thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮, ৮ আষাঢ় ১৪২৫,  ৭ শাওয়াল ১৪৩৯

নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও পাইলটের কথোপকথন নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

২০১৮ মার্চ ১৩ ১০:৩০:১২
নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ও পাইলটের কথোপকথন নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক : নেপালে বিমান দুর্ঘটনা নিয়ে তদন্ত পুরোদমে শুরু হবার আগেই দায়দায়িত্ব নিয়ে অভিযোগ পাল্টা-অভিযোগ শুরু হয়ে গেছে। নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে পাইলটের কথোপকথনের একটি অডিও ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য এসেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ও ত্রিভুবন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে। খবর- বিবিসির।

কাঠমান্ডু বিমানবন্দরের ট্রাফিক কন্ট্রোল টাওয়ারের গাফিলতিকে দায়ী করছে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্স।

এয়ারলাইন্সটি বলছে, তাদের বৈমানিক বেঁচে আছেন এবং বৈমানিকদের দিক থেকে কোন ত্রুটি ছিলোনা বলেই মনে করছেন তারা।

অন্যদিকে, নেপাল কর্তৃপক্ষ পাইলটকেই দোষারোপ করছে।

নেপালে বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম বলেছেন, বিমানটিকে দক্ষিণ দিক থেকে নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটি নামে বিমানবন্দরের উত্তর দিক থেকে।

''বিমানটির অস্বাভাবিক এই অবতরণের কারণ সম্পর্কে আমরা নিশ্চিত করে এখনও কিছু বলতে পারছি না,'' - বলেন তিনি।

ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের সিইও আসিফ ইমরান বলেন, দুর্ঘটনার আগে বিমানের ক্যাপ্টেন ও কাঠমান্ডু এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল বা এটিসি-র মধ্যেকার কথোপকথন তারা পেয়েছেন এবং সেটি ইউটিউবেও পাওয়া যাচ্ছে।

এক সময় তার মোবাইল থেকে তিনি সেই কথোপকথনের কিছুটা শোনান।

"নেপাল কাঠমান্ডু টাওয়ারের গাফলতি ছিলো পাইলটদের ভুল বার্তা দেয়ার। সে কারণেই দুর্ঘটনাটি হয়েছে,'' - তিনি বলেন।

ইমরান বলেন, পাইলটদের সাথে এটিসি টাওয়ারের ল্যান্ডিংয়ের আগের কথোপকথনে ছিলো রানওয়ের কোন দিক থেকে পাইলট ল্যান্ড করবেন।

''তিন মিনিটের মধ্যে আমাদের পাইলটকে বিভিন্ন বার্তা দেয়া হয়েছে। এ বার্তা দিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ার কারণেই দুর্ঘটনা হতে পারে বলে আমি মনে করছি,'' - ইমরান বলেন।

যদিও নেপালে বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম বলেছেন, বিমানটিকে দক্ষিণ দিক থেকে নামার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটি নামে বিমানবন্দরের উত্তর দিক থেকে।

এছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নেপালের গণমাধ্যম বলছে, দুর্ঘটনার আগে বিমানটি অদ্ভুত আচরণ করেছে।

এ সব কারণে প্রশ্ন ওঠে যে পাইলটদের তরফ থেকে কোন ত্রুটি ছিলো কি-না। তবে ইউএস বাংলার সিইও এ ধরনের সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিয়েছেন।

তিনি বলেন, "ক্যাপ্টেন আবিদ হাসান জীবিত আছেন। উনি এয়ারফোর্সে ছিলেন আগে। এ ফ্লাইটের তিনি একজন প্রশিক্ষক। কথোপকথন শোনার পর আমাদের মনে হচ্ছে না যে আমাদের পাইলট কোন ভুল করেছে। আপনারা যদি কথোপকথন শোনেন বা যে কোন বোদ্ধাই একথা বলবে।''

নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে পাইলটের কথোপকথন

নেপাল টাইমসে এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ওই চার মিনিটের কথা শুনলে মনে হয়, কোন দিক দিয়ে রানওয়েতে নামতে হবে তা নিয়ে পাইলটের মধ্যে হয়ত বিভ্রান্তি কাজ করছিল।

ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়ে দক্ষিণ অংশের নাম রানওয়ে ০২; আর উত্তর অংশকে বলা হয় রানওয়ে ২০।

“বমবার্ডিয়ার উড়োজাহাজটি যখন এগিয়ে যাচ্ছিল, অন্য উড়োজাহাজের নেপালি পাইলটরা শুনতে পান, এটিসি থেকে ইউএস বাংলার পাইলটকে হুঁশিয়ার করা হচ্ছে যে, তাকে কিছুটা বিভ্রান্ত মনে হচ্ছে এবং তার উচিত রাডার অনুসরণ করা।”

দুর্ঘটনার মিনিট চারেক আগে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে ওই অডিওতে বলতে শোনা যায়, সে যেন রানওয়ে ২০ এর দিকে না যায়। পরে তাকে বলা হয়, সে যেন অবতরণ না করে, কারণ আরেকটি উড়োজাহাজ নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিএস ২১১ ডান দিকে ঘুরতে শুরু করলে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ পাইলটের কাছে জানতে চায়, তিনি কোন দিক দিয়ে নামতে চান- রানওয়ে ০২, না রানওয়ে ২০।

পাইলট তখন বলেন, তিনি রানওয়ে ২০ ধরতে চান। তখন তাকে অনুমতি দেওয়া হয়।
নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এরপর জানতে চায়, পাইলট রানওয়ে ঠিকমত দেখতে পাচ্ছেন কি না। তিনি ‘নেগেটিভ’ বললে তাকে ডান দিকে ঘোরার পরামর্শ দেওয়া হয়। কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে পাইলট বলেন- ‘অ্যাফারমেটিভ’, অর্থাৎ তিনি রানওয়ে দেখতে পাচ্ছেন।

ওই সময়ে পাইলট বলে ওঠেন তিনি রানওয়ে ০২ এ নামতে যাচ্ছেন, যদিও এর আগে তিনি উল্টো দিকে নামার অনুমতি চেয়ে আসছিলেন।

নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এরপর তাকে রানওয়ে ০২ এ নামার অনুমতি দেয়। একই সময়ে দশ কিলোমিটার দূরে থাকা একটি সামরিক বিমানকে এটিসি থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশি উড়োজাহাজটি রানওয়ে ২০ এ নামতে যাচ্ছে।

ওই রেকর্ডে ইউএস-বাংলার পাইলটের শেষ বাক্য ছিল- “আমরা কি নামার অনুমতি পেয়েছি?”

কিছু সময় নীরবতার পর নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে উদ্বিগ্ন চিৎকার শোনা যায়- ‘আমি আবার বলছি, ঘোরাও…।

এরপর আরও কিছুক্ষণ নীরবতা পেরিয়ে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে অগ্নি সংকেত বাজতে শুরু করে। এর মানে হল, উড়োজাহাজটি দুর্ঘটনায় পড়েছে এবং বিমানবন্দরের অগ্নি নির্বাপণী সংকেত চালু হয়েছে।

এরপর একজন নেপালি পাইলট জানতে চান, রানওয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কি না। নিয়ন্ত্রণ কক্ষ জানায়, রানওয়ে বন্ধ।

(দ্য রিপোর্ট/এনটি/মার্চ ১৩, ২০১৮)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে