thereport24.com
ঢাকা, সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮,  ২৩ রবিউস সানি 1443

অমর একুশে গ্রন্থমেলার সমাপনী

২০১৬ ফেব্রুয়ারি ২৯ ২১:২৬:৩৫
অমর একুশে গ্রন্থমেলার সমাপনী

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : অমর একুশে গ্রন্থমেলার সমাপনী দিনে গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় সমাপনী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা ভাষণ দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান। গ্রন্থমেলা ২০১৬-এর প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন অমর একুশে গ্রন্থমেলার সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ। এ ছাড়াও বক্তব্য দেন ইভেন্ট সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইভেন্ট টাচ ইন্টারন্যাশনালের সিইও মেজর (অব.) মাইনুল হাসান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। বিশেষ অতিথির ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব বেগম আক্তারী মমতাজ। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, আমরা আজ পৃথিবীর দীর্ঘতম গ্রন্থমেলার সমাপন ঘটাতে যাচ্ছি। এত দীর্ঘ গ্রন্থোৎসবের আয়োজন আমাদের জন্য বিপুল গৌরবের ব্যাপার। এই গ্রন্থমেলা কেবল বিকিকিনির মেলা নয় বরং চেতনার অভূতপূর্ব মিলনোৎসবও বটে।

শুভেচ্ছা ভাষণে শামসুজ্জামান খান বলেন, এবারের গ্রন্থমেলা সব দিক থেকে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। সরকার, লেখক-বুদ্ধিজীবী, প্রকাশক, পাঠক এবং দেশের সর্বস্তরের জনগণ যেভাবে গ্রন্থমেলাকে সফল করে তুলেছেন তা ভবিষ্যতে আরও সুন্দর ও নতুন আঙ্গিকে গ্রন্থমেলা বিন্যাসে আমাদের প্রেরণা দেবে।

গ্রন্থমেলা ২০১৬-এর প্রতিবেদন উপস্থাপন করে জালাল আহমেদ বলেন, গতকাল ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ পর্যন্ত অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত বিভিন্ন বিষয়ে এবারে নতুন বই এসেছে ৩৪৪৪টি। গতকাল ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলা একাডেমি ১ কোটি ৩৯ লাখ ৬৩ হাজার ৪৫৮ টাকার বই বিক্রি করেছে। আজকের বিক্রিসহ একাডেমির মোট বিক্রি হবে আনুমানিক ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ২৯ ফেব্রুয়ারির সম্ভাব্য বিক্রয় যুক্ত করলে এই মেলায় সর্বমোট বিক্রয়ের পরিমাণ (বাংলা একাডেমিসহ) ৪০ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বেগম আক্তারী মমতাজ বলেন, অমর একুশে গ্রন্থমেলা আজ দেশের গণ্ডি পেরিয়ে সারাবিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে জ্ঞানান্বেষু মানুষের মহামিলনমেলা হিসেবে। ভবিষ্যতে এই মেলা আরও বিস্তৃত ও ব্যাপক হবে আমরা এই আশা করি।

অনুষ্ঠানে প্রবাসে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের চর্চায় অবদানের জন্য ফরাসি গবেষক ও অনুবাদক ফ্রাঁস ভট্টাচার্য ও প্রবাসী বাঙালি কথাশিল্পী মঞ্জু ইসলামকে সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ পুরস্কার-২০১৫ প্রদান করা হয়। ফ্রাঁস ভট্টাচার্য অনুপস্থিত থাকায় তার পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন রামেন্দু মজুমদার। পুরস্কারপ্রাপ্ত লেখকদের হাতে পুরস্কারের অর্থমূল্য ৫০ হাজার টাকার চেক, পুষ্পস্তবক, সনদ এবং ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে ২০১৫ সালে প্রকাশিত বিষয় ও গুণমানসম্মত সর্বাধিক সংখ্যকগ্রন্থ প্রকাশের জন্য মাওলা ব্রাদার্সকে চিত্তরঞ্জন সাহা স্মৃতি পুরস্কার-২০১৬, ২০১৫ সালে প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে গুণমান ও শৈল্পিক বিচারে সেরা গ্রন্থের জন্য ভূমেন্দ্র গুহ সম্পাদিত জীবনানন্দ দাশের মূলানগ পাঠ-ভূমিকা ও কবিতা গ্রন্থের জন্য বেঙ্গল পাবলিকেশন্স লিমিটেড, বুলবুল আহমেদ সম্পাদিত Buddhist Heritage of Bangladesh গ্রন্থের জন্য নিমফিয়া পাবলিকেশন ও শেখ তাসলিমা মুন রচিত আমি একটি বাজপাখিকে হত্যা করতে চেয়েছিলাম গ্রন্থের জন্য পাঠসূত্র-কে মুনীর চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার ২০১৬, ২০১৫ সালে প্রকাশিত শিশুতোষ গ্রন্থের মধ্য থেকে গুণমান বিচারে সর্বাধিক গ্রন্থ প্রকাশের জন্য ময়ূরপঙ্খি-কে রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই স্মৃতি পুরস্কার-২০১৬ এবং ২০১৬ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে থেকে নান্দনিক অঙ্গসজ্জায় সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে সময় প্রকাশন, মধ্যমা পাবলিকেশন ও জার্নিম্যান বুকস্-কে শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার ২০১৬ প্রদান করা হয়। পুরস্কারপ্রাপ্ত সকল প্রকাশককে ২৫ হাজার টাকার চেক, সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলা পরিসরের দিক থেকে ছিল এ যাবৎ কালের বৃহত্তম মেলা। এই মেলায় বিপুল মানুষের সমাগম দেখে অনুধাবন করা যাচ্ছে মুদ্রিত বইয়ের আবেদন কখনো শেষ হবার নয়।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী ফরিদা পারভীন। যন্ত্রাণুষঙ্গে ছিলেন দেবেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় (তবলা), গাজী আবদুল হাকিম (বাঁশি), মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন (দোতারা) এস এম রেজা বাবু (ঢোলক) এবং দৌলতুর রহমান (কি-বোর্ড)।

(দ্য রিপোর্ট/এমএ/এপি/এম/ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০১৪)

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

M

M

SMS Alert

এর সর্বশেষ খবর

- এর সব খবর