thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৭, ৪ ভাদ্র ১৪২৪,  ২৫ নভেম্বর ১৪৩৮

একজন ভজহরি কুণ্ডু ও উপেক্ষিত গ্রামীণ সাংবাদিকতা

২০১৭ জুলাই ২০ ২০:২৪:৪৪
একজন ভজহরি কুণ্ডু ও উপেক্ষিত গ্রামীণ সাংবাদিকতা

বিধান সরকার, বরিশাল : নোবেলজয়ী বব ডিলান জানতে চেয়েছিলেন কতটা পথ হাঁটলে তারে পথিক বলা যায়, আর কটতা পথ উড়লে পাখি জিরোবে ডানায়? প্রশ্ন দুটি ইদানিং ঘুরপাক খায় নানা ভাবনায়, থাকে উত্তরের অপেক্ষা। কারণ চলমান প্রেক্ষাপটের ভিড়ে কতটা লিখলে তারে লেখক বলা যায়? বা কি এমন করলে তাকে আদর্শ বা আইকন বানিয়ে ফেলা যায়? উত্তর আসে মেকিদের দাপটে অখিলবন্ধু ঘোষ যতটা প্রতিভাবান পেলেন না তার যোগ্য সম্মান। এমন বাস্তবতায় প্রান্তের এক সাংবাদিক ভজহরি কুণ্ডুর দশা এমনই হয় বৈকি। ফেইসবুকে ভদ্রলোকের প্রয়াণের খবর জানতে পেয়ে তার ঘনিষ্ঠ সহযোদ্ধাদের অনুরোধ জানিয়েছিলাম জীবনের অধ্যায়গুলো তুলে ধরতে। তার কাজের ধরন ও এর মধ্যদিয়ে গ্রামীণ জনপদে পরিবর্তন বা প্রভাবের বিষয়গুলো নিয়ে লিখতে। সাড়া পাইনি, কেবল জনকণ্ঠ গলাচিপা প্রতিনিধি শংকরলাল দাসের একটুকুন স্মৃতিচারণ ব্যতীত। ব্যথা অনুভব করেছি, তবে লিখবো যে, ভদ্রলোককে আমি কোনদিনই দেখিনি এজন্য রসদ জোগাতে পারিনি। যদিওবা কাছাকাছি বলতে একই জেলার অধীনে থেকে কাজ করেছি একদা। শুধু তাই নয়; একই পত্রিকা সংবাদে একই সময়ে কাজ করেছি দুজনে। মন থেকে তাগিদ অনুভব করায় আর মৃত্যুর এক পক্ষ দিনে সংবাদে প্রকাশিত খন্দকার মুনতাসির মামুনের “ভজহরির শূন্যতা ও সাংবাদিকের স্বপ্ন’’ শিরোনামের লেখাটা ফের উদ্বুদ্ধ করে আজকের এ লেখায়।

এক সময়ের স্বপ্নের পত্রিকা সংবাদে ক’বছর কাজ করার সুযোগ মিলেছিল বরিশাল প্রতিনিধি হয়ে। ওসময় ভজহরি কুণ্ডু দাদার লেখা পেতাম। ডিসি বা টিসি কলামে প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলো তার নামেই ছাপা হতো অনেকটা। কি ছাপা হতো আজ মনে করতে না পারলেও যেহেতু নামে প্রকাশিত হতো, তাই খবরের গুরুত্ব ছিল সন্দেহ নেই। তিনি আমতলী প্রতিবেদক হয়েও কখনো কলাপাড়ার নিউজও কাভার করতেন। তবে উপস্থিতি পেতাম কিছুটা বিরতি নিয়ে হঠাৎ করে কখনোবা। নেপথ্যের কারণ জানতে শরণাপন্ন হই ভজহরি কুণ্ডুর সমবয়সী ও একই সাথে পথচলা শুরু শংকর লাল দাসের। তিনি বললেন, এখন থেকে সাড়ে তিনদশক আগে সাংবাদিকতা শুরু করেছিলেন দুজনে। ক্রোশের পর ক্রোশ পথ মাড়িয়ে চলে যেতেন চরাঞ্চলের মানুষের খবর নিতে। ওখান থেকে দুটি খবর তারা বয়ে আনতেন। একটি হলো কেমন আছেন মৌলিক অধিকার বঞ্চিত সাধারণ মানুষ। আরেকটি খবর হলো কেমন করে প্রশাসনের সহায়তায় জালিয়াতির কবলে ভূমি দস্যুদের দ্বারা ভূমিহীন থেকে ভাগচাষিতে পরিণত হতেন চরের মানুষেরা। এর শুরুটা করেছিলেন কলাপাড়ার দীপক মুখার্জী। তিনি দেশান্তরি হলেন, তবে তার দেখানো পথ ধরেই হাঁটতে লাগলেন ভজহরি এবং শামসুল আলম নামে কলাপাড়ার দুই গ্রামীণ সাংবাদিক। শংকর লাল দাস আরো জানালেন, তখন থানা পর্যায়ে প্রেস ক্লাব গড়ে ওঠেনি। ওসময় ভজহরি কুণ্ডু ও শংকর দাস ছিলেন পটুয়াখালী প্রেস ক্লাবের সদস্য। একই লঞ্চে দুজনে রওনা দিতেন, তবে প্রয়োজনীয় পয়সার অভাবে কোন কোন দিন ঠিকমত ভাড়া দিতে পারতেন না। প্রেস ক্লাবের সভা শেষে বোডিংয়ে থাকার পয়সা কোথায় পাওয়া, তাই রাতে লঞ্চে এসেই দু’বন্ধু পাশাপাশি শুয়ে গল্প করেই নির্ঘুম সময় পাড় করতেন। এইতো মে মাসের কোন একদিন আমতলীতে গেলে শংকর দাসকে বলেছিলেন, তুইতো ভারত থেকে চিকিৎসা করায়ে এলি; আমারো বুকটা মাঝে মধ্যে ব্যথা করে। চেকআপ করাবো কিন্তু টাকা কই। বৌদি চাকরি করেন বিআরডিবিতে। তারও বেতন অনিয়মিত, দুই সন্তানের পড়ালেখার খরচ এসব কুলিয়ে আর চিকিৎসা করানো হয়ে ওঠেনি। যার পরিণতি ৫ জুলাই মাত্র ৫৮ বছরে জীবনের ইতি।

আরেকটি মৃত্যু নিয়ে ভজহরি কুণ্ডুর এক অনুজ সহযোদ্ধা আইকন বলে চালিয়ে দেওয়ায় বব ডিলানে উত্তর খুঁজছিলাম। কি পারিমাণ খিস্তি খেউর, কূটকৌশলী আর নেশাগ্রস্ত হলে তারে নেতৃত্বের স্থানে বসানো যায় বা আইকন বানাতে তুবড়ি ছোটাতে হয়? গোয়েবলসীয় আধিক্যে আর অহেতুক ইরাক যুদ্ধে পেন্টাগন সৃষ্ট সংবাদকর্মীদের ভিড়ে এমনটাই হয় বলে উত্তর মেলে। প্রতিবাদ করবেন? দল বেঁধে আপনার মুন্ডুপাত করতে লেগে যাবে। এই সুবিধাবাদীদের কারণেই ভজহরি কুণ্ডুর স্বপ্ন একটি ভালো পত্রিকা বলতে যেখানে কাজ করলে ন্যায্য পারিশ্রমিক পাবেন, তা আর কোনদিন হয়ে ওঠেনি। তাই একই টানাপোড়েনের মধ্যে রেখে গেলেন তার পরিবারকে। এনিয়ে সমব্যাথী শংকর লাল দাসের আক্ষেপ অন্যখানে। ভজহরি কুণ্ডু আর্থিক দৈন্যতার মধ্যেও সাড়ে তিন দশক আগে হৃদয় থেকে প্রয়োজন মনে করেই গ্রামীণ জনপদের সংবাদ সংগ্রহে বেরিয়েছিলেন। সাংবাদিকতা উৎকর্ষিত হয়েছে, অনেক সংগঠন জন্ম নিয়েছে, মাগার ভজহরি দাদাকে একবারও কেউ জিজ্ঞাসা করেনি পর্যন্ত। নতুন তায় মেকি তারাও পুরস্কার বাগায়, বগল বাজায়, দাবড়ে নেতা পর্যন্ত বনে যায়। সেখানে গ্রামীণ সাংবাদিকতার আদর্শ ভজহরি কুণ্ডুর উপেক্ষিতের বিষয়টি বেশ ভাবায়। শংকর লাল দাসের ন্যায় এ আক্ষেপ আমারও।

(দ্য রিপোর্ট/এপি/জুলাই ২০, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জেলার খবর এর সর্বশেষ খবর

জেলার খবর - এর সব খবর



রে