাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। কোনো উপায় না পেয়ে ১০ ডিসেম্বর ভোরে ভোলা খেয়াঘাট দিয়ে লঞ্চে করে পালাতে থাকে পাকসেনারা। মুক্তিযোদ্ধারা তাদের পথরোধ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে চাঁদপুরের কাছে মিত্রবাহিনীর হামলায় ওই পাকসেনাদের মৃত্যু ঘটে। এর পর ১০ ডিসেম্বর সকালে মুক্ত ভোলায় কালেক্টরেট ভবনের সামনে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা ওড়ান মুক্তিযোদ্ধারা।

জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার মো. শফিকুল ইসলাম দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘দীর্ঘ ৯ মাস স্বাধীনতাযুদ্ধের পর আমরা স্বাধীন হয়েছি। আজ আমরা স্বাধীন দেশে বাস করেছি। তবে এ স্বাধীনতার জন্য অনেকে শহীদ হয়েছেন। অনেক মা-বোন তাদের ইজ্জত হারিয়েছেন।’

ভোলা সদরের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মমিন টুলু দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘আমরা যখন যুদ্ধ করেছি তখন জানতাম ওদের পরাজিত করতে সক্ষম হব। এ বিশ্বাস নিয়ে যুদ্ধ করেছি। অনেক কষ্ট করেছি। তর ফলে আজ আমরা স্বাধীন।’

এদিকে প্রতি বছর এই দিনে আলোচনা সভা, মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশসহ বিভিন্ন আয়োজনে দিবসটি পালন করা হয়। আজও বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হবে এ দিনটি।

(দ্য রিপোর্ট/আর/আসা/এজেড/ডিসেম্বর ১০, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জেলার খবর এর সর্বশেষ খবর

জেলার খবর - এর সব খবর



রে