thereport24.com
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫,  ৯ মহররম ১৪৪০
সাগর আনোয়ার

কাঠমান্ডু, নেপাল

পাকিস্তান রাজি হওয়ায় সার্ক বিদ্যুৎ সহযোগিতা চুক্তি হলো

২০১৪ নভেম্বর ২৭ ২৩:৫৭:৪০
পাকিস্তান রাজি হওয়ায় সার্ক বিদ্যুৎ সহযোগিতা চুক্তি হলো

অবশেষে পর্দা নামল বহুল আলোচিত দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা সার্কের ১৮তম কাঠমান্ডু সম্মেলনের। সম্মেলনটির একটি মাত্র অর্জন। আর সেটি হলো বিদ্যুৎ ও জ্বালানী সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর। তবে এ সম্মেলনে স্বাক্ষর হয়নি বহুমাত্রিক যোগাযোগসংক্রান্ত রেল ও মোটরযান চলাচল চুক্তি।

১৮তম কাঠমান্ডু সম্মেলনের শীর্ষ নেতাদের মূলপর্ব শুরু হয় বুধবার। আর সমাপ্তি ঘটে বৃহস্পতিবার। তবে যুগ্ম-সচিব, সচিব ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের বৈঠক শুরু হয় ২২ নভেম্বর থেকে।

সম্মেলনের শুরুতে জানা যায়, মন্ত্রিসভা ও সচিবদের বৈঠকে শুধু পাকিস্তান ও ভারতের বিভিন্ন ইস্যুতে আপত্তির কারণে ঝুলে যায় প্রায় সম্পন্ন হতে যাওয়া তিনটি চুক্তি। পরে চুক্তি হচ্ছে না ধরে নিয়েই বুধবার সকালে শুরু হয় ১৮তম সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের মূলপর্ব।

তবে বুধবার কোনো চুক্তি স্বাক্ষর না হওয়ায় রাজনীতি বিশ্লেষক ও সাংবাদিকরা কূটনৈতিক সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে ধরেই নিয়েছিলেন বৃহস্পতিবার কোনো চুক্তি হচ্ছে না।

কিন্তু ৬টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান বৃহস্পতিবার সকালে যখন কাঠমান্ডু থেকে ১৩ কিলোমিটার দূরে অবকাশযাপন করতে যান, তখনই সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে বিদ্যুৎ চুক্তি হচ্ছে। এমনকি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের মধ্যে বৈঠকের খবরও প্রকাশ করে নেপালের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন। এ বৈঠকের পরই জোরেশোরে আলোচনায় আসে বিদ্যুৎ চুক্তিটি। তিনটি চুক্তির মধ্যে এই একটি চুক্তিতেই পাকিস্তানের কোনো স্বার্থ নেই। ফলে পাকিস্তান সম্মতি দেওয়ায় সমাপনী ভাষণে সুশীল কৈরালা ধন্যবাদও জানান নওয়াজ শরীফকে।

বরং এই চুক্তির ফলে ভারত বাংলাদেশের ওপর দিয়ে সে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারবে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সম্মেলনের প্রারম্ভে এমনকি দুপুরেও কোনো দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও প্রেস সচিবরা জানতেন না বিদ্যুৎ সহযোগিতা চুক্তি হবে কি-না। কিন্তু শেষ মুহূর্তে অনেকটা নাটকীয়ভাবেই সম্পন্ন হল চুক্তিটি। কিন্তু কীভাবে ও কী কারণে এই চুক্তিটি শেষ মুহূর্তে সম্পন্ন হল, তা নিয়ে দ্য রিপোর্ট কথা বলেছে ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের তিনজন বিশ্লেষক এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টার সঙ্গে।

ভারতে এপির প্রতিনিধি ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সুনীল গাঙ্গুলী দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘মূলত পাকিস্তানের আপত্তির কারণেই বহুমাত্রিক যোগাযোগের রেল ও সড়কপথে মালামাল পরিবহনের চুক্তিটি হলো না। আর বিদ্যুৎ সহযোগিতা চুক্তি হলেও এটি তাদের খুব একটা কাজে লাগবে না। এ কারণেই শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান রাজি হয়েছে।’

তিনি তার ব্যাখ্যায় বলেন, ‘পাকিস্তান বুঝতে পেরেছে, জ্বালানী চুক্তি হলেও নেপাল থেকে তাদের বিদ্যুৎ নিতে হবে না বা নেপাল কাউকেই বিদ্যুৎ দিতে পারবে না। কেননা, নেপালের নিজেরই বিদ্যুৎ নেই। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৮ ঘণ্টাই লোডশেডিং। ভুটানের অবস্থা আরও খারাপ। আর এ দুই দেশের বিদ্যুতে বেশিরভাগ বিনিয়োগ ভারতের। তাই বিদ্যুৎসংক্রান্ত ইস্যুটি বাংলাদেশ-ভারত সংশ্লিষ্ট। তাই এই চুক্তি হলেও পাকিস্তান, মালদ্বীপ বা আফগানিস্তানের কোনো লাভ বা ক্ষতি নেই। তাই পাকিস্তান রাজি হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আর বাংলাদেশ ও ভারতের ইচ্ছা ছাড়া নেপাল বা ভুটানে হাইড্রো ইলেকট্রিসিটিতে বিনিয়োগ করতে পারবে না। তাই এ চুক্তি হলেও যা, না হলেও তাই।’

পাকিস্তান পিটিভির সাংবাদিক জাভেদ ওমার দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘এই চুক্তিটি মূলত শতভাগ ব্যর্থতা আড়ালের চেষ্টা। সার্ককে ভারত নিজের মতো করে ব্যবহার করতে চায়। তাই অনেককিছুর উদ্যোগ নিলেও শেষ পর্যন্ত বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না।’

তিনি বলেন, ‘বিদ্যুৎ চুক্তি গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু তার চেয়ে গূরুত্বপূর্ণ ছিল বহুমাত্রিক যোগাযোগব্যবস্থা। এ অঞ্চলে চীন গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্র। তাদের অর্থনীতিও শক্তিশালী। চীন সদস্যপদ পেলে তারা আমাদের অবকাঠামো উন্নয়নে সহযোগিতা করতে পারবে। সার্কের সদস্যপদ চাচ্ছে চীন। আমরা যদি চীনকে সদস্যপদ দিতে পারতাম, তাহলে ভাল হতো।’

তিনি বলেন, ‘মন্দের ভাল একটা চুক্তি হয়েছে। এখন দেখা যাক, ভারত থেকে ট্রানজিট নিয়ে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ নিতে পারে কি-না।’

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘বিদ্যুৎ চুক্তি হয়েছে- এটা অন্যান্য চুক্তির ধারাবাহিকতা। এই চুক্তির ফলে নেপাল ও ভুটানে হাইড্রো ইলেকট্রিসিটিতে বাংলাদেশ বিনিয়োগ করতে পারবে এবং সেখানকার বিদ্যুৎ বাংলাদেশ নিতে পারবে। এ চুক্তির ফলে ভারত আর বাধা থাকল না।’

তিনি বলেন, ‘আগামী তিন মাসের মধ্যে রেল ও যোগাযোগমন্ত্রীরা বসে সড়ক ও রেল চুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’

(দ্য রিপোর্ট/সাআ/আসা/এজেড/নভেম্বর ২৭, ২০১৪)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

সার্ক সম্মেলন এর সর্বশেষ খবর

সার্ক সম্মেলন - এর সব খবর



রে