thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬,  ১৩ রবিউল আউয়াল 1441

বুয়েটে আন্দোলন নিয়ে শেখ হাসিনার প্রশ্ন

২০১৯ অক্টোবর ১২ ১৪:১০:২৯
বুয়েটে আন্দোলন নিয়ে শেখ হাসিনার প্রশ্ন

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবির সবগুলোই মেনে নেওয়ার পরেও আন্দোলন কেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে মহিলা শ্রমিক লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের সব দাবি তো মেনেই নিয়েছেন ভিসি। তারপরও নাকি তারা আন্দোলন করবে। কেনো করবে জানি না। এরপর আন্দোলন করার কি যৌক্তিকতা থাকতে পারে?

শেখ হাসিনা বলেন, যারা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ ধরনের হত্যাকাণ্ড ঘটায় তাদেরকে যখন পুরস্কৃত করা হয় বা যারা এ ধরনের হত্যাকাণ্ড ঘটায় তাদেরকে যখন রক্ষা করা হয় তখন সেই সমাজ থেকে এইগুলি দূর করা অত্যন্ত কঠিন কাজ হয়ে যায়।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, খুনিকে খুনি হিসেবেই আমরা দেখি। অন্যায়কারীকে অন্যায়কারী হিসেবেই আমরা দেখি। অত্যাচারীকে অত্যাচারী হিসেবেই আমরা দেখেছি। খবরটা পাওয়ার সাথে সাথে আমি কারো আন্দোলনেরও অপেক্ষা করিনি, কারো নির্দেশেরও অপেক্ষা করিনি। সঙ্গে সঙ্গে আমি পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছি। এদেরকে গ্রেপ্তার করা এবং ভিডিও ফুটেজ থেকে সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করা, এই তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে পুলিশ পড়লো বিপদে। আমার কাছে পুলিশের আইজিপি ছুটে আসলো কী করবো? আমি বললাম তারা কী চায়? বললেন, তারা কপি চায়। আমি বললাম কপি করে তাদের দিয়ে দাও। তোমরা তাড়াতাড়ি ফুটেজটা নাও। ফুটেজটা নিলেই তো আমরা আসামি চিহ্নিত করতে পারবো, ধরতে পারবো। কে গেছে না গেছে দেখতে পারবো, ধরতে পারবো। তিন চার ঘণ্টা সময় যদি নষ্ট না করতো তাহলে আরো আগেই সাথে সাথে ধরা পড়তে পারতো। মনে হলো আসামিদের পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হলো কী না, এটার জবাব ওই আন্দোলন যারা করেছে তারা বলতে পারবে, আমি বলতে পারবো না। আমি কিন্তু এক মিনিটও দেরি করি নাই। খবর পাওয়ার সাথে সাথে আমি ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছি। এই ধরণের অন্যায় করলে কখনো এটা মেনে নেওয়া যায় না।

বুয়েট ছাত্রী সাবিকুন নাহার সনি হত্যার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তখন কে প্রতিবাদ করলো? তখন তো আমাদের বুয়েটের যে অ্যালাইমনাই অ্যাসোসিয়েশন তাদেরকে তো নামতে দেখি নাই। প্রতিবাদ করতে দেখিনি তাদের, তখন তারা কথা বলেনি। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে সবার কথা বলার অধিকার আছে। বলতে পারে, অন্তত এই সুযোগটা আছে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ ১০ বছরেরও বেশি সময় পর আজ মহিলা শ্রমিক লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মহিলা শ্রমিক লীগের সভাপতি রওশন জাহান সাথির সভাপতিত্বে সংগঠনটির এই জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/অক্টোবর ১২,২০১৯)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর