thereport24.com
ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

ধান উৎপাদনে কৃষক ও পরিবারের শ্রমমূল্য নেই

২০১৬ মে ০১ ১২:৪০:০৬
ধান উৎপাদনে কৃষক ও পরিবারের শ্রমমূল্য নেই

আব্দুর রব নাহিদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের কৃষক কেতাবুল ভগু। বাপ-দাদার রেখে যাওয়া পেশাটাকে আকড়ে ধরে জীবন ধারণ করছেন। ধান লাগানো থেকে ফসল ঘরে তোলা পর্যন্ত প্রতিটি ধাপে কেতাবুল নিজে কাজ করেন। সেই সঙ্গে পরিবারের অন্য সদস্যরাও সহযোগিতা করেন। তবে বরাবরই হিসাবের বাইরে থাকে কেতাবুল ও পরিবারের শ্রমের আর্থিক মূল্য।

শুধু কেতাবুল নয়, হাঁড় ভাঙ্গা শ্রমে যে কৃষকরা সোনার ফসল ফলান তাদের সকলের শ্রমমূল্য হিসাবের বাহিরে থেকে যাচ্ছে। কারণ ধান আবাদে কৃষকের যে খরচ হয় তা উঠায় দায়। সেখানে তারা নিজের খাটনির টাকা চিন্তা করতে পারছেন না। চলতি বোরো মৌসুমে কৃষকদের সঙ্গে কথা বললে এমনই তথ্য পাওয়া গেছে।

ধান উৎপাদনের খরচের বিষয়ে বর্গা চাষী কৃষক কেতাবুল ভগু জানান, এ বছর তিন বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছেন। এখন পর্যন্ত তার বোর আবাদে বিঘা প্রতি প্রায় সাড়ে ৮ হাজার টাকা খরচ হয়েছে।

কি কি খরচ করলেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, জমিতে হাল চাষ ( ট্রাক্টর) ও সেচ খরচ বাবদ ২ হাজার ৭০০ টাকা, বীজ ও বীজ তলা তৈরীতে ১ হাজার ২০০ টাকা, সার ও বালাইনাশক বাবদ ৩ হাজার ৩০০ টাকা, শ্রমিকের মজুরী ১ হাজার ৫০০ টাকা।

এই কৃষক আরও জানান, ধান কাটার সময় বিঘা প্রতি ৩ মন করে জীন (ধান কাটা শ্রমিকের মজুরী) দিতে হয়। এছাড়া যেহেতু তিনি বর্গাচাষী তাই জমির মালিককে ধান দিতে হবে ৪ মন। উৎপাদনের বিভিন্ন ধাপের খরচের হিসাব দেয়ার পর কেতাবুল এখন ভাবেন, যদি ২০ মনও ধান ফলন হয় তাহলে সবশেষে আমার ঘরে কত মন ধান উঠবে!

বোর মৌসুমে আপনাকে কতদিন শ্রম দিতে হয় এই প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, ‘মাঘ মাসের দিকে ধান লাগাই, আর বৈশাখে ধান কাটছি। প্রতিদিন খাঁটতে না হলেও এই কয়টা মাস তো এই কামেই (কাজেই) থাকি। সেই হিসাবে তেমন কিছুই টিকে না।’

বিপদ ভঞ্জন নামে ফতেপুর ইউনিয়নের আরেক কৃষক জানান, ধান আবাদ করে কোন লাভ নেই, তবুও করি। কারণ সারা বছর ঘরের ধানের ভাতটা খায়। ধান আবাদ না করলে খাব কি?

একই উপজেলার নেজামপুর ইউনিয়নের হাসান আলী নামে এক কৃষক বলেন, তিনি এই বছর ২০ বিঘা জমিতে ধানের আবাদ করেছেন, বিঘা প্রতি তার গড় ফলন হয়েছে প্রায় ১৯ মন করে।

ধান আবাদে কেমন খরচ হয়েছে জানতে চাইলে এই কৃষক বলেন, ‘অতটা হিসাব করা নাই, তাও ধরেন বিঘা প্রতি ৭ থেকে সাড়ে ৭ হাজার টাকার উপরে হয়েছে।

কত মন ধান ঘরে তুলেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ধান কাটার জীন (মজুরী) ও জমি মালিককে ধান দিয়ে ১২ মন করে টিকবে। ধানের বাজার কেমন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকার মধ্যে উঠা নামা করছে। ৭০০ টাকা দরে ধান বিক্রি করতে পারলে একটু লাভ হবে, আর এর কমে গেলে তেমন কিছুই থাকবে না, খালি খরচটা উঠবে।

কৃষকের শ্রমের মূল্য উঠে না আসার বিষয়ে, বাংলাদেশ কৃষক সমিতি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক শারিফুল ইসলাম গেদু বলেন, ‘আসলে কৃষকের ধান ফলাতে যে উৎপাদন ব্যয় হয়, তার খরচ উঠার পর লাভ থাকে না। এর পরও কৃষক ফসল ফলায়, কারণ এরা অন্য কোনো কাজ করতে পারে না, এরা সরল মানুষ। বাপ-দাদার আমল থেকে এই কাজ করে আসছে।

একটি কৃষক পরিবারের যে ছেলেটি আসলে লেখাপড়া করতে পারেনি বা কোন চাকুরী পায়নি, সেই ছেলেটি বাপের এই কাজটি করে। অন্যরা চাকুরী বা অন্য কাজে যায়। আমাদের দেশ কৃষি প্রধান দেশ এখানে কৃষি খাতে আরও ভর্তুকি দেয়া প্রয়োজন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে নাচোলে, জৈব কৃষি নিয়ে কাজ করা বারসিক নামে একটি বেসরকারি সংস্থার উন্নয়নকর্মী অমিত সরকার জানান, তারা গত বোর মৌসুমে কৃষকের ধান উৎপাদনে বিভিন্ন ধাপের খরচের একটা হিসাব করেছিলেন। এ বছরও বিষয়টি নিয়ে কাজ করছেন।

তিনি বলেন, কৃষক কখনো তার ও তার পরিবারের শ্রমের মূল্য বিবেচনায় নেয় না। কৃষকের শ্রমমূল্য বিবেচনায় নিলে ধানের উৎপাদন খরচ আরও বাড়বে। কৃষককের শ্রমমুল্য বিবেচনায় নিলে এক বিঘা জমিতে অন্তত ১৫ হাজার টাকার বেশি উৎপাদন খরচ আসবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযারী, প্রতি একর বোর ধান আবাদে এ বছর কৃষকের খরচ হয়েছে ৩২ হাজার ৯০৫ টাকা। বিঘা প্রতি এই খরচ ১০ হাজার ৯৬৮ টাকা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সাজদার রহমান জানান, বোর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা কিছুটা কম অর্জিত হলেও ফলন ভালো হয়েছে। একর প্রতি ধান উৎপাদনে কৃষকের খরচ হয়েছে ৩২ হাজার ৯০৫ টাকা। প্রতি কেজি ধান উৎপাদনে এই খরচ ১৩ টাকা ৯৬ পয়সা। প্রতিমন ধান উৎপাদনে কৃষকের খরচ ৫৫৫ টাকা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর জেলায় বোর আবাদের লক্ষ্যমাত্র ছিল ৪৬ হাজার ৭৩৫ হেক্টর। তবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৬০ হেক্টর কম ৪৬ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে এবার বোরোর আবাদ হয়।

(দ্য রিপোর্ট/এসএস/মে ০১, ২০১৬)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জেলার খবর এর সর্বশেষ খবর

জেলার খবর - এর সব খবর