thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ৭ অক্টোবর ২০২২, ২১ আশ্বিন ১৪২৯,  ১১ রবিউল আউয়াল 1444

কিরগিজস্তান এবং তাজিকিস্তানের সীমান্তে তীব্র সংঘর্ষ 

২০২২ সেপ্টেম্বর ১৭ ১৪:০৩:৪৪
কিরগিজস্তান এবং তাজিকিস্তানের সীমান্তে তীব্র সংঘর্ষ 

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: প্রাক্তন সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং মধ্য এশিয়ার দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্র কিরগিজস্তান এবং তাজিকিস্তানের সীমান্তে তীব্র সংঘর্ষ শুরু হয়েছে। সংঘর্ষে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

দেশ দুইটির মধ্যে যুদ্ধ বিরতি চুক্তি থাকা সত্ত্বেও এক বিতর্কিত এলাকায় পুনরায় যুদ্ধ শুরু করার অভিযোগ শোনা গিয়েছে।

এক বিবৃতিতে কিরগিজ সীমান্ত সার্ভিস বলেছে, তাদের বাহিনী তাজিক হামলা প্রতিহত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তাজিক দিক থেকে কিরগিজ পক্ষের অবস্থানে গোলাবর্ষণ করা হচ্ছে এবং কিছু এলাকায় তীব্র যুদ্ধ চলছে।

রুশ বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স জানায়, কিরগিজ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ২৪ জন নিহত এবং ৮৭ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে। নিহতদের মধ্যে কতজন সামরিক বাহিনীর সদস্য তা বলা হয়নি।

রাশিয়ার আরআইএ বার্তা সংস্থা জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক কিরগিজ রাষ্ট্রীয় কমিটির প্রধান কামচিবেক তাশিয়েভকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘সামরিক ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে। পরিস্থিতি কঠিন এবং আগামীকাল কী ঘটবে কেউ কোনও গ্যারান্টি দিতে পারে না।’

কিরগিজ জরুরি পরিস্থিতি মন্ত্রণালয় বলেছে, ১ লাখ ৩৬ হাজারের বেশি বেসামরিক নাগরিককে সংঘাতপূর্ণ এলাকা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

আগের দিন কিরগিজ প্রেসিডেন্ট সাদির জাপারভ এবং তার তাজিক সমকক্ষ ইমোমালি রাখমন উজবেকিস্তানে একটি আঞ্চলিক শীর্ষ সম্মেলনে যুদ্ধবিরতি এবং সেনা প্রত্যাহার করার আদেশ দিতে সম্মত হন বলে জাপারভের কার্যালয় জানিয়েছে।

কিরগিজস্তান তাজিকিস্তানের উত্তর সুগদ অঞ্চলের সীমান্তবর্তী তাদের দক্ষিণ বাটকেন প্রদেশে লড়াইয়ের খবর দিয়েছে। একই এলাকা দেশটির জিগস-পাজল রাজনৈতিক এবং জাতিগত ভূগোলের জন্য বিখ্যাত। গত বছরও একই কারণে এখানে সংঘাত শুরু হয় এবং প্রায় যুদ্ধ লাগার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। এই সীমান্তে প্রায়ই সংঘর্ষ হয়, তবে সাধারণত তা দ্রুত হ্রাস পায়।

মধ্য এশিয়ার সীমান্ত সমস্যাগুলো মূলত সোভিয়েত যুগ থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। মস্কো যখন এই অঞ্চলটিকে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে ভাগ করার চেষ্টা করেছিল তখন এক জাতিগোষ্ঠীর অঞ্চলে ভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর বসতি থেকে যায়।

উভয় দেশেই রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটি রয়েছে। শুক্রবার মস্কো শত্রুতা বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছিল।

সংঘর্ষটি এমন এক সময়ে শুরু হয়েছে যখন রাশিয়ান সৈন্যরা ইউক্রেনে যুদ্ধ করছে এবং সাবেক সোভিয়েত রাষ্ট্র আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে একটি নতুন যুদ্ধবিরতি চলছে।

কিরগিজস্তানের দাবি, তাজিক বাহিনী ট্যাংক, সাঁজোয়া কর্মী বাহক এবং মর্টার ব্যবহার করে অন্তত একটি কিরগিজ গ্রামে প্রবেশ করেছে এবং কিরগিজ শহর বাতকেন ও সংলগ্ন এলাকায় বিমানবন্দরে গোলাবর্ষণ করেছে।

অন্যদিকে, তাজিকিস্তান কিরগিজ বাহিনীকে ‘ভারী অস্ত্র’সহ একটি ফাঁড়ি এবং সাতটি গ্রামে গোলাবর্ষণের অভিযোগ করেছে।

আন্তর্জাতিক শান্তির জন্য কার্নেগি এনডাউমেন্টের ফেলো তেমুর উমারভ বলেছেন, বিরোধের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত প্রত্যন্ত গ্রামগুলি অর্থনৈতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ নয়, তবে উভয় পক্ষই এটিকে অতিরঞ্জিত রাজনৈতিক গুরুত্ব দিয়েছে।

উমারভ আরও বলেছেন, উভয় সরকারই তার ওপর নির্ভর করতে এসেছে যাকে তিনি ‘জনপ্রিয়, জাতীয়তাবাদী বক্তব্য’ বলে অভিহিত করেছেন। এটি মূলত সংঘাতের অবসানের লক্ষ্যে ভূখণ্ডের বিনিময়কে অসম্ভব করে তুলেছে।

আরেক মধ্য এশিয়ার বিশ্লেষক আলেকজান্ডার কানিয়াজেভ বলেছেন, উভয় পক্ষ শান্তিপূর্ণভাবে সংঘাতের সমাধানে কোনো ইচ্ছা দেখায়নি এবং পারস্পরিক আঞ্চলিক দাবি সব স্তরে আক্রমণাত্মক মনোভাবকে উস্কে দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, শুধু তৃতীয় পক্ষের শান্তিরক্ষীরাই একটি নিরস্ত্রীকরণ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করে সংঘাত প্রতিরোধ করতে পারে।

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

SMS Alert

বিশ্ব এর সর্বশেষ খবর

বিশ্ব - এর সব খবর