thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯,  ১২ জমাদিউল আউয়াল 1444

পরিবেশ দূষণ

বাতাসে বিষাক্ত গ্যাস ছড়ানোর খবর গোপণ রাখছে বড় তেল কোম্পানিগুলো        

২০২২ সেপ্টেম্বর ৩০ ১৩:০৭:২৬
বাতাসে বিষাক্ত গ্যাস ছড়ানোর খবর গোপণ রাখছে বড় তেল কোম্পানিগুলো
 
 
 
 

দ্য রিপোর্ট ডেস্ক:ইরাকে রুমাইলার বাসিন্দা উনিশ বছরের আলি হুসেইন জুলোদ যার বাসার সামনে জ্বালানি তেলের আগুন জ্বলছে। শিশু বয়স থেকে লিউকোমিয়ায় ভুগছেন তিনি

বিবিসি নিউজের একটি অনুসন্ধানী রিপোর্ট বলছে, বড় বড় তেল কোম্পানিগুলো তাদের তেল ক্ষেত্রগুলো যে বিপুল পরিমাণ গ্রিনহাউস গ্যাস নিগর্মন করছে সে বিষয়টা প্রকাশ করছে না।

বিবিসি জানতে পেরেছে, বিপি, এনি, এক্সনমোবিল, শেভরন এবং শেল যেসব তেল ক্ষেত্রে কাজ করছে সেখান থেকে লাখ লাখ টন গ্যাস নির্গত হচ্ছে, যে তথ্য এই কোম্পানিগুলো জানাচ্ছে না।

তেল উৎপাদনের সময় উত্তোলন করা তেল থেকে যে বাড়তি প্রাকৃতিক গ্যাস নির্গত হয়, যা উৎপাদনের কাজে লাগে না, তা পুড়িয়ে ফেলা হয়।

এই কোম্পানিগুলো বলছে, জ্বালানি তেল শিল্পের নিয়ম-বিধি মেনেই তারা তাদের তথ্য প্রকাশ করে থাকে।

অব্যবহৃত যে গ্যাস পুড়িয়ে ফেলা হয়, তার থেকে বাতাসে নির্গত হয় কার্বন ডাই-অক্সাইড, মিথেন এবং কালো ধোঁয়ার মারাত্মক এক মিশ্রণ, যা বায়ুদূষণ ঘটায় এবং বৈশ্বিক উষ্ণায়ন তরান্বিত করে।

ইরাকে যেসব তেল ক্ষেত্রে পোড়ানো গ্যাস চুল্লি থেকে বেরচ্ছে, তার কাছাকাছি যেসব মানুষ বসবাস করে, সেখানকার বাতাসে বিবিসি উচ্চ মাত্রার এমন সব রাসায়নিক পেয়েছে, যার থেকে ক্যান্সারের সম্ভাবনা রয়েছে।

বিবিসির অনুসন্ধানে প্রকাশ পেয়েছে যে, এই তেল ক্ষেত্রগুলো থেকে বিশ্বের অন্যতম সবচেয়ে উচ্চ মাত্রার অঘোষিত গ্যাস বায়ুমণ্ডলে পুড়ে মিশে যায়।

এ খবরের প্রতিক্রিয়ায় জাতিসংঘের মানবাধিকার ও পরিবেশ বিষয়ক বিশেষ দূত ডিভিড বয়েড এইসব এলাকার মানুষদের সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন, "এগুলো হল আধুনিক যুগের বলিদান অঞ্চল, যেখানে মানুষের স্বাস্থ্য, মানবাধিকার এবং পরিবেশকে বলি দেয়া হচ্ছে মুনাফা আর ব্যক্তিগত স্বার্থের কারণে।"

এই প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক দিন ধরেই স্বীকার করে আসছে যে জরুরি কারণ ছাড়া সব রকম বাড়তি গ্যাস পোড়ানো বন্ধ করা প্রয়োজন।

বিপি, এনি, এক্সনমোবিল, শেভরন আর শেল কোম্পানি ২০১৫ সালে দেয়া বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিশ্রুতি মেনে অঙ্গীকার করেছিল তারা কতটা অবাঞ্ছিত গ্যাস পোড়াচ্ছে তা ঘোষণা করবে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে জরুরি কারণ ছাড়া এভাবে গ্যাস পোড়ানো বন্ধ করে দেবে। শেল বলেছিল তারা ২০২৫ সালের মধ্যেই এটা বন্ধ করবে।

