thereport24.com
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬,  ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

বিনিয়োগকারীদের প্রাধান্য দেবে নিউ লাইন ক্লোথিংস

২০১৯ মে ২৭ ১৩:২৫:৪৪
বিনিয়োগকারীদের প্রাধান্য দেবে নিউ লাইন ক্লোথিংস

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : সব সময় বিনিয়োগকারীদের স্বার্থকে প্রাধান্য দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নিউ লাইন ক্লোথিংস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এম জাকির হোসেন চৌধুরী।

সোমবার (২৭ মে) লেনদেন শুরু আগে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

এ সময় কোম্পানির পরিচালক আসিফ রহমান, প্রধান অর্থ কর্মকর্তা শরীফ আহমেদ, ইস্যু ম্যানেজার প্রতিষ্ঠান বানকো ফাইন্যান্স এ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোহাম্মদ হামদুল ইসলাম, পোস্ট ইস্যু প্রতিষ্ঠানের সিইও মো. মাহবুব এইচ মজুমদার, ডিএসই’র চীফ রেগুলেটরী অফিসার এ কে এম জিয়াউল হাসান খান, প্রধান অর্থ কর্মকর্তা আব্দুল মতিন পাটওয়ারি, কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ আসাদুর রহমান, প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা মো. জিয়াউল করিম ছাড়াও লিস্টিং বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এম জাকির হোসেন বলেন, দেশের বস্ত্রখাতে কমপ্লায়েন্স ইস্যু একটি বড় সমস্যা। আর এই সময়ে নিউ লাইন ক্লোথিংস সব সময় কমপ্লায়েস মেনে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। ভবিষ্যতেও প্রতিষ্ঠানটি কমপ্লায়েন্স পরিপালন করে ব্যবসা করবে।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজার থেকে শুধুমাত্র ফান্ড সংগ্রহ করে ব্যবহার করার জন্য তালিকাভুক্ত হয়নি নিউ লাইন ক্লোথিংস। কোম্পানিকে আরও স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মধ্যে রাখার জন্যই কোম্পানিটি বাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। একই সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থকে প্রধান্য দিয়ে কাজ করবে নিউ লাইন।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৩ কোটি শেয়ার ছেড়ে ৩০ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ১০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। বাজার থেকে উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয়, কারখানা ভবন সম্প্রসারণ, মেয়াদী ঋণ পরিশোধ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির বেসিক শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৮৫ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির পুনঃমূল্যায়নসহ নিট সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা ৬৩ পয়সা এবং সম্পদ পুনঃমূল্যায়ন ছাড়া এনএভি হয়েছে ২০ টাকা ৫২ পয়সা।

কোম্পানির আইপিওতে মোট ১১ লাখ ৩৯ হাজার ৮৯৫ টি আবেদন জমা পড়েছে। এসব আবেদনের মূল্য দাঁড়িয়েছে ৮৩২ কোটি ২২ লাখ ২৫ হাজার টাকা। যা চাহিদার ২৭ দশমিক ৭৪ গুন বেশি। মোট আবেদনের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আবেদন পড়েছে ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৯৯৬টি। এসব আবেদনের মূল্য ৫৬৯ কোটি ৫২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের আবেদন জমা হয়েছে ৮৯৯ টি আবেদন। এসব আবেদনের মূল্য ২৬২ কোটি ৬৯ লাখ ৯০ হাজার টাকা। চাহিদার বিপরীতে বেশি আবেদন জমা পড়ায় কোম্পানিটি লটারির মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের শেয়ার বরাদ্দ দিয়েছে।আইপিও লটারির মাধ্যমে বরাদ্দ পাওয়া শেয়ার ১৫ এপ্রিল শেয়ারহোল্ডারদের বিও হিসাবে প্রেরণ করা হয়েছে। আর আজ কোম্পানির শেয়ার ৩০ টাকায় লেনদেন শুরু হয়েছে।

এর আগে নিউ লাইনের আইপিওতে আবেদন ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু করে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলার কথা ছিল। পরবর্তীতে কোম্পানির আইপিও আবেদন জমা দেয়ার সময় একদিন বাড়ানো হয়েছিল। এতে ৩ মার্চ মার্চ পর্যন্ত আবেদন জমা নেয়া হয়েছে।

বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড, সন্ধানী লাইফ ফাইন্যান্স লিমিটেড এবং সাউথইস্ট ব্যাংক ক্যাপিটাল সার্ভিসেস লিমিটেড কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

(দ্য রিপোর্ট/এনটি/মে ২৭, ২০১৯)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

শেয়ারবাজার এর সর্বশেষ খবর

শেয়ারবাজার - এর সব খবর