দ্য রিপোর্ট ডেস্ক : অভিষেক ম্যাচেই চমকে দিয়েছিলেন, জায়গা করে নিয়েছিলেন রেকর্ড বুকে; সেই রেকর্ড ছিল ওয়ানডে অভিষেকে ৫ উইকেট শিকারের। রবিবার আরও একবার রেকর্ড ‍বুকে নিজের নাম লিখিয়ে নিলেন বাংলাদেশের ‘পেস বিস্ময়’ মুস্তাফিজুর রহমান। ইতিহাসের দ্বিতীয় বোলার হিসেবে আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে নিজের প্রথম দুই ম্যাচেই ৫ (বা এর বেশি) উইকেট শিকারের বিরল রেকর্ড গড়েছেন মুস্তাফিজ।

অভিষেকে ৫ উইকেট নেওয়ার পর ভারতের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও ৬ উইকেট দখল করেছেন ১৯ বছর বয়সী এই তরুণ। এবারও সেই অফ কাটারেই ভারতের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের কুপোকাত করেছেন তিনি।

এর আগে আন্তর্জাতিক ওয়ানডেতে নিজের প্রথম ২ ম্যাচেই ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ডটি ছিল জিম্বাবুয়ের মিডিয়াম পেসার ব্রায়ান ভিটোরির। ২০১১ সালের ৪ অগাস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেকেই ৫ উইকেট নেওয়ার পর একই বছর ১২ অগাস্ট বাংলাদেশের বিপক্ষেই হারারে স্পোর্টস ক্লাব গ্রাউন্ডে নিজের অভিষেক ওয়ানডেতে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন ভিটোরি। এরপর সিরিজে পরের ম্যাচেই ফের ৫ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। ব্রায়ান ভিটোরির সেই রেকর্ডে রবিবার ভাগ বসালেন বাংলাদেশের মুস্তাফিজ।

তবে একটা জায়গায় ভিটোরিকেও ছাড়িয়ে গিয়েছেন মুস্তাফিজ। ২১ বছর বয়সে ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল ভিটোরির। আর মুস্তাফিজ ১৯ বছর বয়সেই ভিটোরির রেকর্ডে ভাগ বসালেন।

ওয়ানডে ইতিহাসে রবিবারের আগ অব্দি ৪০০ বার ৫ উইকেট শিকারের রেকর্ড ছিল। সেই হিসেবে মুস্তাফিজ ৪০১ নম্বর রেকর্ডটির নজির স্থাপন করলেন।

এদিকে, ওয়ানডেতে মোট ৪০০ বার ৫ উইকেটের শিকারের রেকর্ড থাকলেও অভিষেক ম্যাচে এমন ঘটনা মাত্র ১০ বার (মুস্তাফিজের রেকর্ডটি সহ)। এর মধ্যে বাংলাদেশের নামই লেখা হয়েছে ২ বার। ২০১৪ সালে তাসকিন আর ২০১৫ সালের ১৮ জুন মুস্তাফিজের কল্যাণে এই সন্মান যোগ হয়েছে বাংলাদেশের নামের পাশে। বাংলাদেশ ছাড়া একমাত্র শ্রীলঙ্কার নামের পাশে ২ বার এই সন্মান জুটেছে। এই দিক থেকে বাংলাদেশকে ঈর্ষাই করতে পারে পাকিস্তান, ভারত, নিউজিল্যান্ড কিংবা ইংল্যান্ডের মতো ক্রিকেটের বিগ টিমগুলো। কেননা, তাদের কোনো বোলারই যে এখন অব্দি অভিষেক ম্যাচে ৫ উইকেট শিকারের স্বাদ পায়নি!

(দ্য রিপোর্ট/জেডটি/জুন ২১, ২০১৫)