thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ৫ রবিউস সানি ১৪৪০

ব্যস্ততায় কাটছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি কারিগরদের

২০১৬ অক্টোবর ০৬ ২২:২৯:৪৪
ব্যস্ততায় কাটছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি কারিগরদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজাকে ঘিরে ভক্তদের মাঝে এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। পূজার আনন্দকে আরো বাড়িয়ে দিতে মিষ্টির বিকল্প নেই। তাই পূজায় চাহিদানুযায়ী মিষ্টি সরবরাহ করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি কারিগররা। পূজার দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, তাদের ব্যস্ততাও ততই বাড়ছে। হরেক রকমের মিষ্টি বানাতে দম ফেলার সুযোগ নেই মিষ্টির কারিগরদের।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন মিষ্টির দোকান ঘুরে জানা যায়, হিন্দু শাস্ত্র অনুযায়ী ৫ প্রকার মিষ্টি দিয়ে দেবী দুর্গাকে বরণ করতে হয়। আর ভক্তদের মিষ্টি দিয়ে প্রসাদ বিতরণ করতে হয়। তা ছাড়া হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা পূজায় অতিথিদের বরণ করে থাকেন মিষ্টি মুখ করিয়ে। ফলে পূজায় মিষ্টির চাহিদা পূরণ করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টি কারিগররা। রাত-দিন মিলে তাদের কাজ করতে হচ্ছে। তবে এবার দুধের সংকট থাকায় কিছুটা বিপাকে পড়েছেন এখানকার মিষ্টি ব্যবসায়ীরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মিষ্টির সুখ্যাতি দেশজুড়ে। এখানে বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি তৈরি করা হয়ে থাকে। তার মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিখ্যাত ছানামুখী, ছানার বরফি, ছানার পোলাও, ছানার আমির্তি, ছানা ভাজা, ছানা মাছ, মাসের আমির্তি, বাদশা ভোগ, রাজ ভোগ, আঙ্গুরী, স্পঞ্জ মিষ্টি, মালাই মিষ্টি, রসমলাই, কদম্ব, ক্ষীর কদম্ব, ক্ষীর জাম, জাফরান ভোগ, মনোরঞ্জন, সেন্ডোজ, চমচম, কাল জাম, লাড্ডু, পেড়া, সন্দেশ, কাচাগোল্লা, নিমকী অন্যতম।

হিন্দু সম্প্রদায়ের ভক্তরা জানান, দেবী দুর্গার রাতুল চরণে পুষ্পাঞ্জলি আর মিষ্টি প্রদান করতে হয় তাদের। আর অতিথি আপ্যায়নে মিষ্টির বিকল্প নেই। তাই বিভিন্ন মিষ্টির দোকানে তারা আগে থেকেই মিষ্টির অর্ডার করে রেখেছেন।

জেলা শহরের মাতৃভান্ডার মিষ্টি দোকানের কারিগর পবিত্র পাল জানান, ‘বিভিন্ন এলাকা থেকে দুধ সংগ্রহ করে এখানে এনে আমরা মিষ্টি তৈরি করছি। প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকার লোকজন পূজাকে সামনে রেখে মিষ্টি সংগ্রহ করছে। তাই আমরা দম ফেলার সুযোগ পাচ্ছি না।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের মহাদেবপট্টি এলাকার মিষ্টি ব্যবসায়ী রুবেল জানান, পূজায় মিষ্টি সংগ্রহ করতে বিভিন্ন এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন জেলা শহরের মিষ্টির দোকানগুলোতে ভিড় করেন। আর তাদের চাহিদা অনুযায়ী মিষ্টি সরবরাহ করতে আমাদের মিষ্টির কারিগররা দিন-রাত পরিশ্রম করছেন।

এদিকে দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে জেলার সব কটি পূজামণ্ডপে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়েছে। বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের পাশপাশি র‌্যাব ও বিজিবি থাকবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জানান, জেলার ৫১০টি পূজামণ্ডপের পরিচালনা কমিটির সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ আছে। তাদের যেকোনো সমস্যা আমাদের কাছে জানাতে পারবেন। শান্তিপূর্ণ পূজা উদযাপনে আমাদের পুলিশ সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব ও বিজিবি মাঠে থাকবে। এ ছাড়াও নাশকতা এড়াতে বিভিন্ন পূজামণ্ডপের সামনে চেকপোস্ট বসানো হবে।

(দ্য রিপোর্ট/এমএইচএ/এম/অক্টোবর ০৬, ২০১৬)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জেলার খবর এর সর্বশেষ খবর

জেলার খবর - এর সব খবর