দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে অতিরিক্ত বিনিয়োগ সমন্বয়ের বিশেষ সুবিধা হিসেবে পাঁচ ব্যাংকের সাবসিডিয়ারিকে মূলধন বাড়ানোর (ঋণকে ইক্যুইটিতে রূপান্তর) অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যাতে ব্যাংকগুলো প্রায় ২৭২ কোটি টাকার অতিরিক্ত বিনিয়োগ সমন্বয়ের সুযোগ পাচ্ছে। বুধবার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)৫৮০তম কমিশন সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মূলধন বাড়ানোর সুযোগ পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো হলো―ন্যাশনাল ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি এনবিএল সিকিউরিটিজ, এবি ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি এবি ইনভেস্টমেন্ট, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক সিকিউরিটিজ, সাউথইস্ট ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি সাউথইস্ট ব্যাংক কেপিটাল সার্ভিসেস ও মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি এমটিবি সিকিউরিটিজ।

সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে এনবিএল সিকিউরিটিজকে ৩০০ কোটি টাকা মূলধন বাড়ানোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এবি ইনভেস্টমেন্টকে ৩০১ কোটি ১৪ লাখ, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক সিকিউরিটিজকে ৬০ কোটি, সাউথইস্ট ব্যাংক ক্যাপিটাল সার্ভিসেসকে ৩০০ কোটি ও এমটিবি সিকিউরিটিজকে ১২৫ কোটি টাকার মূলধন বাড়ানোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানগুলো প্রত্যেকটি শেয়ার ১০ টাকা মূল্যে ও বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে ইস্যু করবে।

পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে প্রায় ১ হাজার ৮৬ কোটি টাকার মূলধন বাড়ানোর সুযোগ দেওয়া হয়েছে। যাতে পাঁচ ব্যাংক প্রায় ২৭২ কোটি টাকার অতিরিক্ত বিনিয়োগ সমন্বয়ের সুযোগ পাচ্ছে।

উল্লেখ্য, শেয়ারবাজারে অতিরিক্ত বিনিয়োগসীমা (যেসব প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ ইক্যুইটির ২৫ শতাংশের বেশি) সমন্বয়ের জন্য আগামি ২১ জুলাই সর্বশেষ সময়। তবে এই অতিরিক্ত বিনিয়োগ বিক্রয় না করে সমন্বয়ের জন্য পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে মূলধন বাড়ানোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। মূলধন বাড়ানোর ফলে ইক্যুইটির পরিমাণ বাড়বে। এতে করে বিনিয়োগসীমা বাড়বে।

(দ্য রিপোর্ট/আরএ/এম/জুলাই ২০, ২০১৬)