thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫,  ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

পুলিশ-সিটি করপোরেশন টানাটানি

এক বছরেও হয়নি ফরমালিন টেস্টিং বুথ

২০১৫ এপ্রিল ০৭ ২১:৪৮:১৪
এক বছরেও হয়নি ফরমালিন টেস্টিং বুথ

প্রশান্ত মিত্র, দ্য রিপোর্ট : একদিকে আইনি জটিলতা, অন্যদিকে সিটি করপোরেশনের সাথে পুলিশের বনিবনা না হওয়ায় প্রতিশ্রুতির এক বছরেও রাজধানীর বাজারগুলোতে বসানো যায়নি ফরমালিন টেস্টিং বুথ।

পুলিশ বলছে, ফরমালিন টেস্টিং বুথ স্থাপনের জায়গা দেয়নি সিটি করপোরেশন।

জবাবে সিটি করপোরেশন বলছে, বাজারে জায়গা নেই। তা ছাড়া বাজার দেখার দায়িত্ব তাদেরই (সিটি করপোরেশনের)। বুথ স্থাপন করলে তারাই করবে।

তা ছাড়া ফরমালিন মাপা যন্ত্রের মেশিন নিয়ে আদালতে রিট আছে বলেও জানিয়েছেন সিটি করপোরেশন কর্মকর্তারা।

এমন অবস্থার মধ্যেই মঙ্গলবার সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও পালিত হল বিশ্ব খাদ্য দিবস। এবার এ দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় হল— ‘নিরাপদ পুষ্টিকর খাবার, সুস্থ জীবনের অঙ্গীকার’।

রাজধানীর বাজারকে ফরমালিনমুক্ত রাখতে ২৩৬টি বাজারে ফরমালিন টেস্টিং বুথ স্থাপনের ঘোষণা দিয়েছিলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাবেক কমিশনার বেনজীর আহমেদ, ‍যিনি এখন র‌্যাবের মহাপরিচালক।

গত বছরের ১৬ জুলাই জাতীয় প্রেস ক্লাবের এক আলোচনা সভায় বেনজীর আহমেদ এ ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, ‘এ কাজে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা পুলিশকে সহায়তা করবেন এবং নামমাত্র মূল্যে এ সেবা প্রদান করবেন।’

ফরমালিন টেস্টিং বুথ স্থাপনের জন্য হাইকোর্টের দেওয়া একটি রায়ের এক দিন পর এমন ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি।

সাবেক পুলিশ কমিশনারের এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বুথ স্থাপন কেন হয়নি, জানতে চাইলে উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর দফতর) আনোয়ার হোসেন দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘উদ্যোগটা নেওয়ার পরে সিটি করপোরেশনের কাছে জায়গা চাওয়া হয়। কিন্তু তারা জায়গা দেয়নি। তাই ফরমালিন টেস্ট করার বুথও বসানো যায়নি।

‘এ ছাড়া উদ্যোগ নেওয়ার পর রাজনৈতিক সংকটের কারণে পুলিশের সামনে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম ও সংকট দেখা দেয়। এ কারণে উদ্যোগটি স্থগিত আছে। তবে এ সংকট দূর হলে আগামীতে আবারও এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হবে,’ যোগ করেন তিনি।

আনোয়ার হোসেন জানান, বুথ স্থাপন করতে না পারলেও ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ফরমালিনবিরোধী কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী বিএম এনামুল হক দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের তো বাজারে জায়গা নেই, কোথা থেকে ডিএমপিকে জায়গা দিবে।’

‘তা ছাড়া মার্কেট দেখার দায়িত্ব, এখানে ডিএমপির কি? আমাদের উদ্যোগেই ফরমালিন টেস্ট করার বুথ স্থাপনের চেষ্টা চলছে,’ মন্তব্য করেন তিনি।

ফরমালিন টেস্ট করার মেশিন নিয়ে হাইকোর্টে একটি রিট আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে বাজারে ফরমালিন নিয়ন্ত্রণে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সচেতনতামূলক কাজ করা হচ্ছে। এতে বেশ সুফল পাওয়া যাচ্ছে। তা ছাড়া বাজার মালিক সমিতির সাথে বৈঠক হয়েছে। তারা বলেছে যে, ফরমালিন ব্যবহার করবে না।’

