thereport24.com
ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

তাজউদ্দীন আহমদের উদ্ধৃতি

২০১৪ জুলাই ২৩ ১৭:৪০:৫৬
তাজউদ্দীন আহমদের উদ্ধৃতি

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : তাজউদ্দীন আহমদ তার স্বল্প জীবনে বিপুল কর্মযজ্ঞের ভাজে ভাজে রেখে গেছেন অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় অনেক কাজ। তিনি সৃষ্টি করেছেন ইতিহাস। ত্যাগ করেছেন, ভোগ করেননি। দেশকে, মানুষকে দিয়েছেন নিজে নেননি। তার আমৃত্যু কাজ ও লেখালেখির অল্প কিছু আমরা জানতে পারছি তারই মেয়ে সিমিন হোসেন রিমির কল্যাণে। তার সম্পাদিত ‘তাজউদ্দীন আহমদের আলোক ভাবনা উদ্ধৃতি সংকলন’ থেকে এ উদ্ধৃতিগুলো নেওয়া হয়েছে…

স্বাধীনতা চাও না, মুজিবকে চাও- ‘উত্তরে আমি বলেছিলাম স্বাধীনতাও চাই, মুজিবকেও চাই। স্বাধীনতা এলেই মুজিবকে পেতে পারি। কারণ আমি জানতাম, আদর্শের মধ্যে শেখ মুজিবকে বাঁচিয়ে রাখতে পারলেই স্বাধীনতা সংগ্রাম জোরদার হবে। আর এর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব হতে পারে। বঙ্গবন্ধুর সাথে ২৭ বছর রাজনীতি করেছি। তাকে আমি গভীরভাবে জানি।’

‘কবুতরের বাচ্চা জবাই করলে কেমন করে এটা দেখতে পারতাম না। তারপর মানুষ মারার জন্য ১৯৭১ সালে নিজে সংগঠন করেছি।’

‘যুব শক্তিকে কাজ দিতে হবে। অন্যথায় তারা আমাদের ঘাড় মটকাবে। এটাতো খুবই স্বাভাবিক।’

‘সকলেই বলে চোর, চোর, চোর। তবে চুরি করে কে, কে তারা?’

‘মুষ্টিমেয় মানুষের হাতে কালোটাকা জমা হচ্ছে। তারা বেশি দামে জিনিসপত্র কিনে সাধারণ মানুষের কষ্টার্জিত ভাল টাকার ক্রয়ক্ষমতাকে অকেজো করে দিচ্ছে।’

‘অর্থনৈতিক মুক্তি ছাড়া রাজনৈতিক স্বাধীনতা অর্থহীন।’

‘বক্তৃতা কমাতে হবে। এখন ভেবে দেখতে হবে বক্তৃতায় যা বলা হয়েছে, তা করা হয়েছে কি না।’

‘জাতীয় দুর্যোগকালে উটপাখির মতো বালিতে মাথা গুঁজে থাকলে চলবে না।’

‘একজন মন্ত্রীর পক্ষে দলীয় কর্মকর্তার পদে বহাল থাকা উচিত নয়। কোনো ব্যক্তি যদি একই সাথে সরকার এবং দলে অন্তর্ভুক্ত হন তা হলে দলে রাজনৈতিক ভারসাম্যের ক্ষতি এবং শাসন কাজে অসুবিধার সৃষ্টি হয়।’

‘সর্বস্তরে আজ ফাঁকিবাজি ও ভুল বোঝাবুঝি চলছে। কে কী করে কত পয়সা আয় করবে, সেই ফিকিরে সবাই ব্যস্ত। এদের কারো মধ্যে সাধারণ মানবিক মমত্ববোধ আজ নেই।’

‘সংবিধানে মৌলিক অধিকার সংযোজন করলেই কেবল চলবে না, জনগণ যাতে এ সব অধিকার ভোগ করা থেকে বঞ্চিত না হয় সে ব্যাপারে সরকারকে সতর্ক থাকতে হবে। এ ব্যাপারে সামাজিক সচেতনতা একান্ত প্রয়োজন। রাজনৈতিক দলগুলোকে জনগণকে অধিকার সচেতন করে তোলার ব্যাপারে অগ্রবর্তী ভূমিকা পালন করতে হবে। জনগণ সচেতন না হলে আদালত তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারবে না।’

‘লোকজনকে উস্কানি দেওয়া খুব সহজ। কিন্ত তাদের সঠিক নেতৃত্ব দেওয়া খুবই কঠিন কাজ।’

‘জনগণ ও রাষ্ট্রের স্বার্থে দুর্নীতিপরায়ন নেতৃত্বের কাছ থেকে দূরে সরে থাকতে হবে।’

‘স্লোগান নয় বরং কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমেই জাতির ভাগ্য নিয়ন্ত্রিত হয়।’

‘বর্তমানে সমগ্র বাংলাদেশে কৃষক ছাড়া আর কেউ তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছেন না। কৃষক সমাজ বহু অসুবিধার মধ্যে দিয়ে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।’

‘প্রতিরক্ষার সবচেয়ে বড় গ্যারান্টি হলো সন্তুষ্টচিত্ত জনগণ। কাজেই জনগণের ভাগ্যের উন্নয়ন করতে হবে।’

‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করা হচ্ছে।’

‘বাঙালি জাতি বড় বেশি তাড়াতাড়ি সব কিছু ভুলে যায়। তাই আমরা স্বাধীনতা পাওয়ার মাত্র দুই বছরের মধ্যেই শোকাবহ ঘটনাকে ভুলতে বসেছি। এ মুহূর্তে আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের সার্বিক ইতিহাস রচনা করতে হবে। যদি সঠিক ইতিহাস রচিত না হয় তবে আগামী দিনে জাতি আমাদেরকে কিছুতেই ক্ষমা করবে না।’

‘ত্যাগ স্বীকার যাতে ব্যর্থ না হয় সে জন্য কাজ করতে হবে। সংবাদপত্রে বিবৃতি প্রদান ও টেলিভিশনে চেহারা প্রদর্শন থেকে বিরত থাকতে হবে।’

‘বিপদজনক ফাটল ধরা দালানে চুনকাম করলে চলে না, সেটা ভেঙে ফেলে নতুন দালান তৈরি করা ভাল।’

(দ্য রিপোর্ট/বিকে/এনডিএস/জুলাই ২৩, ১০১৪)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর