দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : প্রায় ৭৫ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়েছে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)। রবিবার লেনদেনে অংশ নেওয়া ৩২২টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ৫৬টির, কমেছে ২৩৯টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৭টির দর। দুই-তৃতীয়াংশ কোম্পানির শেয়ারের দর পতনে সাম্প্রতিক সময়ে বাজারে বড় ধরনের পতন ঘটেছে। একই সঙ্গে লেনদেনের পরিমাণও আশঙ্কাজনক হারে কমেছে। লেনদেন নেমে এসেছে ৩০০ কোটি টাকার ঘরে। দেশের অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) সূচকের পাশাপাশি লেনদেনের পরিমাণও কমেছে।

রবিবার সপ্তাহের প্রথম দিন দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্সের পতন হয়েছে ৪২.৩৫ পয়েন্ট। দিনশেষে সূচক গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮১৪.৬০ পয়েন্টে। বৃহস্পতিবার সূচক বেড়েছিল ৪.৮৮ পয়েন্ট।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, রবিবার সব খাতের অধিকাংশ কোম্পানিরই শেয়ারের দর কমেছে। তবে খাদ্য খাতে কিছুটা মিশ্রাবস্থায় শেষ হয়েছে লেনদেন। লেনদেনে অংশ নেওয়া ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত ২৭২টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে মাত্র ৩৭টির। বিপরীতে কমেছে ২০৭টির। বাকি ২৮ কোম্পানির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত ১৪টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ২টির, কমেছে ১১টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১টির দর। ‘এন’ ক্যাটাগরির ৫টির মধ্যে ৪টিরই দর কমেছে। ‘জেড’ ক্যাটাগরির ৩১টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৯টির, কমেছে ১৬টির ও অপরিবর্তি রয়েছে ৬টির দর। বৃহস্পতিবার অধিকাংশ মিউচুয়াল ফান্ডের দর বাড়লেও রবিবার এ খাতেও দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। লেনদেন হওয়া ৩৯টি মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ২২টিরই দর কমেছে। বেড়েছে ৭টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ১০টির দর।

এদিকে লেনদেনেও যেন উল্টো পথে হাঁটছে শেয়ারবাজার। রবিবার ডিএসইর লেনদেন নেমে এসেছে ৩০০ কোটি টাকার ঘরে। দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৩৩৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবারের তুলনায় ৮৭ কোটি ৪৩ লাখ টাকা কম লেনদেন হয়েছে। ঈদুল আজহার আগের সপ্তাহেও ডিএসইতে ৫০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছিল। তবে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ছুটির আগের দিন এবং ছুটি শেষে প্রথম লেনদেন দিবসে ৪০০ কোটি টাকার কম লেনদেন হয়েছিল। বিনিয়োগকারীদের উপস্থিতি কম থাকার কারণে ওই সময় লেনদেন কম হয়েছে বলে বিশ্লেষকদের ধারণা ছিল। তবে বিনিয়োগকারীদের উপস্থিতি বাড়লেও রবিবার ওই দুই দিনের চেয়েও কম লেনদেন হয়েছে। লেনদেনের পরিমাণ আশঙ্কাজনকহারে কমে যাওয়ায় বাজারে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

লেনদেনের শীর্ষে উঠে রয়েছে ফার কেমিক্যাল। দিনশেষে কোম্পানিটির ১৬ কোটি ৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা সাইফ পাওয়ারটেকের লেনদেন হয়েছে ১৫ কোটি ৫৮ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। ৮ কোটি ২৭ লাখ ৯২ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট।

লেনদেনে এরপর রয়েছে যথাক্রমে— সামিট এ্যালায়েন্স পোর্ট, স্কয়ার ফার্মা, আমান ফিড, এসিআই, গ্রামীণফোন, কাশেম ড্রাই সেল, বিএসআরএম স্টিল।

দেশের অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সিএসসিএক্স ৬৪.১৪ পয়েন্ট কমে দিনশেষে ৮৯৮৩.৮২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। লেনদেন হয়েছে ২২ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেওয়া কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৪১টির, কমেছে ১৬৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩০টির দর।

(দ্য রিপোর্ট/এমকে/সা/অক্টোবর ০৪, ২০১৫)