thereport24.com
ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬,  ১৪ রবিউল আউয়াল 1441

শুভ জন্মদিন ‘বাকের ভাই’!

২০১৯ অক্টোবর ৩১ ১৬:১২:০১
শুভ জন্মদিন ‘বাকের ভাই’!

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক: সফলতার সবটুকু সুখ তিনি ছুয়েছেন। নন্দিত অভিনেতা, ঈর্ষনীয় কণ্ঠের আবৃত্তিকার, সফল বিজ্ঞাপন নির্মাতা, ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদ এবং সর্বশেষ একজন আদর্শ পিতা ও আদর্শ স্বামী তিনি। তবে নিজেকে একজন আত্মপ্রত্যয়ী মানবতাবাদী মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতেই তিনি গর্ববোধ করেন। সাদাসিধে কিন্তু বিশাল মাপের এই মানুষটি আসাদুজ্জামান নূর। কালজয়ী হয়ে আছেন ‘বাকের ভাই’ চরিত্রে। আজ তাঁর জন্মদিন। ৭৩ বছর বয়সে পা রাখলেন।

১৯৪৬ সালের ৩১ অক্টোবর নীলফামারী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বাবা আবু নাজিম মো. আলী এবং মাতা আমীনা বেগম। নীলফামারীতেই শৈশব-কৈশোর আর তারুণ্যের প্রথম ভাগ কেটেছে।

বাবা-মা দু’জনই ছিলেন স্কুলশিক্ষক। দুই ভাই আর এক বোনের মধ্যে আসাদুজ্জামান নূর সবার বড়। ব্যাক্তি জীবনে ১৯৮২ সালে ডাক্তার শাহীন আকতারকে বিয়ে করেন। এক ছেলে এক মেয়ে তাঁর। ছেলে সুদীপ্ত লন্ডনের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে বর্তমানে দেশে একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে কর্মরত। মেয়ে সুপ্রভার বিয়ে হয়েছে বছর দুয়েক আগে।

ছাত্র জীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। জীবনের অনেকটা সময় কাটিয়েছেন শ্রেণি-সংগ্রাম, ক্ষুধা ও দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য। ১৯৬২ সালে স্বৈরাচার আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে সকল আন্দোলনে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন তিনি। ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেছেন। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। ৬ নং সেক্টরে যুদ্ধ করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন। এভাবেই গেল জীবনের অনেকটা সময়। ২০০১, ২০০৮ এবং ২০১‎৩ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নিলফামারী জেলা হতে সাংসদ নির্বাচিত হন। বর্তমান সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রী হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল দেশ টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং এশিয়াটিক থ্রি সিক্সটি, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, নাগরিকসহ অনেক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন।

তবে সর্বসাধারণের মনে তিনি প্রিয় অভিনেতা হিসেবেই আছেন। মঞ্চ থেকেই তাঁর মতো অভিনেতার উত্থান। নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের হয়ে তিনি বহুকাল ধরে কাজ করে আসছেন। টেলিভিশনের অভিনয় তাকে নিয়ে গেছে সকল স্তর মানুষের কাছে। কখনো ‘এই সব দিনরাত্রি’র শফিক, কখনও ‘অয়োময়’র ছোট মীর্জা, কখনও বা ‘সবুজ ছায়ার’ ডাক্তার চরিত্রে অভিনয় মানুষের কাছে আজও জনপ্রিয়। তবে ‘কোথাও কেউ নেই’ চরিত্রের জন্য কিংবদন্তী হয়ে আছেন। ‘নক্ষত্রের রাত’ নাটকে তার হাসান চরিত্রটিও একজন উঁচু পর্যায়ের দার্শনিকের কথাই মনে করিয়ে দেয়। বলা বাহুল্য এসব নাটক ছিল প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের রচিত।

আসাদুজ্জামান নূর অভিনীত প্রথম টিভি নাটক ‘রঙ্গের ফানুস’। প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘শঙ্খনীল কারাগার’- এ অভিনয় করেন তিনি। এরপর ‘আগুনের পরশমণি’ ‘চন্দ্রকথা’ ও ‘দারুচিনি দ্বীপ’ সিনেমায় অভিনয় করেন। অভিনয় তার কতটা প্রিয় সেটি টের পাওয়া যায় যখন একজন মন্ত্রী হয়েও এখনো অভিনয় করতে দেখা যায়। সর্বশেষ অভিনয় করেছেন হুমায়ূন পুত্র নুহাশের টিভি নাটক ‘হোটেল অ্যালবাট্রসে’।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/অক্টোবর ৩১,২০১৯)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জলসা ঘর এর সর্বশেষ খবর

জলসা ঘর - এর সব খবর