thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০১৭, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪,  ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯

হুয়াওয়ের অংশীদারিত্বে জাবি ক্রিকেটের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

২০১৭ মে ১৭ ১৯:৪২:০২
হুয়াওয়ের অংশীদারিত্বে জাবি ক্রিকেটের ফাইনাল অনুষ্ঠিত

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তঃবিভাগ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনালে উদ্ভিদতত্ব বিভাগকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে অর্থনীতি বিভাগ। বুধবার (১৭ মে) জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মাঠে খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ফাইনাল ম্যাচটির স্পন্সর হিসেবে ছিলো শীর্ষস্থানীয় টেলিকমিউনিকেশন ও তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক সল্যুশন প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড।

টুর্নামেন্টের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সম্মানিত উপাচার্য ড. ফারজানা ইসলাম।

এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সেন্ট্রাল স্পোর্টস কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল হোসেন এবং কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক আবুল খায়ের প্রমুখ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড এর চিফ টেকনোলজি অফিসার কলিন শি এবং হুয়াওয়ের ডিরেক্টর অব ডিভাইস বিজনেস শি সিয়াওমিন। প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

স্পন্সরশীপের অংশ হিসেবে একটি স্থায়ী ডাগআউট, একটি স্কোরবোর্ড, চ্যাম্পিয়ন ও রানারআপ দলের জন্য দুটি আলাদা ট্রফি এবং ম্যান অব দ্যা ম্যাচ ও ম্যান অব দ্যা টুর্নামেন্টের পুরস্কার দিয়েছে হুয়াওয়ে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশকালে কলিন শি বলেন, ‘অংশগ্রহণকারী এবং দর্শকদের ব্যাপক সাড়া দেখে আমরা অভিভূত। বাংলাদেশ ক্রিকেটপ্রেমী একটি দেশ। ক্রিকেটের জন্য এ জাতির ভালোবাসা সত্যিই অসাধারণ। দেশীয় সংস্কৃতি ধরে রাখা এবং তরুণদের প্রতিভা বিকাশের মাধ্যমে সফলতা বিশ্বব্যাপি প্রচারের ক্ষেত্রে হুয়াওয়ে দৃঢ়-প্রতিজ্ঞ। ভবিষ্যতেও আমরা দেশের তরুণদের সঙ্গে থাকার পাশাপাশি এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করতে আগ্রহী।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই অংশীদারিত্ব হুয়াওয়েকে বাংলাদেশের মানুষ ও সংস্কৃতির আরও কাছাকাছি নিয়ে যেতে এবং উন্নত বিশ্ব গড়ে তুলতে তরুণদের সঙ্গে কাজ করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

প্রসঙ্গত, হুয়াওয়ে বর্তমানে ১৭০টিরও বেশি দেশে নিজেদের পণ্য ও সেবা পরিচালনা করছে। যেখানে সারা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ অন্তর্ভুক্ত। গত বছর সারাবিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ মোবাইল ফোন রফতানি করেছে প্রতিষ্ঠানটি। যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, সুইডেন, রাশিয়া, চীন ও ভারত মিলে বর্তমানে হুয়াওয়ের ১৬টি রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আর অ্যান্ড ডি) সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। তৃতীয় বিজনেস ইউনিট হিসেবে হুয়াওয়ে কনজিউমার বিজি-এর আওতায় আছে স্মার্টফোন, মোবাইল ব্রডব্যান্ড ডিভাইসেস, হোম ডিভাইসেস এবং ক্লাউড সার্ভিসেস। প্রায় ২০ বছর ধরে টেলিকম খাতে সফলতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে হুয়াওয়ের গ্লোবাল নেটওয়ার্ক। সারাবিশ্বের মানুষকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে অগ্রগামী করার জন্য হুয়াওয়ে নিরলসভাবে কাজ করছে।

(দ্য রিপোর্ট/এমএইচএ/মে ১৭, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

অর্থ ও বাণিজ্য এর সর্বশেষ খবর

অর্থ ও বাণিজ্য - এর সব খবর



রে