গত বছর ফরমালিনের বিরুদ্ধে ডিএমপির অভিযানে শত শত টন ফল নষ্ট করে দেওয়ার পর এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা ও সমালোচনা শুরু হয়। ফরমালিন মাপার যন্ত্র নিয়ে বিভিন্ন মহল প্রশ্ন তোলে এবং ফল ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন ধর্মঘট শুরু হয়। এরপর একই বছরের জুলাই মাসের ২১ তারিখে ক্ষতিকর রাসায়নিক ফরমালিন শনাক্তের যন্ত্র পরীক্ষার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

ফরমালিন পরীক্ষার জন্য সঠিক যন্ত্র সংগ্রহ করতে গত ২৪ নভেম্বর সরকারকে নির্দেশ দেন আদালত।

এ বিষয়ে বুয়েটের কেমিক্যাল বিভাগের এ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ড. মুহিদুস সামাদ খান দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘এখন ফরমালিন প্রতিরোধে সরকার ফুড সিকিউরিটি আইনের আওতায় কাজ করছে। এ আইনে বলা আছে, যার লাইসেন্স আছে সে ছাড়া ফরমালিন আমদানি করতে পারবে না। এ ছাড়া ফরমালিন প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধিতে অনেক সংগঠনই কাজ করছে। ফলে মনে হয় বাজারে ফরমালিনের প্রকোপ অনেকটা কমেছে।’

তাহলে আমরা কি বলতে পারব ফরমালিন টেস্টিং বুথ স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা নেই, এখন মানুষ ফরমালিনমুক্ত খাবার পাচ্ছে? এর জবাবে তিনি বলেন, ‘ফরমালিন নিয়ে মানুষের মধ্যে একটা অহেতুক ভীতিও আছে। বিষয়টা সম্পর্কেও মানুষকে আরও সচেতন করে তুলতে হবে। তবে বাজারে টেস্টিং বুথ স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা নেই, আমি সেটা বলছি না। তবে সেটা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অনুসরণ করেই হতে হবে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে যেন পরীক্ষা করা না হয়। গত বছর যে মেশিন দিয়ে ফরমালিন পরীক্ষা করে ফল ধ্বংস করা হয়েছিল সেটা দিয়ে সিগারেটের ধোঁয়ার কারণেও ফরমালিনের মাত্রা দেখা যেতে পারে। ফরমালিন রোধে শুধু বাজারে নয়, মাঠপর্যায়ে উৎপাদনে যারা জড়িত তাদের নিয়েও কাজ করতে হবে।’

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক (হর্টিকালচার উইং) ড. আজহার আলী বলেন, ‘যে সব ফল প্রাকৃতিকভাবেই পাকে, সেই ফলে প্রকৃতিগতভাবেই খানিকটা ফরমালিন তৈরি হতে পারে। সেই ফরমালিনও ডিএমপির মেশিনগুলোতে ধরা পড়ে। এ জন্যই এমন অভিযান উপযুক্ত নয়।’

মাঠপর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর কাজ করে যাচ্ছে। উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাজারে এ পরীক্ষা করা যেতে পারে বলে জানান তিনি।

কনজ্যুমারস এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘মানুষের মধ্যে সচেতনতায় ফরমালিনের প্রকোপ কমেছে। ফরমালিন রোধে ফরমালিন কন্ট্রোল এ্যাক্ট’ কার্যকর করা হয়েছে। এই আইনি কাঠামো গড়ে উঠেছে। এখন এর প্রয়োগ এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমন্বয় দরকার।’

ক্যাবের প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর আহমেদ একরামউল্লাহ বলেন, ‘বিভিন্ন উন্নত দেশে যেমন ভ্রাম্যমাণ ফরমালিন টেস্ট ল্যাব রয়েছে, আমাদের দেশেও তেমনটা চালু করা যেতে পারে।’

(দ্য রিপোর্ট/পিএম/এএসটি/জেএম/সা/এপ্রিল ০৭, ২০১৫)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জাতীয় এর সর্বশেষ খবর

জাতীয় - এর সব খবর