thereport24.com
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫,  ৯ মহররম ১৪৪০
সাগর আনোয়ার

কাঠমান্ডু, নেপাল

‘আনুষ্ঠানিকতা’র সার্ক সম্মেলন শুরু

২০১৪ নভেম্বর ২৬ ১০:৪৫:৩৯
‘আনুষ্ঠানিকতা’র সার্ক সম্মেলন শুরু

কোনো চুক্তি কিংবা সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর নয়, শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিকতা আর ফটোসেশনের দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্কের ১৮তম শীর্ষ সম্মেলন শুরু হল।

‘শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য আরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক’- এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে বুধবার সকাল সাড়ে ৯টায় শুরু হয় অষ্টাদশ দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) শীর্ষ সম্মেলনের মূল পর্ব। নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর সয়েলটির ‘রাষ্ট্রীয় অতিথি গৃহে’ সার্কভুক্ত আটটি দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সবাই উপস্থিত রয়েছেন। শীর্ষ সম্মেলনকে ঘিরে শীতের নগরী কাঠমান্ডুকে নিশ্ছিদ্র ও কঠোর নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে।

২২ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছিল ১৮তম সার্ক সম্মেলনের মূল পর্বের প্রস্তুতি পর্বের নানা আনুষ্ঠানিকতা। প্রথম দিন সার্কের প্রোগ্রামিং ও পরের দুইদিন স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠক শেষে মঙ্গলবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে কাঠমান্ডু ঘোষণা চূড়ান্ত হয়। তবে আলোচিত তিনটি চুক্তির ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছতে পারেননি সচিব ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

চুক্তিসমূহ ছিল সার্ক বিদ্যুৎ সহযোগিতা বিষয়ক চুক্তি, সদস্য দেশগুলোর মধ্যে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের জন্য সার্ক আঞ্চলিক রেল সহযোগিতা চুক্তি এবং সার্ক পণ্য ও যাত্রীবাহী মোটরযান চলাচল বিষয়ক চুক্তি। কোনটির বিষয়েই ঐকমত্যে পৌঁছতে পারেনি সদস্যদেশগুলো। ফলে এবার আনুষ্ঠানিকতা আর ফটোসেশনের মধ্যেই সার্কের ১৮তম শীর্ষ সম্মেলন সীমাবদ্ধ থাকছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সার্ক সম্মেলনের মূল পর্ব শুরু হয়েছে ‘রাষ্ট্রীয় সভাগৃহ’র নগর মিলনায়তনে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেখানেই চলবে শীর্ষ সম্মেলনের দুইদিনের নানা আনুষ্ঠানিকতা।

সকালে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৯টায় শীর্ষ সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ও সার্কের বিদায়ী চেয়ারপারসন আবদুল্লাহ ইয়ামিন আবদুল গাইয়ুম। এ সময় তার সঙ্গে নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালাও বাদ্যের তালে তালে প্রদীপ প্রজ্বলন করেন। সাধারণত যে দেশে সার্ক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় সেদেশ নতুন সার্ক সভাপতির দায়িত্ব পেয়ে থাকেন। এর আগে আটটি দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানগণ মূল সম্মেলন মঞ্চে নিজ নিজ আসন গ্রহণ করেন। পরে অতিথিরা তাদের বক্তব্য রাখেন।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন সার্কের বিদায়ী প্রেসিডেন্ট মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন আবদুল গাইয়ুম। পরে নতুন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিয়ে বক্তব্য রাখেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা।

পরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ তার বক্তব্যে আঞ্চলিক যোগাযোগের উপর জোর দেন। তিনি বলেন,‘কৃষি, তথ্য-প্রযুক্তির উন্নয়ন ও জ্বালানীর সহজলভ্যতার উপর নির্ভর করছে আমাদের উন্নয়ন।’

সার্ককে আরও কার্যকর করার আহ্বান জানান তিনি। পরে একে একে বক্তব্য রাখেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ্র রাজাপাকসেসহ অন্যরা।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়াও দুইদিনের সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিন তোবগে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন আবদুল গাইয়ুম, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ্র রাজা পাকসে, আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ও স্বাগতিক নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা।

সার্ক সদস্য দেশগুলো ছাড়াও ৯টি পর্যবেক্ষক দেশ থেকে প্রায় ৩৫০ জন অতিথি এবার অংশ নিয়েছেন।

সম্মেলন শেষে সন্ধ্যায় সার্ক নেতাদের সম্মানে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নৈশভোজ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানরা অংশগ্রহণ করেন।

সর্বশেষ ১৭তম সার্ক সম্মেলন হয়েছিল মালদ্বীপে ২০১১ সালে। আর ১৮তম সম্মেলনের আগে নেপালে আরও দুইবার ২০০২ সালে অষ্টম এবং ১৯৮৭ সালে তৃতীয় সার্ক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

(দ্য রিপোর্ট/সাআ/এমডি/এনআই/নভেম্বর ২৬, ২০১৪)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

সার্ক সম্মেলন এর সর্বশেষ খবর

সার্ক সম্মেলন - এর সব খবর



রে