কিন্তু এই প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, যেসব ক্ষেত্রে তারা দৈনন্দিন পরিচালনার জন্য অন্য কোম্পানির সাথে চুক্তি করেছে, সেখানে এই পোড়া গ্যাস নিগর্মনের তথ্য প্রকাশের দায়িত্ব অন্য কোম্পানিগুলোর।

এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠান যত তেল উৎপাদন করে তার ৫০%, অর্থাৎ মূল উৎপাদনই হয় এধরনের তেল ক্ষেত্রগুলোতে।

কয়েক মাস ধরে গবেষণা চালিয়ে বিবিসি দেখেছে, যেসব তেল ক্ষেত্রে এধরনের গ্যাস নির্গমন সংক্রান্ত তথ্য এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠান প্রকাশ করছে না, সেখানে তাদের হয়ে আর কেউ এই তথ্য জানাচ্ছে না।

উপগ্রহ থেকে বাতাসে গ্যাস পোড়ানোর যে তথ্য বিশ্বব্যাংক সংগ্রহ করে, তা বিশ্লেষণ করে বিবিসি প্রত্যেকটা সাইটে গ্যাসের নির্গমন চিহ্ণিত করেছে। আমরা হিসাব করেছি যে ২০২১ সালে এধরনের আগুন থেকে প্রায় দুই কোটি টন কার্বন ডাইঅক্সাইড নির্গত হয়েছে যে তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

এই নির্গমন বছরে ৪৪ লাখ গাড়ি থেকে নির্গত গ্রিনহাউস গ্যাসের সমান।

জবাবে এই পাঁচটি তেল প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেকেই বলেছে, এসব তেল ক্ষেত্রে নির্গমন সম্পর্কে তথ্য দেয়ার ব্যাপারে তারা বিধিমালা মেনেই কাজ করে। যেখানে তেল স্থাপনা পরিচালনার সরাসরি দায়িত্ব তাদের সেখানে তারা এই তথ্য প্রকাশ করে।

শেল আর এনি আরও বলেছে, যেসব তেল স্থাপনা পরিচালনার দায়িত্ব তাদের নয়, সেসব স্থাপনায় গ্যাস নির্গমনের তথ্য সার্বিক পরিসংখ্যানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়, কিন্তু তা আলাদাভাবে উল্লেখ করা হয় না। এমনকি বিশ্বব্যাংককে গ্যাস নির্গমন কমানোর যে প্রতিশ্রুতি তারা দিয়েছিল, সেখানেও এ বিষয়ে আলাদা করে কোন তথ্য দেয়া হয় না।

বিবিসি নিউজ অ্যারাবিকের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে 'ফ্লেয়ারিং' বা অব্যবহৃত গ্যাস পোড়ানোর কারণে ইরাকে তেল ক্ষেত্রের কাছে থাকা বাসিন্দাদের কোন কোন ধরনের ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়েছে।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ তেল ক্ষেত্রগুলোর কয়েকটি রয়েছে দক্ষিণ পূর্ব ইরাকের বাসরা, রুমাইলা, পশ্চিম কুরনা, জুবায়ের এবং নাহরান ওমার-এ। সেখানকার বাসিন্দাদের দীর্ঘ দিনের সন্দেহ শৈশবকালীন লিউকেমিয়া বা রক্তের ক্যান্সার সেখানে বাড়ছে এবং এর জন্য দায়ী গ্যাস পোড়ানো।

বাসরা এলাকায় ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে সব ধরনের ক্যান্সারে আক্রান্ত নতুন রোগীর সংখ্যা ২০% বেড়েছে। বিবিসি নিউজ অ্যারাবিক এই তথ্য পেয়েছে ইরাকের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ফাঁস হওয়া এক রিপোর্ট থেকে। এই রিপোর্টে এর জন্য দায়ী করা হয়েছে বায়ু দূষণকে।

রুমাইলা আর জুবায়েরের তেল ক্ষেত্র দুটির জন্য মূল চুক্তি হয়েছে যথাক্রমে বিপি আর এনির সঙ্গে। কিন্তু যেহেতু বিপি আর এনি এগুলো সরাসরি পরিচালনা করে না, ফলে গ্যাস নির্গমণের কোন তথ্য তারা প্রকাশ করে না। যারা তেল ক্ষেত্রগুলো চালায় তারাও সেটা করে না।

