thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫,  ১০ মহররম ১৪৪০

চিকিৎসা অব্যবস্থাপনায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

২০১৩ ডিসেম্বর ২৬ ২২:০৩:৩০
চিকিৎসা অব্যবস্থাপনায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : পৃথিবীর আলো-বাতাসে বেড়ে উঠবে, সারা ঘরে ছুটোছুটি করে বেড়াবে- এমনই আশা থাকে সব বাবা-মায়ের। কিন্তু মাত্র ৩৬ ঘণ্টা পরই পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হলো সাংবাদিক পুত্র শোয়ায়েব আরেফীনকে। পরিবারের সদস্যদের দাবি, ব্যয়বহুল মনোয়ারা হাসপাতালের চিকিৎসার অব্যবস্থাপনাই নবোজাতকের মৃত্যুর জন্য দায়ী।

বুধবার ভোর ৬টায় মারা যায় দৈনিক সংগ্রামের স্টাফ রিপোর্টার সামছুল আরেফীনের নবজাতক পুত্র সন্তান শোয়ায়েব আরেফীন।

পরিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে মগবাজারের ইনসাফ আল বারাকাহ হাসপাতালে জন্ম নেয় শোয়ায়েব আরেফীন। জন্মের পর দিন বাচ্চাটি খাবার গ্রহণ না করে কান্নাকাটি করলে ব্যয়বহুল মনোয়ারা হাসপাতালে পাঠানো করা হয়।

মঙ্গলবার মনোয়ারা হাসপাতালে বাচ্চাটিকে ভর্তি করে বিভিন্ন পরীক্ষা করা হয়। নিবিড় পর্যবেক্ষণের জন্য এনআইসিইউতে বাচ্চাটিকে রাখা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. তাহমিনা আক্তার পরীক্ষার রিপোর্ট দেখার পর বাচ্চাটি ভাল হয়ে যাবে বলে আশ্বাস দেন।

কিন্তু রাত ২টার পর থেকে নবজাতকের শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা দেখা দেয়। পরিবারের পক্ষ থেকে কৃত্রিমভাবে শ্বাসপ্রশ্বাসের ব্যবস্থা করার জন্য বলা হলেও রাতে আইসিইউতে কোনো ডাক্তার না থাকায় ভোর ৬টার দিকে মারা যায় শিশুটি।

বাচ্চার অবস্থা সর্ম্পকে মনোয়ারা হাসপাতালে দায়িত্বরত ডা. তাহমিনা জানান, ‘বাচ্চার পেটে পানি ছিল এবং পেটের ভেতর ইনফেকশন হয়েছিল। এন্টিবায়েটিক দিয়ে এসব সারানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। তাকে দুটি এন্টিবায়েটিক দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তৃতীয় এন্টিবায়েটিক দেওয়ার আর সময় পাওয়া গেল না।’ এত দ্রুত বাচ্চাটি চলে যাবে তা তিনি ভাবতেও পারেননি বলে জানান ডা. তাহমিনা।

মঙ্গলবার রাত ১০টায় ডা. তাহমিনা নবজাতকটিকে পর্যবেক্ষণ করে বাসায় চলে যান। তারপর দায়িত্বে ছিলেন ডা. রোবায়েত। তিনি জানান, ‘রাত ২টা পর্যন্ত বাচ্চাটিকে পর্যবেক্ষণ করে ম্যাডামকে (তাহমিনা) জানিয়েছি। আইসিইউতে রাতে ডাক্তার থাকার কোনো ব্যবস্থা নেই। এ জন্য নার্সকে বলেছি, কোনো সমস্যা হলে জানাতে। ভোর ৬টার সময় নার্স আমাকে ইনফরম করলে দ্রুত এসে মনিটরিং করি এবং ম্যাডামকে অবহিত করি। মনিটরিং করার সময় বাচ্চাটি শ্বাসকষ্টে ভূগতে দেখেছি। কিন্তু ভ্যান্টিলেটর না থাকা তাকে কৃত্রিমভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস দেওয়া সম্ভব হয়নি। ২০ মিনিট মনিটরিং করার পর ৬টা ৩০ মিনিটে তাকে ডেড ঘোষণা করা হয়।’ বাচ্চাটিকে অপরিপক্ক (ইম্যাচিউরড) বলেও তিনি আখ্যায়িত করেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ভ্যন্টিলেটর না থাকার বিষয়ে আগেই ক্লায়েন্টকে বলা হয়েছে। আর যে সকল বাচ্চাদের ভ্যান্টিলেটরের প্রয়োজন হয়, তাদের এখানে ভর্তি করা হয় না বলে জানান তিনি।’

এ বিষয়ে নবজাতকের পিতা শামসুল আরেফীন জানান, ‘ভ্যন্টিলেটর নেই, বিষয়টি তাদের আগে জানানো হয়নি। অধিকতর চিকিৎসার জন্যই মনোয়ারাতে ভর্তি করা হয়েছিল।’

বুধবার রাজধানীর আজিমপুর গোরস্থানে নবজাতকের ‘শোয়ায়েব আরেফীন’ নামকরণ করে দাফন করা হয়। পরিবারের সদস্যরা তাকে হারিয়ে শোকাচ্ছন্ন।

(দ্য রিপোর্ট/কেএ/জেএম/ডিসেম্বর ২৬, ২০১৩)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর



রে