সরকারী প্রতিষ্ঠান না হয়েও তাদের ক্ষমতা আকাশচুম্বি। কারণ তারাই অলিম্পিক, প্যারালিম্পিক, প্যান-আমেরিকা ও প্যারা প্যান আমেরিকা ক্রীড়ার সুপরিচিত প্রতিষ্ঠান। সেই ইউএস অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি (ইউএসএডিএ) মহাকাণ্ডই ঘটিয়ে ফেলেছে। একজন অ্যাথলেটেরই ৫ বার রক্তের নমুনা নিয়েছে। তারা অলিম্পিক পদকপ্রাপ্ত অ্যামেরিকান জুডোকার-বক্সার এবং অভিনেত্রী রোনদা জেইন রোসির রক্তের নমুনা ৫ বার নিয়েছেন। ইউএফসি বাউট চ্যাম্পিয়ন রোসি ১২টি পেশাদার প্রতিযোগিতায় সেরা নির্বাচিত হওয়ায় তার ওপর চোখ পড়েছিল অ্যান্ডি ডোপিং এজেন্সির। বক্সার হিসেবেও সুখ্যাতি রয়েছে রোসির। ক্যালিফোরনিয়ার ২৮ বছর বয়সী এই মহাতারকাকে গত জুলাই মাসের আগে ইউএসএডিএর সংশ্লিষ্টরা ত্যক্ত-বিরক্ত করেছে। তাতে বেশ বিড়ম্বনার মুখেই তাকে পড়তে হয়েছে। অ্যামেরিকার নতুন ড্রাগ রীতির কারণেই এটা হয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান। শুধু রোসিকেই নয়, দৈব্যচয়ন ভিত্তিতে অনেককেই ড্রাগরীতির কবলে পড়তে হয়েছে। পরীক্ষার সিটে ছিলেন প্রায় ৮১ জন। একাধিক বার রক্তের নমুনা নেওয়ার ঘটনা ছিল অনেকের। কিন্তু রোসিকে একটু বেশি্ই পরীক্ষার মুখে পড়তে হয়েছে।

(দ্য রিপোর্ট/এএস/জেডটি/এনআই/অক্টোবর ০১, ২০১৫)