বিবিসি নিউজ অ্যারাবিক ২০২১ সালে চারটি তেল ক্ষেত্রের কাছে পরিবেশ ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কাজ করেছে। দু'সপ্তাহ ধরে তারা পরীক্ষা করেছে পোড়া গ্যাস থেকে ক্যান্সার হয় এমন পদার্থ নির্গত হচ্ছে কিনা।

অন্তত চারটি জায়গায় বাতাসের নমুনা পরীক্ষায় যে পরিমাণ বেনজিন পাওয়া গেছে তা ইরাকে এই রাসায়নিক নির্গমনের জন্য বেঁধে দেয়া জাতীয় সর্বোচ্চ সীমার সমান বা তার চেয়েও বেশি। বেনজিনের সাথে রক্তের ক্যান্সার লিউকেমিয়া এবং অন্যান্য রক্তের অসুখের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

আমরা ৫২জন শিশুর মূত্রের নমুনা পরীক্ষা করেছি। এর মধ্যে ৭০% নমুনায় উচ্চ মাত্রার ২-ন্যাপথল পেয়েছি। ন্যাপথালিন নামে যে রাসায়নিক পদার্থ থেকে ক্যান্সার হয় ২-ন্যাপথল তারই একটি ধরন।

আমেরিকার কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির শৈশবকালীন ক্যান্সার বিষয়ক অধ্যাপক ড. ম্যানুয়েলা অর্জুয়েলা-গ্রিম বলছেন: "শিশুদের শরীরে এটা খুব বেশি মাত্রায় আছে...তাদের স্বাস্থ্যের জন্য এটা খুবই উদ্বেগের এবং তাদের ঘনিষ্ঠ পর্যবেক্ষণে রাখা উচিত।"

ফাতিমা ফালাহ নাজেমের বয়স যখন ১১, তখন তার রক্তে ও হাড়ে একধরনের ক্যান্সার ধরা পড়ে যার নাম অ্যাকিউট লিম্ফোব্লাস্টিক লিউকেমিয়া। বেনজিন নামক রাসায়নিকের সংস্পর্শে এলে এই ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে।

ফাতিমা, তার বাবা মা এবং ছয় ভাইবোনের সাথে থাকতেন জুবায়ের তেল ক্ষেত্রের কাছে। সেখানে তেল ক্ষেত্রের চুক্তি পেয়েছিল এনি তেল কোম্পানি।

এনি এবং স্থানীয় পরিচালনা প্রতিষ্ঠান কেউই সেখানে পোড়ানো গ্যাস থেকে দূষণ সম্পর্কে কোন তথ্য দেয়নি।

স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণে বাসাবাড়ির ছয় মাইলের মধ্যে চুল্লি থেকে বেরন বর্জ্য গ্যাস পোড়ানো ইরাকি আইনে নিষিদ্ধ।

কিন্তু জুবায়ের তেল ক্ষেত্রে প্রায় বিরামহীন আগুন জ্বলে আর ফাতিমাদের বাসা সেখান থেকে মাত্র ১.৬ মাইল দূরে।

ফাতিমা তার ক্যান্সারের জন্য কেমোথেরাপি চিকিৎসার সময় তার বাসার চারপাশে "দাউ দাউ করে জ্বলা" আগুনের ছবি এঁকেছিল।

সে বলেছিল, রাতের বেলা ওই আগুন দেখতে তার দারুণ লাগে। ওই আগুন তার জীবনের নিত্যসঙ্গী হয়ে গেছে।

কিন্তু ফাতিমার বাবা যখনই তার অসুস্থ কন্যাকে দেখেছেন, তখন তার মনে হয়েছে "তিনি নিজেই একটা আগুনে পুড়ছেন, যে আগুন নেভানোর সাধ্য তার নেই।"

গত নভেম্বরে ফাতিমা মারা যায়। তার বাবা মেয়ের অস্থি-মজ্জা প্রতিস্থাপনের জন্য অধীর অপেক্ষায় ছিলেন। ফাতিমা মারা যায় ১৩ বছর বয়সে।

এনি প্রতিষ্ঠানের কাছে এর জবাবের জন্য গেলে তারা বলেছে, "তাদের নিজস্ব কর্মকাণ্ডের কারণে ইরাকি জনগণের স্বাস্থ্য ঝুঁকির মুখে পড়ছে এমন অভিযোগ তারা জোরালোভাবে প্রত্যাখ্যান করে।"

