thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৭ আশ্বিন ১৪২৪,  ১ মহররম 1439

সব জেলায় পরিবেশ অধিদফতরের শাখা হচ্ছে

নির্মল বায়ুর জন্য খরচ ১৪৬ কোটি টাকা

২০১৭ মে ০২ ১৮:০৭:১৫
নির্মল বায়ুর জন্য খরচ ১৪৬ কোটি টাকা

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : নির্মল বায়ু ও পরিবেশের টেকসই উন্নয়নকল্পে ১৪৬ কোটি ৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘নির্মল বায়ু এবং টেকসই পরিবেশ’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। ২০০৯ সালের জুলাই থেকে শুরু হওয়া এ প্রকল্প আগামী ২০১৯ সালের জুন মাসের মধ্যে এ প্রকল্প শেষ হবে বলে জাতীয় সংসদকে জানিয়েছেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু।

মঙ্গলবার দশম জাতীয় সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনের প্রথম দিন ফেনী-২ আসনের সরকারদলীয় সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব তথ্য জানান। এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকেল ৫টায় সংসদের অধিবেশন শুরু হয়।

পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ‘নির্মল বায়ু এবং টেকসই পরিবেশ’ শীর্ষক প্রকল্পটির বাস্তবায়নের চিত্র সংসদে তুলে ধরেন। বায়ু দূষণে মনিটরিং, ইটভাটা বায়ু দূষণ, বায়ু দূষণ নিয়ণ্ত্রণে বিধিমালা/নীতিমালা প্রণয়ন ও জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমে ১৪৬ কোটি ৪ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে।

অবৈধ ইটভাটাকে ১৭ কোটি টাকা জরিমানা

চট্টগ্রাম-১১ আসন থেকে নির্বাচিত সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এম. আবদুল লতিফ পরিবেশ ও বনমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন করেন, বিশ্ব ব্যাংকের ২০১৩ সালের এক প্রতিবেদনে বায়ু দূষণে এক বছরে দেশে এক লাখ ৫৪ হাজার ৮৯৮ জন প্রাণ হারিয়েছেন। বিষয়টি সত্য হলে বায়ু দূষণ রোধে সরকারের পদক্ষেপ জানতে চান তিনি। জবাবে মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু জানান, বিশ্ব ব্যাংকের এ প্রতিবেদন তৈরিতে উৎস হিসেবে ভূ-উপগ্রহের মাধ্যমে প্রাপ্ত উপাত্ত, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা, রান্নায় ব্যবহৃত জ্বালানি ও পারিপার্শ্বিক বায়ুমানমাত্রা মডেলের মাধ্যমে এক ধরনের প্রক্ষেপণ বিশ্লেষণ করে দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। তবে বায়ু দূষণ অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের মতো বাংলাদেশেরও একটি সমস্যা।

সমস্যা নিরসনে সরকারের উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম তুলে ধরে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী জানান, পরিবেশ দূষণকারী সকল ইটভাটা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ২০১৩ সালে থেকে ২০১৭ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত ৫০৫টি অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে এনফোর্সমেন্ট পরিচালনা করে ১৩ কোটি ৭৯ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করা হয়েছে। পাশাপাশি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ২০১৪ সাল হতে অদ্যাবধি পর্যন্ত ২৮৫টি অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ৩ কোটি ৪৫ লাখ ২ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু আরও জানান, যানবাহন সৃষ্ট বায়দূষণ নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে পরিবেশ অধিদফতর নিয়মিতভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহরে গাড়ির ধোঁয়া পরিবীক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে এবং দূষণ সৃষ্টিকারী গাড়ির বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ২০০৯ সাল হতে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পেট্রোল ও ডিজেল চালিত মোট ৫ হাজারের অধিক মোটরবাইক, কার, মাইক্রোবাস, মিনিবাস, বাস, ট্রাক, মিনিট্রাক এবং অটোরিকশা নিঃসৃত ধোঁয়া পরিবীক্ষণ ও ফলাফল বিশ্লেষণপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

পরিবেশ বান্ধব সরকারের নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি জানান, ইতোমধ্যে দেশে ১০ লাখ বন্ধু চুলা ভর্তুকি মূল্যে বিতরণ ও বিক্রয়োত্তর সেবা প্রদান করা হয়েছে। ২০১৫ হতে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ৭০ হাজার ইমপ্রুভড কুক স্টোভস সিলেকটেড এরিয়ায় বিতরণ করা হয়েছে এবং বায়ু টেকসই পরিবেশ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে।

সব জেলায় পরিবেশ অধিদফতরের শাখা হচ্ছে

মানিকগঞ্জ-২ আসনের সরকারদলীয় এমপি মমতাজ বেগমের আরেক লিখিত প্রশ্নের জবাবে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী বলেন, ২০১০ সালের পূর্বে পরিবেশ অধিদফতরের ঢাকাস্থ সদর দফতর ও ৬টি বিভাগীয় কার্যালয়ে সীমাবদ্ধ ছিল। অনুমোদিত জনবল ছিল ২৪৪ জন। ২০১০ সালে ২১টি জেলায় পরিবেশ অধিদফতরের সাংগঠনিক কার্যক্রম সম্প্রসারণ করে জনবল ৭৩৫ জনে উন্নীত হয়েছে। সরকার রংপুর ও ময়মসিংহ বিভাগীয় অফিসসহ অবশিষ্ট ৪৩ জেলায় (দেশের সব জেলা) অফিস স্থাপনসহ ১৮৪টি নতুন পদ সৃজনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, যা অনুমোদন প্রায় চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

(দ্য রিপোর্ট/কেএ/এপি/মে ০২, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে