দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : ইঙ্গিতটা সেমিফাইনাল শেষে দিয়ে রেখেছিলেন। থাইল্যান্ডকে হারানোর পর জয়োৎসর্গের প্রসঙ্গটি আসে। তখন বাংলাদেশ অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম জানিয়েছিলেন আপাতত কোনো উৎসর্গ নয়, ফাইনালে জিততে পারলে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের উৎসর্গ করার বিষয়ে আলোচনা করবেন। বৃহস্পতিবার বাফুফে ভবনে প্রাক ম্যাচ সংবাদ সম্মেলনে সেকথাই জানিয়েছেন মামুনুল। বলেছেন ‘শহীদদের জন্য খেলতে চাই আমরা।’ পেশাদার লিগ কমিটির চেয়ারম্যান ও বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী এবং দলের কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ উপস্থিত ছিলেন।

ঘরের মাটিতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ। সেখানে বাংলাদেশ ফাইনালে না খেললে আকর্ষণই কমে যাবে প্রতিযোগিতার। সেমিফাইনালের আগে এমন বক্তব্যই দিয়েছেন মামুনুল। সেই স্বপ্নের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ। এখন শুধুই শিরোপা জেতাকেই একমাত্র লক্ষ্য ধরে হাঁটছে স্বাগতিকরা। ম্যাচ নিয়ে মামুনুল বলেছেন, ‘স্বাগতিক দল হিসেবে ফাইনালে খেলা উচিৎ ছিল। সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। এখন দলের সব খেলোয়াড় প্রস্তুত ফাইনালের জন্য। সবাই শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ আছে। কথা দিয়েছিলাম সেমিফাইনালে খেলব। সেই অঙ্গীকার পূরণ করেছি। এরপর চেয়েছিলাম ফাইনালে খেলব। সেটিও পূরণ হয়েছে। এখন ফাইনালে মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের জন্য খেলব। শিরোপা জিতে তা শহীদদের আত্মার জন্য উৎসর্গ করতে চাই।’

গত শুক্রবারই থাইল্যান্ডকে সেমিফাইনালে হারিয়েছে বাংলাদেশ। রবিবার ফাইনালে স্বাগতিকদের প্রতিপক্ষ মালয়েশিয়া। এত স্বল্প সময়ের মধ্যে মাঠে নামায় খেলোয়াড়দের ওপর এক ধরনের চাপ সৃষ্টি হতে পারে। মামুনুলও স্বীকার করছেন সেকথা। এরপরও আশাবাদী বাংলাদেশ দলপতি। বলেছেন, ‘একদিন সময় যথেষ্ট নয়। একটা ম্যাচের পর ক্লান্তি কাটিয়ে উঠতে অন্তত ৪৮ ঘণ্টা সময় লাগে। নিঃসন্দেহে এটা খেলোয়াড়দের ওপর একটা শারীরিক চাপ। আমার মনে হয় সমস্যা হবে না। মাঠে বিপুল সংখ্যক দর্শকের সমর্থন অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। আমরা সবাই মানসিকভাবে সুস্থ আছি।’

দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক কোনো টুর্নামেন্টে শিরোপা নেই বাংলাদেশের। অধিনায়ক হিসেবে মামুনুলের জন্যও এটি প্রথম সুযোগ। সেই সুযোগ কাজে লাগানোর প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেছেন, ‘আমরা টিমওয়ার্ক করেছি। সবার একটা ইচ্ছা থাকে সেরা ফুটবলার হওয়ার। ট্রফি জয়ের স্বপ্নটা অধিনায়ক, খেলোয়াড় ও সংগঠক সবারই থাকে।’

মালয়েশিয়ার বিপক্ষে গ্রুপপর্বে হেরেছে বাংলাদেশ। ফাইনালে সেই প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলা। তাই প্রতিশোধের একটা ব্যাপার থাকে। মামুনুল অবশ্য ভিন্নমত পোষণ করে বলেছেন, ‘প্রতিশোধ বলতে কোনো শব্দ নেই। এটি ফাইনাল ম্যাচ। জিতলে ১৭ কোটি মানুষ মনে রাখবে।‘

কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ মনে করছেন সেমিফাইনালে প্রথমার্ধটা ভাল খেলেছে বাংলাদেশ। ফাইনালে এর চেয়েও ভাল খেলতে চান। ফাইনালে মালয়েশিয়াকে কঠিন প্রতিপক্ষ মানলেও ক্রুইফ বলেছেন, ‘সেমিফাইনালে প্রথম ৪৫ মিনিট আমরা ভাল খেলেছি। এটিকে আমাদের সামনের দিকে টেনে নিতে হবে। দলে কোনো ইনজুরি সমস্যা নেই। ঘরের মাটিতে খেলব। দর্শকদের জন্য খেলব। মানসিকভাবে দলকে প্রস্তুত করার চেষ্টা করছি। এখন আমাদের লক্ষ্য শিরোপা জয়।’

(দ্য রিপোর্ট/কেআই/সিজি/আরকে/ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০১৫)