রবিউল ইসলাম, দ্য রিপোর্ট : পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলেছিলেন তাইজুল ইসলাম। এরপর বর্তমান সময়টা তার কাটছে নাটোরে নিজ বাড়িতে, পরিবারের সঙ্গে। সোমবার থেকে ভারত সিরিজকে সামনে রেখে ক্যাম্প শুরু হবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের; ক্যাম্পে অংশ নিতে রবিবার ঢাকায় ফিরবেন এই বাঁহাতি স্পিনার। পাকিস্তানের বিপক্ষে ছোট-খাটো ভুলগুলো শুধরে ভারতের বিপক্ষে ভাল প্রস্তুতি নিতে চান তাইজুল। এ জন্য ক্যাম্প শুরু হওয়ার পর বাড়তি অনুশীলন করবেন বলে দ্য রিপোর্টকে জানিয়েছেন তিনি। শুক্রবার মুঠোফোনে নাটোর থেকে দ্য রিপোর্টের সঙ্গে কথা বলেছেন তাইজুল; জানিয়েছেন পাকিস্তান সিরিজের অভিজ্ঞতাসহ আসন্ন ভারত সিরিজ নিয়ে তার পরিকল্পনার কথা।

সামনে ভারত সিরিজ। বাংলাদেশের জন্য এই সিরিজটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কি ভাবছেন? এ প্রশ্নে তাইজুল ইসলাম বলেছেন, ‘ভারতের ব্যাটসম্যানরা অসাধারণ ব্যাটিং করে। তাদের বিপক্ষে বল করাটা অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে। তবে মানসিকভাবে আমি প্রস্তুতি নিচ্ছি। পাকিস্তান সিরিজে যে সব ভুল করেছি সেগুলো নিয়ে ক্যাম্পে কাজ শুরু করব। কোচও আমাকে খুব হেল্প করেন এ সব বিষয়ে। ওদের (ভারত) ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতা নিয়ে কাজ করব।’

বিশেষ কোনো লক্ষ্য নেই তাইজুলের। তিনি মনে করেন ঠিক জায়গায় বল করতে পারলে এবং ব্যাটসম্যানদের বিভ্রান্ত করতে পারলেই খুব সহজে সাফল্য ধরা দেবে। এ জন্য দলে জায়গা পেলেও আলাদা কোনো লক্ষ্য স্থির করে খেলবেন না তিনি। তবে ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপে হারের বদলা নিতে এটা বড় সুযোগ বলে মনে করছেন নাটোরের এই কৃতী ক্রিকেটার। এই বিষয়ে তিনি বলেছেন, ‘দলে সুযোগ পেলে অবশ্যই চেষ্টা করব আমার সেরাটাই দিতে। বিশ্বকাপে হারের বদলা নিতে এই সিরিজ আমাদের জন্য বড় সুযোগ। দলের সবাই এটা জানে। আমার বিশ্বাস, এটাই আমাদের ভাল খেলতে অনুপ্রাণিত করবে।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে ২ টেস্টে মোট ১০ উইকেট পকেটে পুড়েছেন জাতীয় দলের এই স্পিনার। ৭ টেস্ট খেলে এরই মধ্যে ৫ বা ততোধিক উইকেট নিয়েছেন তিনি। ৭ টেস্টে তার উইকেটে সংখ্যা ৩৫টি। পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজের পারফরম্যান্স সম্পর্কে জানতে চাইলে তাইজুল বলেছেন, ‘আরও ভাল হলে খুশি হতাম। পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা অনেক অভিজ্ঞ। তাদের বিপক্ষে বল করার ফলে আমি নিজের কিছু ত্রুটি ধরতে পেরেছি। সামনে এগুলো নিয়ে কাজ করব।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্ট মিলে ১০৭.৪ ওভার বোলিং করেছেন তাইজুল ইসলাম। পাকিস্তানের বিপক্ষে লম্বা স্পেলের সঙ্গে অনেক ওভার করতে হয়েছে আপনাকে। সেক্ষেত্রে জায়গা মতো বল পিচ করার চেয়ে কলের ভেরিয়েশন কতটা গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন, ‘জায়গায় বল করাটাও খুব গুরুত্বপূর্ণ। অবশ্য এখনকার ক্রিকেটে ভেরিয়েশনও গুরুত্বপূর্ণ একটা ফ্যাক্টর। আমার বিশ্বাস, আমি এগুলো নিয়ে ১৮ তারিখ থেকে শুরু হওয়া ক্যাম্পে কাজ করতে পারব এবং যে সকল ত্রুটি আছে সেগুলো ওভারকাম করতে পারব।’

তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘বড় দলের বিপক্ষে খেলতে গেলে একটু এমন হয়ই। তবে যতটুকু সমস্যা হয়েছে, খেলতে খেলতে তা ঠিক হয়ে যাবে।’

পাকিস্তানের কোনো ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে বল করতে কষ্ট হয়েছিল আপনার? এ প্রশ্নে তিনি বলেছেন, ‘ইউনিস খানের বিপক্ষে বল করতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে আমাকে। এ ছাড়া আজহার আলী আমার বল খুব দারুণভাবে খেলছিল। ওদের বিপক্ষে বল করে আমি নিজের কিছু দুর্বলতা বের করতে পেরেছি। এগুলো নিয়ে কাজ করব।’

(দ্য রিপোর্ট/আরআই/জেডটি/আরকে/মে ১৫, ২০১৫)