thereport24.com
ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

গোলের সন্ধানে বাংলাদেশ

২০১৫ ফেব্রুয়ারি ০৪ ২০:৩৫:৪৬
গোলের সন্ধানে বাংলাদেশ

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : খেলায় গতি আছে। দৌড়ে যাচ্ছেন প্রতিপক্ষের গোলপোস্টের সামনে অবধি। যত সমস্যা এরপরই। সফলভাবে বলে মাথা ঠুকানো অথবা গ্রহণ করে শট নেওয়ার সময়েই সব ফিকে হয়ে যাচ্ছে। ফুটবলে খেলার ফল নির্ধারিত হয় যে গোলের মাধ্যমে, সেই গোল করার সময়ই তালগোল পাকিয়ে ফেলছেন ফিনিশাররা। এমন দুর্বলতা নিয়েই শুক্রবার সেমিফাইনালে শক্তিশালী প্রতিপক্ষ থাইল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। তার আগে দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার কৌশল নিয়েই বেশী কাজ করতে দেখা গেছে কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফকে। বুধবার ধানমণ্ডিতে শেখ জামালের মাঠে অনুশীলনে অনেকটা সময় ধরে শুধু আক্রমণভাগ নিয়েই ব্যস্ত ছিলেন ক্রুইফ।

অনুশীলনের সময় কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ ও সহকারী কোচ সাইফুল বারী টিটুকে মাঠে দেখা গেছে একসঙ্গে। তবে দু’জনই পুরো দলকে বলতে গেলে কমই সময় দিয়েছেন। একপ্রান্তে রক্ষণভাগ ও মাঝ মাঠের খেলোয়াড়দের সঙ্গে নিজেও অনুশীলন করেছেন অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম। অপরপ্রান্তে ক্রুইফ ও সাইফুল বারীকে দেখা গেছে গোলের কারিগরদের সঙ্গে কাজ করতে।

যেখানে ক্রুইফের সঙ্গে ছিলেন টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের একমাত্র গোলদাতা হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস ও জাহিদ হাসান এমিলি। তবে জাহিদ হোসেন ছিলেন মামুনুলের সঙ্গে। দলের সবাই এক ধরনের পোশাকে খেলতে আসলেও জাহিদকে দেখা গেছে ভিন্ন পোশাকে।

হেমন্তের গোলে সোমবার গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে হেরেছে শ্রীলঙ্কা। তবে ম্যাচ শেষে এমিলির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন লঙ্কান কোচ। প্রতিপক্ষের কোচের স্বীকারোক্তি ছিল এমিলি তার দলের ডিফেন্ডারদের সবসময় ব্যস্ত রেখেছেন। থাইল্যান্ডের বিপক্ষেও হয়ত সেভাবেই ক্রুইফ কাজে লাগাতে চাইছেন এমিলিকে। সঙ্গে হেমন্ত তো আছেনই। এই তরুণ তুর্কিকে ফাইনালের পথে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছেন ক্রুইফ। এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি বাংলাদেশের ডাচ কোচ।

অধিনায়ক মামুনুল জানিয়েছেন, আগের দুই ম্যাচের ধারাবাহিকতায় আক্রমণাত্মক কৌশলেই খেলবেন তারা। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ফিনিশারের অভাবে গোল আদায় করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একই কৌশলে একটি গোল আদায় করে নিয়েছে বাংলাদেশ। এখানেই অনুপ্রেরণা খুঁজছেন মামুনুল। শুক্রবার সফলভাবে গোলের দেখা পেতে চাইছেন তিনি।

মামুনুল বলেছেন, ‘হোম গ্রাউন্ডে খেলায় আমরা গ্যালারি থেকে পূর্ণ সমর্থন পাব। তাই ছোট ছোট পাসে সামনে এগিয়ে প্রতিপক্ষের ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করব। আমরা পাল্টা আক্রমণের দিকেও নজর দেব। সেক্ষেত্রে জাহিদ বা সোহেল রানাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করব।’

গোল নিয়ে এত কাজ করার পরও দুই দুর্বলতা স্পষ্ট ছিল। অনুশীলনে দু’দলে বিভক্ত হয়ে খেলার সময় কোনো গোল হয়নি। যথারীতি বারে লেগেছে। আবার দুর্বল শট কখনো যেমন রুখে দিয়েছেন গোলরক্ষক, তেমনি লক্ষ্যহীন শটগুলো গেছে গোলপোস্টের বাহির দিয়ে।

(দ্য রিপোর্ট/কেআই/সিজি/সা/ফেব্রয়ারি ০৪, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

ফুটবল এর সর্বশেষ খবর

ফুটবল - এর সব খবর