thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯,  ১১ মহররম 1444

১৯৭০ সালে পাকিস্তানের পক্ষ নেওয়া এমএনএ-এমপিএ’দের তালিকা তৈরির সুপারিশ

২০২২ জুন ২৮ ১১:০৫:০৯
১৯৭০ সালে পাকিস্তানের পক্ষ নেওয়া এমএনএ-এমপিএ’দের তালিকা তৈরির সুপারিশ

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীর পাশাপাশি ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচিত এমএনএ (জাতীয় পরিষদের সদস্য) ও এমপিএ’দের (আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য) মধ্যে যারা পাকিস্তানের পক্ষ নিয়েছিলেন তাদের তালিকা তৈরির বিধান যুক্ত করতে সরকারের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে।

সোমবার (২৭ জুন) সংসদে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির উপস্থাপিত জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল বিলের রিপোর্টে এই ধারা যুক্ত করার সুপারিশ করা হয়েছে।

কমিটির সভাপতি শাজাহান খান এ রিপোর্ট সংসদে উপস্থাপন করেন।

এর আগে গত ৬ জুন ‘জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল বিল-২০২২’ সংসদে উত্থাপন করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

সংসদে উত্থাপন করা বিলে বলা হয়েছে, ‘১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ২৬ মার্চ হইতে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত যাহারা মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীর সদস্য হিসেবে কর্মকাণ্ডে লিপ্ত ছিলেন বা আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্য হিসেবে কর্মকাণ্ডে লিপ্ত ছিলেন বা আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্য হিসেবে সশস্ত্র যুদ্ধে নিয়োজিত থাকিয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করিয়াছেন বা খুন, ধর্ষণ, লুট, অগ্নিসংযোগের অপরাধমূলক ঘৃণ্য কার্যকলাপ দ্বারা নিরীহ মানুষকে হত্যার মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধ সংগঠিত করিয়াছেন অথবা একক বা যৌথ বা দলীয় সিদ্ধান্তক্রমে প্রত্যক্ষভাবে, সক্রিয়ভাবে বা পরোক্ষভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করিয়াছেন; তাহাদের তালিকা প্রণয়ন ও গেজেট প্রকাশের জন্য সরকারের নিকট সুপারিশ প্রেরণ করবে।’

সংসদীয় কমিটি ‘মুজাহিদ বাহিনী’ ও ‘পিস কমিটির’ সদস্যদের তালিকা তৈরির বিধান রাখার পাশাপাশি ১৯৭০ সালের নির্বাচনে যারা এমএনএ ও এমপিএ নির্বাচিত হয়ে পাকিস্তানের পক্ষ নিয়েছিলেন, আর বাংলাদেশের পক্ষ নেয়ার কারণে শূন্য ঘোষিত আসনে উপনির্বাচনে পাকিস্তান সরকারের নির্বাচিত এমএনএ ও এমপিএ হয়েছেন তাদের তালিকা তৈরির বিধানের সুপারিশ করেছে।

সংসদে উত্থাপিত বিলে বলা হয়েছে, মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট আইনে উল্লেখিত বীর মুক্তিযোদ্ধার সংজ্ঞা এই আইনে গৃহীত হবে। সংসদীয় কমিটি ওই সংজ্ঞা বিলের ধারায় যুক্ত করেছে।

বিলে কাউন্সিলের আটজন সদস্য প্রধান উপদেষ্টা মনোনয়ন দেওয়ার বিধানের প্রস্তাব করা হয়। এ আট জনকে বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক কর্মকাণ্ডের সাথে সংশ্লিষ্ট কোনো ব্যক্তি বা বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য হতে হবে বলে বিলে উল্লেখ করা হয়।

বিলে উপদেষ্টা পরিষদে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী থাকবেন বলে প্রস্তাব করা হয়। এছাড়া প্রধান উপদেষ্টা কর্তৃক মনোনীত পাঁচজন সদস্য মনোনয়নের ক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধের ফোর্স কমান্ডার, সাব সেক্টর কমান্ডার অথবা কমান্ডারসমূহের বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা, এই বিষয়ক কর্মকাণ্ডে সংশ্লিষ্ট কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তি বা বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের রাখার বিধানের প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া মন্ত্রণালয়ের সচিবও এই পরিষদে থাকবেন বলে প্রস্তাব করা হয়।

বিলে কাউন্সিল মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা সংশ্লিষ্ট সব সংগঠনের নিবন্ধন প্রদান, সাময়িকভাবে স্থগিত ও বাতিল করতে পারবে বলে বিধানের প্রস্তাব করা হয়।

সূত্র: বাসস

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/ ২৮ জুন, ২০২২)

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর