thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮,  ২১ রবিউস সানি 1443

রাতের অশ্বারোহী বিএনপি

২০১৪ ফেব্রুয়ারি ২২ ০০:১৫:৫১
রাতের অশ্বারোহী বিএনপি

সারাদিন মানুষশূন্য সুনসান নীরবতা থাকলেও রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সরগরম হয়ে ওঠে গুলশানের ডিপ্লোম্যাটিক জোনের ৮৬ নম্বর রোডের ৬ নম্বর বাড়ি। সূর্য ওঠার পর থেকে সূর্য অস্ত পর্যন্ত বাড়িটিতে থাকে মানুষের জন্য হাহাকার। বাড়ির মূল ফটকে বেসরকারি একটি নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানের পোশাক পরিহিত দু’একজন নিরাপত্তা রক্ষী ছাড়া দিনের বেশিরভাগ সময় আর তেমন কেউ থাকেন না। আসেনও না। কালেভদ্রে কোনো জরুরি প্রয়োজনে হয়ত সেখানে অফিসের স্টাফ বা অন্য কোনো রথী-মহারথীকে দেখা যায়।

তবে সময় গড়িয়ে সন্ধ্যা নয়, রাত নামলে বাড়িটির সামনে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। কিছু লোক সার বেঁধে দু’পাশে দাঁড়িয়ে থাকেন কারও অপেক্ষায়। তিনি যখন আসেন তখন সবাই ব্যতিব্যস্ত হয়ে ওঠেন তার দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য। এ সব ব্যস্ততা ও চঞ্চলতা যাকে কেন্দ্র করে, তিনি তখন ওই বাড়িতে আসেন তার দৈনন্দিন দাফতরিক কাজ সম্পাদনের জন্য।

আলোচিত বাড়িটি দেশের বৃহৎ একটি দলের প্রধানের রাজনৈতিক কার্যালয়। বাড়িটি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়। দল ও দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ওই বাড়িতে গ্রহণ করা হয়। শুধু দেশের নয়, এমনকি বহির্বিশ্বের কোটি মানুষের দৃষ্টি থাকে বাড়িটির দিকে। থাকে বাংলাদেশের ভাগ্য যারা লেখেন, সেইসব পরাশক্তির দৃষ্টিও।

যেখানে দিনের কর্মচাঞ্চল্য শুরুই হয় সন্ধ্যার পর। চলে মধ্যরাত পর্যন্ত। শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষাসহ যে কোনো ঋতুই সে চঞ্চলতায় ছেদ ফেলতে পারে না। দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে প্রবেশ ও মধ্যরাতে কার্যালয় ত্যাগ পর্যন্ত নেতাকর্মীরা গভীর ধৈর্য ও আগ্রহ নিয়ে ব্যস্ত ও অপেক্ষা করে থাকেন সেখানে। এরপর নিথর নীরবতায় চলে যায় বাড়িটি।

বাড়িটি নিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক দলসহ স্বয়ং নিজ দলের নেতাকর্মীদের মধ্যেও রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ইতিবাচক, নেতিবাচক বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য শোনা যায় অনেকের মুখে। রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের সদর দফতর থাকলেও দলের নেতাকর্মীদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়। নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রচলিত আছে-কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের অবস্থা মূলত ‘ঢাল নেই তলোয়ার নেই, নীধিরাম সর্দার’-এর মতো। গুলশান কার্যালয় থেকে কোনো বার্তা নাজিল না হলে কেন্দ্রীয় কার্যালয় কোনো সিদ্ধান্ত নিতে বা দিতে পারে না।

অতীত অনুসন্ধান করে দেখা গেছে, বিএনপির সর্বোচ্চ নী তিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির কোনো বৈঠক দিনের বেলায় হয়নি। মাসে, দুই মাসে যখনই দলের ওই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়, সব সময়ই হয়ে থাকে রাতের বেলা। কোনো কোনো বৈঠক রাত বেশি হওয়ার কারণে সিদ্ধান্ত গ্রহণ ব্যতিরেকেই মূলতবি ঘোষণা করা হয়। অনেক বৈঠকে সিদ্ধান্ত গৃহীত হলেও তা রাতের গভীরতার কারণে সাধারণ জনগণ তো দূরের কথা, দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতারাই জানতে পারেন না। সবাইকে অপেক্ষা করতে হয় পরের দিনের জন্য। এ ছাড়া দলীয় প্রধান বিদেশি ডেলিগেট বা কূটনীতিকদের সঙ্গে অধিকাংশ বৈঠকই করে থাকেন রাতে।

বিএনপির পক্ষ থেকে বার বারই অভিযোগ করা হয়, তাদের দলের সংবাদ দেশের ‘মিডিয়া’গুলো গুরুত্ব দিয়ে প্রচার করে না। যে কারণে দলের গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি বা সিদ্ধান্ত জনসাধারণের সঙ্গে সঙ্গে নেতাকর্মীদের কাছেও সময় মতো পৌঁছায় না।

প্রকাশ্যে স্বীকার না করলেও দলের এ ধরনের অভিযোগ রয়েছে দেশের বহুল প্রচারিত বেশকিছু সংবাদপত্র ও বেসরকারি টেলিভিশনের প্রতি। সম্প্রতি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও ৭১ টিভির কোনো টক শো বা সংবাদ সংশ্লিষ্ট অনুষ্ঠানে নেতাদের অংশগ্রহণের বিষয়ে অলিখিত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। দেশের রাষ্ট্রক্ষমতায় একাধিকবার থাকা একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলের এ ধরনের পদক্ষেপ ও রাতে রাজনৈতিক কর্মসূচির বিষয়ে দ্য রিপোর্ট কয়েকজন জাতীয় ব্যক্তিত্বের সঙ্গে কথা বলে। তারাও এ ব্যাপারে বিএনপিকে আরও সচেতন ও সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দেয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রখ্যাত রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দিন আহমদ বলেন, ‘রাজনৈতিক দলের কর্মকাণ্ড দিনের বেলায় হলে দলটিই লাভবান হবে। তাদের দলীয় সিদ্ধান্তগুলো সময় মতো সংবাদপত্র ও টেলিভিশন সংবাদে প্রচার হলে দল ও নেতাকর্মীরাই লাভবান হবে। রাতে নিউজ কাভারেজে সমস্যা হয়। তা ছাড়া মনে রাখতে হবে-রাজনৈতিক দলের সিদ্ধান্ত জনগণকেও জানতে হবে। কারণ জনগণের জন্যই তাদের রাজনীতি।’

দেশের সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে বিএনপির অভিযোগ সম্পর্কে অধ্যাপক এমাজউদ্দিন বলেন, তারা কি ধরনের অভিযোগ দিচ্ছেন, বিষয়টি নিয়ে চিন্তাভাবনা করতে হবে। কেন তারা অভিযোগ করছেন, ঠিক জানি না। শুধু অভিযোগ করলেই তো হবে না। আগে ভিত্তি খুঁজে বের করতে হবে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. মনিরুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘একটি রাজনৈতিক দলের সভা রাতে কী দিনে হবে এটা তাদের নিজস্ব সিদ্ধান্তে হবে। তা ছাড়া ওনার (খালেদা জিয়া) যে কোনো সিদ্ধান্তের জন্য টিম আছে। তারা এ ব্যাপারে কাজ করে থাকে।’

‘বিএনপি রাতের রাজনীতি করে’ প্রতিপক্ষের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে প্রফেসর মনিরুজ্জামান মিয়া বলেন, উনি এবং দলের নেতাদের সুবিধামত সময়ের ওপর নির্ভর করে তারা কখন বৈঠক করবে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) সাধারণত সন্ধ্যার পর অফিসে বসেন। মূলত আমরা তখনই মিটিংগুলো করে থাকি।’

বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো রাতেই নেওয়া হয় কী না এমন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আসলে কিছু বিষয় আছে যা দিনের বেলা করলেই ভালো হয়। দেখি বলব, বিফ্রিংগুলো যেন দিনের বেলায় হয়। তা ছাড়া বিশেষ মুহূর্ত ছাড়া বিফ্রিংগুলো তো দিনের বেলায়ই হয়ে থাকে।’

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, গণমাধ্যম কর্মীরা দিনের বেলায় যখন সংবাদ সংগ্রহের জন্য উন্মুখ হয়ে নেতাদের হন্যে হয়ে খোঁজেন, তখন দলের নেতাদের পাওয়া যায় না। অনেকের ফোনও থাকে বন্ধ। দিনের কাজ শেষে রাতে সাংবাদিকরা যখন ঘরে ফেরার অপেক্ষায় থাকেন, সেই সময় একটা প্রেস বিজ্ঞপ্তি অথবা কখনও কখনও সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করা হয়। নেওয়া হয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্ত।

অভিযোগ রয়েছে, বিএনপির অনেক নেতা আছেন যাদের কোনো কর্মসূচিতে দেখা যায় না। কিন্তু রাতে তাদের গুলশান কার্যালয়ে দেখা যায়। সারাদিন বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকার পর দলীয় পদ টিকিয়ে রাখতে গুলশান কার্যালয়ে ভিড় করেন তারা। চেয়ারপারসন রাতে আসায় সেই সুযোগ নেন তারা।

এদিকে বেশির ভাগ গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত রাতে হওয়ায় সংবাদকর্মী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরও গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় গুলশান কার্যালয়ের সামনে। বিএনপির গুলশান অফিসের সংবাদ কাভার করা একাধিক সাংবাদিক জানান, গুলশান অফিসের সংবাদ সংগ্রহে রাত হয়ে যায়। যে কারণে বাসায় ফেরাটা সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান হাইকোর্টে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। আদালত আবেদন নামঞ্জুর করে ওই দিন পৌনে বারোটার দিকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। ওই দিন বিকাল পৌনে পাঁচটার দিকে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আমানের মুক্তি চেয়ে গণমাধ্যমে বিবৃতি দেন। রাত ১১টার দিকে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আমানের মুক্তি চেয়ে আরেক বিবৃতি দেন।

১৯ দলীয় জোটের শরিক ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামীকে ১০ ফেব্রুয়ারি সকালে আটকের এক ঘণ্টা পর ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু ওই দিন রাত সাড়ে ১১টার পর নেজামীর মুক্তি দাবি করে গণমাধ্যমে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নামে বিবৃতি পাঠানো হয়।

এরপর রাত ১২টার দিকে আরেক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ভুলের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বিএনপি।

বিএনপির রাতের রাজনীতি সম্পর্কে জানতে চাইলে জোটের শরিক জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) সভাপতি শফিউল আলম প্রধান দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘কেউ যদি বলে বিএনপি রাতের রাজনীতি করে এটা বললে ভুল হবে। এটা ঠিক নয়। প্রত্যেকের একটি রাজনৈতিক স্টাইল আছে। সেটা ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) থাকতেই পারে।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু দিনের মধ্যভাগ থেকে শুরু করে শেষ রাত পর্যন্ত রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালাতেন। সাবেক রাষ্ট্রপতি শহীদ জিয়াউর রহমান ফজরের পর থেকে শুরু করতেন। আর ম্যাডাম সন্ধ্যার পর থেকে শুরু করেন। এটি অন্যভাবে দেখার কিছু নেই।’

প্রধান বলেন, ‘আমরা দিনের বেলায় অনেক সাক্ষাৎ করেছি ম্যাডামের সঙ্গে। তবে আনুষ্ঠানিক কোনো বৈঠক হয়নি। আনুষ্ঠানিক বৈঠকগুলো রাতের বেলায় হয়েছে।’

(দ্য রিপোর্ট/এমএইচ-টিএস/এইচএসএম/এনআই/ফেব্রুয়ারি ২২, ২০১৪)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

বিশেষ সংবাদ এর সর্বশেষ খবর

বিশেষ সংবাদ - এর সব খবর