তারা বলে, জুবায়ের তেল ক্ষেত্রে 'ফ্লেয়ারিং' প্রক্রিয়া বা অব্যবহৃত গ্যাস পোড়ানোর ব্যাপারে তাদের চুক্তিগত কোন দায়বদ্ধতা নেই।

বিশ্বের যে কোন তেল ক্ষেত্রের তুলনায় সবচেয়ে বেশি পরিমাণ গ্যাস জ্বালানো হয় ২৫ মাইল দূরের রুমাইলা তেল ক্ষেত্রে। বিবিসির হিসাব অনুযায়ী, এখান থেকে যে জ্বালানি উৎপাদিত হয়, তা দিয়ে এক বছরে ব্রিটেনের প্রায় ৩০ লাখ বাড়িতে বিদ্যুতের যোগান দেয়া সম্ভব।

সেখানে চুক্তি অনুযায়ী মূল মালিকানা বিপির। তাদের অধীনে তেল ক্ষেত্র পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছে রুমাইলা অপারেটিং অর্গানাইজেশন (আরওও)। বিপি তাদের তত্ত্বাবধান করে। কিন্তু বিপি বা ওই পরিচালনা সংস্থা কেউই গ্যাস পোড়ানোর তথ্য জানায় না।

আরওও-র পরিচালনার নিয়মবিধি সই করেছে বিপি। তারা বলছে: "দূষণের নির্ধারিত জাতীয় সর্বোচ্চ মাত্রা ছাড়ানোর কারণে কারোর যদি ক্ষতি হয়ে থাকে, তাহলে সে আইনত ক্ষতিপূরণ পেতে পারে।"

কিন্তু ১৯-বছরের আলি হুসেইন জুলোদ, যিনি শৈশব থেকে লিউকেমিয়ায় ভুগছেন, বলছেন ২০২০ এবং ২০২১এ বিপির কাছে ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েও তারা কোন উত্তর পাননি।

বিপি বলছে: "বিবিসি যেসব বিষয় উত্থাপন করেছে তাতে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন - আমরা অবিলম্বে এসব উদ্বেগ সম্পর্কে খোঁজখবর নেব।"

বাসরা এলাকায় ক্যান্সারের ফাঁস হওয়া রিপোর্ট সম্পর্কে ইরাকের তেল মন্ত্রী ইহসান আবদুল জব্বার ইসমাইল আমাদের বলেন: "তেল ক্ষেত্রগুলোতে চুক্তির ভিত্তিতে কর্মরত সবগুলো প্রতিষ্ঠানকে আমরা আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছি।"

তেল ক্ষেত্রগুলোতে যে পরিমাণ অব্যবহৃত প্রাকৃতিক গ্যাস পুড়িয়ে নষ্ট করে দেয়া হয়, তা যদি একত্রিত করে ব্যবহার করা হতো, সেই গ্যাস রাশিয়া থেকে ইউরোপে আমদানি করা গ্যাসের দশ ভাগের নয় ভাগ চাহিদা পূরণ করতে পারত। এই পরিসংখ্যান দিয়েছে আন্তর্জাতিক জ্বালানি সংস্থা।

অবশ্য এই গ্যাস কোন আধারে ধরা, বিশ্ব ব্যাংক বলছে, প্রাথমিকভাবে ব্যয়বহুল এবং কারিগরিভাবে কঠিন। তাদের হিসাব অনুযায়ী, নিয়মিতভাবে যে 'ফ্লেয়ারিং' বা প্রয়োজনের অতিরিক্ত গ্যাস পুড়িয়ে দেয়া হয় তা বন্ধ করতে ১০,০০০ কোটি ডলার খরচ লাগতে পারে।

কিন্তু এই পোড়ানো গ্যাস ধরে রাখার বিষয়ে কোম্পানিগুলো পরামর্শ দেয় ক্যাটেরিও নামে একটি সংস্থা। তার প্রধান নির্বাহী মার্ক ডেভিস বিবিসিকে বলেছেন, নরওয়ের মত দেশ দেখিয়েছে কড়া নীতিমালা প্রণয়নের মাধ্যমে এটা করা সম্ভব।

এই প্রতিবেদন তৈরিতে আরও সহায়তা করেছেন বেকি ডেল এবং ক্রিস্টিন জিভান্স (ডেটা অ্যান্ড অ্যানালিসিস বিভাগ)

সুত্র-বিবিসি বাংলা


পাঠকের মতামত:

SMS Alert

বিশ্ব এর সর্বশেষ খবর

বিশ্ব - এর সব খবর