thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫,  ১৪ মহররম ১৪৪০
ডা. শাহাজাদা সেলিম

রমজান শেষে ডায়াবেটিক রোগীর সুস্বাস্থ্য

২০১৪ জুলাই ২৭ ০৪:৫১:৫৭
রমজান শেষে ডায়াবেটিক রোগীর সুস্বাস্থ্য

বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে ৬ কোটির বেশি ডায়াবেটিক রোগী রোজা রাখছেন। ভৌগোলিক অবস্থান ও মৌসুমভেদে এ সময়কাল কয়েক ঘণ্টা থেকে শুরু করে ২০ ঘণ্টা পর্যন্ত হতে পারে। আমাদের দেশে সেহরি ও ইফতারের মধ্যবর্তী সময় সর্বোচ্চ ১৫ ঘণ্টা হতে পারে। এ দীর্ঘ সময় একজন ডায়াবেটিক রোগীর না খেয়ে থাকা উচিত হবে কীনা তা নিয়ে অনেক বিতর্ক রয়েছে। এ বিষয়সহ ডায়াবেটিসের অন্যান্য দিক নিয়ে আমরা কয়েকটি কিস্তিতে আলোচনা করেছি। এদিকে, দেখতে দেখতে রমজান মাস শেষ হয়ে এলো। এবার আলোচনা করব রমজান শেষে ডায়াবেটিক রোগীর সুস্বাস্থ্য নিয়ে।

প্রথমে আরেকবার মনে করা যাক রোজা রাখাকালে ডায়বেটিক রোগীর ঝুঁকিসমূহ-

- রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমে যাওয়া (হাইপোগ্লাইসেমিয়া)
- রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যাওয়া (হাইপারগ্লাইসেমিয়া)
- ডায়াবেটিক কিটোঅ্যাসিডোসিস
- পানিশূন্যতা ও থ্রম্বোসিম

রমজান মাস শুরু হওয়ার আগে থেকে ডায়াবেটিসে যাদের নিয়ন্ত্রণ ছিল তাদের পুরো মাস তেমন কোনো ঝামেলা ছাড়াই পার হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু যারা টাইপ ১ ডায়াবেটিকের রোগী, যাদের ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণ আশানুরূপ নয় অথবা যাদের একই সঙ্গে কিডনি ও লিভার দীর্ঘস্থায়ী কোনো রোগে আক্রান্ত এবং যাদের কোনো ধরনের জীবাণু সংক্রমণ হয়েছে তাদের সবারই ডায়াবেটিকজনিত কোনো না কোনো জটিলতা দেখা দেওয়ার কথা।

রমজান শেষে আবার আগের স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফিরতে গিয়ে কিছু সমস্যা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় পরামর্শ হলো-

১. রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ জেনে নিন। অভুক্ত অবস্থায়, সকালে নাস্তার ২ ঘণ্টা পরে, দুপুরে খাবার আগে ও ২ ঘণ্টা পরে, মোট ৬বার
২. রক্তের HbA1C পরীক্ষা
৩. কিডনি ও লিভারের পরীক্ষা
৪. প্রস্রাব পরীক্ষা

এ সব রিপোর্ট আপনার চিকিৎসকে দেখাবেন। এ ছাড়া খাদ্যগ্রহণের ক্ষেত্রে সংযমী ও বিবেচক হওয়া অতি জরুরি।

- প্রতিদিনের ক্যালরি গ্রহণ সীমার মধ্যে রাখতে হবে।
- প্রচুর পরিমাণে তরল খাদ্য গ্রহণ করবেন।
- ঈদের আনুষ্ঠানিকতায় গা ভাসিয়ে দিয়ে প্রচুর সেমাই-পায়েস খাওয়া উচিত হবে না।
- দৈনন্দিন কর্মকাণ্ডে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে যত দ্রুত সম্ভব।
- কারো কারো পাতলা পায়খানা, বুকজ্বালা ও হজমে সমস্যা হতে পারে। সে ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

সকলকেই তার নিজের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। চিকিৎস এ ক্ষেত্রে সহায়তা প্রদান করবেন। সকলকে ঈদের শুভেচ্ছা।

লেখক : ডা. শাহজাদা সেলিম
ডায়াবেটিস ও হরমোন বিশেষজ্ঞ (এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট)
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
চেম্বার : কমফোর্ট ডক্টরস্ চেম্বার, ১৬৫-১৬৬, গ্রীন রোড, ঢাকা।
মোবাইল : ০১৯১৯০০০০২২, ই-মেইল : selimshahjada@gmail.com

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

স্বাস্থ্য এর সর্বশেষ খবর

স্বাস্থ্য - এর সব খবর



রে