thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৩,  ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮
রেজোয়ান আহমেদ

দ্য রিপোর্ট

শেয়ার কেলেঙ্কারি

বিএসইসির ব্যর্থতায় মামলা চালুর উদ্যোগ নিলো ট্রাইব্যুনাল

২০১৭ ফেব্রুয়ারি ১৪ ২২:১৯:৫৩
বিএসইসির ব্যর্থতায় মামলা চালুর উদ্যোগ নিলো ট্রাইব্যুনাল

শেয়ারবাজার সংক্রান্ত মামলা নিষ্পত্তিতে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের দেড় বছর পার হয়েছে। কিন্তু এ সময়েও ১৯৯৬ সালে শেয়ার কেলেঙ্কারির ঘটনায় দায়ের করা স্থগিত মামলাগুলো চালু করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারেনি বাদীপক্ষ পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিএসইসির এই ব্যর্থতার কারণে শেয়ার কেলেঙ্কারির স্থগিত মামলাগুলো চালুতে ট্রাইব্যুনাল নিজেই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

উচ্চ আদালতের নির্দেশে ১৯৯৬ সালের শেয়ার কেলেঙ্কারির ৮ টি মামলা স্থগিত রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ১ জুন পুঁজিবাজার মামলা নিষ্পত্তিতে বিশেষ ট্রাইব্যুনালের যাত্রা শুরু হয়।

শেয়ার কেলেঙ্কারির ঘটনায় দায়ের করা স্থগিত মামলাগুলোর সর্বশেষ অবস্থা জানানোর জন্য বাদীপক্ষ ‍বিএসইসিকে নিয়মিতভাবে নির্দেশ দিয়ে আসছে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। কিন্তু দেড় বছর পার হয়ে গেলেও মামলাগুলোর বিষয়ে বিএসইসি কিছু জানাতে পারেনি। বার বারই সময় চেয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। ট্রাইব্যুনাল সময়ের আবেদন মঞ্জুর করলেও তাতে কোন লাভ হয়নি। এরই প্রেক্ষিতে মামলাগুলোর অবস্থা জানার জন্য ট্রাইব্যুনাল উদ্যোগ নিয়েছে। স্থগিত মামলাগুলোর বিষয়ে জানতে হাই কোর্ট বিভাগের রেজিস্টার বরাবর চিঠি পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ট্রাইবুন্যাল। শিগগিরই এ চিঠি পাঠানো হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

স্থগিত মামলা চালু করতে ট্রাইব্যুনালের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান এবিএম মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম। তবে বাদী হিসেবে বিএসইসির এ দায়িত্ব বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন ‘বাদীর আরও সক্রিয় ভূমিকা রাখা দরকার ছিল’।

মামলাগুলোর বাদী বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) প্যানেল আইনজীবী মাসুদ রানা খান দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, সংশ্লিষ্ট হাইকোর্টের প্যানেল আইনজীবীদের সাড়া না পাওয়ায় স্থগিত মামলাগুলো নিয়ে ট্রাইব্যুনালকে অবহিত করা সম্ভব হচ্ছে না। যে কারণে বারবার ট্রাইব্যুনালের কাছে সময় প্রার্থনা করতে হয়।

এদিকে স্থগিত মামলাগুলো চালু করার জন্য অ্যাটর্নি জেনারেল, হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্টার ও সংশ্লিষ্ট আইনজীবীদের সাথে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানান মাসুদ রানা।

মাসুদ রানা আরও জানান, এখন ট্রাইব্যুনাল স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে স্থগিত মামলাগুলোর সর্বশেষ অবস্থা জানার জন্য উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে কার্যকর ফল পাওয়া যেতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেণ তিনি।

জানা গেছে, ১৯৯৬ সালের শেয়ার কেলেঙ্কারি ঘটনায় বিএসইসির দায়েরকৃত ১৩টি মামলা ট্রাইব্যুনাল স্থানান্তরিত হয়েছে। এরমধ্যে ১টির রায় সম্পন্ন হয়েছে, ২টি বিচারাধীন ও ২টি মামলা বাতিল করা হয়েছে। কিন্তু বাকি ৮টি মামলা উচ্চ আদালতের নির্দেশে স্থগিত রয়েছে। উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশের কারণে এ মামলাগুলোর বিচারকার্য শুরু করতে পারছে না ট্রাইব্যুনাল।

স্থগিত মামলাগুলোর মধ্যে রয়েছে-এইচএমএমএস ফাইন্যান্সিয়াল কনসালটেন্সি অ্যান্ড সিকিউরিটিজ, ইমতিয়াজ হোসেন অ্যান্ড কোং, ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজ, দোহা সিকিউরিটিজ, আমান সি ফুডস ইন্ডাষ্ট্রিজ, এপেক্স ফুডস, অলিম্পিক ইন্ডাষ্ট্রিজ ও সিকিউরিটিজ কনসালটেন্টস লিমিটেডের শেয়ার কেলেঙ্কারি মামলা।

এরমধ্যে এইচএমএমএস ফাইন্যান্সিয়াল কনসালটেন্সি অ্যান্ড সিকিউরিটিজের শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলার বিচারকাজ ২০০৫ সালের ২৫ অক্টোবর থেকে স্থগিত রয়েছে। এ মামলার আসামিরা হলেন-হেমায়েত উদ্দিন আহমেদ, মোস্তাক আহমেদ সাদেক, সৈয়দ মাহবুব মুর্শেদ, শরিফ আতাউর রহমান ও আহমেদ ইকবাল হাসান।

ইমতিয়াজ হোসেন অ্যান্ড কোম্পানির বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি ২০১১ সাল থেকে স্থগিত। এ মামলার আসামি হলেন প্রতিষ্ঠানটির মালিক ইমতিয়াজ হোসেন।

২০০৬ সাল থেকে স্থগিত রয়েছে ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজের শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলা। এ মামলার আসামিরা হলেন-রিজওয়ান বিন ফারুক ও এমকেএম মহিউদ্দিন।

দোহা সিকিউরিটিজের শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলা ২০০৩ সাল থেকে স্থগিত রয়েছে। মামলার আসামি হিসেবে রয়েছেন প্রতিষ্ঠানের মালিক একেএম শামসুদ্দোহা।

আমান সি ফুডস ইন্ডাষ্ট্রিজ এবং এপেক্স ফুডসের মামলা দুটি ২০১৫ সাল থেকে স্থগিত রয়েছে। জাফর আহমেদ ও জহুর আহমেদ দুজনই এই দুই মামলার আসামি। এরমধ্যে জাফর আহমেদ প্রতিষ্ঠান দুটির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং জহুর আহমেদ ভাইস চেয়ারম্যান ও উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

২০১৩ সাল থেকে স্থগিত রয়েছে অলিম্পিক ইন্ডাষ্ট্রিজের শেয়ার কেলেঙ্কারি মামলা। এ মামলার আসামিরা হলেন-কোম্পানির পরিচালক মোহাম্মদ ভাই ও আজিজ মোহাম্মদ ভাই।

এছাড়া ২০১৪ সাল থেকে স্থগিত রয়েছে সিকিউরিটিজ কনসালটেন্টস লিমিটেডের শেয়ার কেলেঙ্কারি মামলা। এই মামলার আসামিরা হলেন-এম. জে আজম চৌধুরী, শহীদুল্লাহ ও প্রফেসর মাহবুব আহমেদ।

(দ্য রিপোর্ট/আরএ/এস/এমকে/ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৭)


পাঠকের মতামত:

SMS Alert

বিশেষ সংবাদ এর সর্বশেষ খবর

বিশেষ সংবাদ - এর সব খবর



রে