thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫,  ১১ মহররম ১৪৪০

সংশোধিত বাজেট ২০১৫-১৬

রাজস্ব আদায়ে ব্যর্থতা, বেড়েছে বাজেট ঘাটতি ও সঞ্চয়পত্র খাতে ঋণ

২০১৬ জুন ০২ ১৮:২৩:৩৭
রাজস্ব আদায়ে ব্যর্থতা, বেড়েছে বাজেট ঘাটতি ও সঞ্চয়পত্র খাতে ঋণ

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে মূল বাজেটের আকার, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) ও রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে বড় ধরনের কাটছাঁট করা হয়েছে। অন্যদিকে বাজেট ঘাটতি ও সঞ্চয়পত্র খাত থেকে সরকারের ঋণ গ্রহণ বেড়েছে, বৈদেশিক ঋণ ও অনুদান প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অর্জিত হয়নি লক্ষ্যমাত্রা।

বিদায়ী ২০১৫-১৬ অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ২ লাখ ৯৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটা কমিয়ে ২ লাখ ৬৪ হাজার ৫৬৫ কোটি টাকা করা হয়েছে। অর্থাৎ মূল বাজেটের আকার কমেছে ৩০ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা।

সংশোধিত বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী (এডিপি) কাটছাঁট করা হয়েছে। মূল বাজেটে এডিপি’র আকার ছিল ৯৭ হাজার কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটি কমিয়ে ৯১ হাজার কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এডিপি কাটছাঁট ও বাজেটের আকার কমিয়ে আনা প্রসঙ্গে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ‘বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী, বিশেষ করে প্রকল্প সহায়তার ব্যাপারে সক্ষমতার ঘাটতিসহ নানাবিধ কারণে সরকারি ব্যয় বাজেট প্রাক্কলন থেকে কম হবে।’

তবে বাজেটের আকার বা মোট ব্যয় কমলেও বাজেট ঘাটতি বেড়েছে। বাজেট ঘাটতির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮৬ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকা টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটা বেড়ে ৮৭ হাজার ১৬৫ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ বাজেট ঘাটতি বেড়েছে ৫০৮ কোটি টাকা।

সংশোধিত বাজেটে সার্বিকভাবে অনুন্নয়ন খাতেও ব্যয় কিছুটা কমেছে। মূল বাজেটে এ খাতে ব্যয় ধরা হয়েছিল ১ লাখ ৮৪ হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে অনুন্নয়ন (রাজস্ব) খাতে ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭১ কোটি টাকা। এর বিপরীতে সার্বিক অনুন্নয়ন ও অনুন্নয়ন (রাজস্ব) খাতে ব্যয় হয়েছে যথাক্রমে ১ লাখ ৬৩ হাজার ৭৫১ কোটি টাকা এবং ১ লাখ ৫০ হাজার ৩৭৯ কোটি টাকা।

বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব আদায় ও বৈদেশিক অনুদান প্রাপ্তির ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। গত বাজেটে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিয়ন্ত্রিত কর রাজস্ব আদায়ের পরিমাণ ধরা হয়েছিল ১ লাখ ৭৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে এটা কমিয়ে ১ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা দেখানো হয়েছে।অর্থাৎ বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব ঘাটতির পরিমাণ হচ্ছে ২৬ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা।

রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার কারণ হিসেবে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘প্রশাসনিক সংস্কার বিবেচনায় নিয়ে এনবিআর-এর রাজস্ব আদায় লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু সংস্কার কার‌্যক্রমসমূহ আশানুরূপভাবে বাস্তবায়িত না হওয়ায় এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে না। এ প্রেক্ষাপটে এনবিআর-এর লক্ষ্যমাত্রা বর্তমান অর্থবছরে ৮ শতাংশ কমাতে হয়েছে।’

অন্যদিকে বৈদেশিক ঋণ ও অনুদান প্রাপ্তির ক্ষেত্রে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল যথাক্রমে ৩২ হাজার ২৩৯ কোটি টাকা এবং ৫ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। এর বিপরীতে পাওয়া গেছে যথাক্রমে ২৭ হাজার ৪৭ কোটি টাকা এবং ৫ হাজার ২৭ কোটি টাকা।

বিদায়ী অর্থবছরে ব্যাংক বহির্ভুত খাতে (সঞ্চয়পত্র) ঋণ গ্রহণ ব্যাপক বেড়েছে। বাজেটে সঞ্চয়পত্র খাত থেকে ঋণ গ্রহণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৫ হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে নেওয়া হয়েছে ২৮ হাজার কোটি টাকা। এ খাত থেকে সরকারের ঋণ গ্রহণ ১৩ হাজার কোটি টাকা বেড়েছে।

(দ্য রিপোর্ট/এসআর/জুন ০২, ২০১৬)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে