thereport24.com
ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬,  ১৯ সফর 1441

এবার নদী ভাঙন রোধ প্রকল্পেও বিদেশ সফরের প্রস্তাব

২০১৯ সেপ্টেম্বর ১৪ ১৪:১৮:৪৬
এবার নদী ভাঙন রোধ প্রকল্পেও বিদেশ সফরের প্রস্তাব

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: পুকুর কাটা ও চর উন্নয়ন প্রকল্পের পর এবার একটি নদী ভাঙন প্রতিরোধ প্রকল্পে বিদেশে সফরের প্রস্তাব করা হয়েছে। এক্ষেত্রে বৈদেশিক প্রশিক্ষণের নামে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে সাড়ে ৩ কোটি টাকা। এতে প্রাথমিক পর্যায়ে বাধা দেয় পরিকল্পনা কমিশন। কিন্তু এতেও কাজ হয়নি। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে দেড় কোটি টাকা কমিয়ে ২ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার সুপারিশ করা হচ্ছে।

সেই সঙ্গে প্রকল্পটির বিভিন্ন ব্যয়ের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। এক্ষেত্রে বেশ কিছু ব্যয় কমিয়ে আনতে বলা হয়েছে। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘হবিগঞ্জ জেলার বিবিয়ানা-৩, বিবিয়ানা-দক্ষিণ ও সামিট বিবিয়ানা-২ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সামনে অবস্থিত কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরে ভাঙন রোধ’ প্রকল্পে এসব চিত্র পাওয়া গেছে। আগামী রোববার প্রকল্পটি নিয়ে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। এতে সভাপতিত্ব করবেন কমিশনের কৃষি, পানিসম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সদস্য মো. জাকির হোসেন।

অন্যদিকে যেসব প্রকল্পে বিদেশ সফরের প্রয়োজন নেই, সেসব প্রকল্পে বিদেশ সফরের বরাদ্দ না রাখতে কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে পরিকল্পনা বিভাগের মাসিক সমন্বয় সভায়। বৃহস্পতিবার এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রকল্পের বিদেশ সফর বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, বেশ কিছুদিন ধরে উন্নয়ন প্রকল্পে বিদেশ সফরের বিষয়টি আলোচনা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই পরিকল্পনা কমিশনের সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়টি সতর্কতার সঙ্গে দেখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. নূরুল আমিন জানান, তার সভাপতিত্বে পরিকল্পনা বিভাগের মাসিক সমন্বয় সভা হয়েছে।

সভায় পরিকল্পনা কমিশনের বিভিন্ন সেক্টরের প্রধানরা অংশ নেন। সেখানে বলা হয়েছে, এখন থেকে যেসব উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) আসবে সেগুলো ভালো করে পর্যালোচনা করতে হবে। অস্বাভাবিক কিছু থাকলে তাৎক্ষণিক তা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে সংশোধনের জন্য ফেরত পাঠাতে হবে। যেসব প্রকল্পে বিদেশ সফরের প্রয়োজন নেই, সেসব প্রকল্পে বিদেশে প্রশিক্ষণের প্রস্তাব বাদ দিতে হবে।

সূত্র জানায়, ‘কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরে ভাঙন রোধ’ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫১৮ কোটি টাকা। প্রক্রিয়াকরণ শেষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০২০ সালের জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। পিইসি সভার কার্যপত্রে বলা হয়েছে, ২ জুলাই প্রকল্পটি নিয়ে অ্যাপ্রাইজাল সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রকল্পের আওতায় বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বাবদ ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকার সংস্থান রাখার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু পরিকল্পনা কমিশনের পক্ষ থেকে বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বা স্টাডি ট্যুরের সংস্থান বাদ দেয়া যেতে পারে। কিন্তু পরবর্তীকালে আলাপ-আলোচনার পর দেড় কোটি টাকা কমিয়ে ২ কোটি টাকা বরাদ্দের বিষয়ে আলোচনা হয়। অবশেষে অ্যাপ্রাইজাল সভায় বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বা স্টাডি ট্যুর বাবদ ২ কোটি টাকার সংস্থান রাখা যেতে পারে বলে পিইসি সভায় সুপারিশ করা হচ্ছে। কিন্তু এখানে শর্ত দিয়ে বলা হয়েছে, কোনো কোনো মন্ত্রণালয়, বিভাগ বা প্রতিষ্ঠানের কতজন, কি বিষয়ে, কত ব্যাচ ও কোন দেশ ইত্যাদির বিস্তারিত বিবরণ পরিকল্পনা কমিশনের সঙ্গে আলোচনা করে ডিপিপিতে উল্লেখ করা যেতে পারে।

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান (পরিকল্পনা অনুবিভাগ) মন্টু কুমার বিশ্বাস বলেন, অনেক প্রকল্পে বিদেশি অভিজ্ঞতার প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু সব প্রকল্পেই বিদেশি প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই। পিইসি সভায় আলোচনার পর বিয়য়টি চূড়ান্ত করা হবে। বুধবারও একটি প্রকল্পের পিইসি সভায় বিদেশ সফরের বিষয়টি বাদ দেয়া হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ‘কুশিয়ারা নদীর উভয় তীরে ভাঙন রোধ’ প্রকল্পের আওতায় অভ্যন্তরীণ ভ্রমণ ব্যয় বাবদ ১০ লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে। সেটি কমিয়ে ৫ লাখ টাকা করার সুপারিশ করা হয়েছে। এছাড়া ৫০ কিলোমিটার বৃক্ষরোপণের জন্য দেড় কোটি টাকা প্রস্তাব থেকে কমিয়ে ২০ লাখ টাকা, গ্যাস ও জ্বালানি বাবদ ৫ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে ৩ লাখ টাকা, পেট্রল-অয়েল-লুব্রিকেন্ট বাবদ ৫ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে ৩ লাখ টাকা, বিভিন্ন কমিটির সম্মানী বাবদ ১০ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে ৮ লাখ টাকা, মুদ্রণ ও বাঁধাইবাবদ তিন লাখ টাকা থেকে কমিয়ে দুই লাখ টাকা এবং অন্যান্য ভবন ও স্থাপনা মেরামত বাবদ ৩০ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে ১০ লাখ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া মোটরযান মেরামত বাবদ ৫ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে দুই লাখ টাকা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের মতামতে আরও বলা হয়েছে, প্রকল্পের আওতায় ৭ দশমিক ৪ কিলোমিটার নদীতীর সংরক্ষণ বাবদ মোট ২৫২ কোটি ৪৩ লাখ টাকার ( প্রতি মিটার ৩ দশমিক ৪১ লাখ টাকা) সংস্থান রাখা হয়েছে। নদীর তীর প্রতিরক্ষা বাবদ ব্যয় প্রাক্কলনের ভিত্তি পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পিইসি সভায় ব্যাখ্যা করতে পারে। তাছাড়া নদীর তীর প্রতিরক্ষা কাজের চেইনেজ, নকশা, স্থান এবং এ কাজে ব্যবহৃত ম্যাটারিয়ালের বিস্তারিত বিবরণ ডিপিপিতে উল্লেখসহ এ খাতের ব্যয় যৌক্তিক পর্যায়ে নির্ধারণের তাগিদ দেয়া হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ২ দশমিক ৬ কিলোমিটার ওয়ার্কওয়ে নির্মাণ বাবদ ১ কোটি ২৮ লাখ টাকার (প্রতি মিটার ৫ হাজার টাকা) সংস্থান রাখা হয়েছে। তবে ওয়ার্কওয়ে নির্মাণের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কমিশন।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/সেপ্টেম্বর ১৪,২০১৯)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর