thereport24.com
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭,  ১১ সফর 1442

সরে গেলেন বাদল, ফাঁকা মাঠেই গোল দেবেন সালাউদ্দিন!

২০২০ সেপ্টেম্বর ১৩ ০৯:২৬:৩৪
সরে গেলেন বাদল, ফাঁকা মাঠেই গোল দেবেন সালাউদ্দিন!

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: অনেক আশা দেখিয়েছিলেন বাদল রায়। ফুটবলে পরিবর্তন আনার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে সরাসরি বলেছিলেন, ‘কাজী সালাউদ্দিনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সভাপতি হতে দেয়া যাবে না। কেউ না দাঁড়ালে আমি সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব।’

ঘোষণা মত নির্বাচনের জন্য মনোনয়পত্রও কিনেছিলেন। কিন্তু শেষমেশ নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) আসন্ন নির্বাচনে সভাপতি পদ থেকে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন সাবেক এ ফুটবলার। বাদল রায় মনোনয়নপত্র তুলে নিলেও সভাপতি পদে কাজী সালাউদ্দিনের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আছেন আরেক সাবেক তারকা ফুটবলার শফিকুল ইসলাম মানিক।

কিন্তু বর্তমান সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ভাবা হচ্ছিল বাদল রায়কেই। শফিকুল ইসলাম মানিককে নিয়ে তেমন আলোচনা হচ্ছিল না। তার সভাপতি পদে নির্বাচনে করার সিদ্ধান্তও আসে আচমকা। ফুটবল অঙ্গনে গুঞ্জন, এবারও ফাঁকা মাঠে গোল দেবেন সালাউদ্দিন এবং টানা তৃতীয়বারের মতো বাফুফে সভাপতি পদে বসবেন।

শারীরিক অসুস্থতায় নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাদল রায়। নিশ্চিত করেছেন তার স্ত্রী মাধুরী রায়। শনিবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় থাকলেও এক ঘণ্টা পর বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগের কাছে বাদলে রায়ের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের চিঠি দিয়ে যান তার স্ত্রী মাধুরী রায়। এ সময়ে তিনি গণমাধ্যমে বলেন,‘ও আগে থেকেই অসুস্থ। এখন শারীরিক অবস্থা খারাপ। এ অবস্থায় সে থাকতে চাচ্ছে না। প্রচুর চাপ হয়ে যাবে। ক্যাম্পিং থেকে শুরু করে এই প্রক্রিয়ায় শারীরিক ধকল যাবে। তাই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাদল।’

২০১৬ সভাপতি পদে নির্বাচিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো দেশের ফুটবলের সভাপতি পদে বসেন কিংবদন্তি ফুটবলার কাজী সালাউদ্দিন। গত নির্বাচনের আগেই বলেছিলেন, এটি হতে যাচ্ছে তাঁর জন্য শেষ নির্বাচন। তবে এবারও তিনি নির্বাচন করছেন।

২০০৮ সালের এপ্রিলে প্রথমবার বাফুফে সভাপতি হন কাজী সালাউদ্দিন। বর্তমানে ফিফা র্যাঙ্কিংয়ে ১৮৭ তে রয়েছে বাংলাদেশ। গত বছর মে মাসে ১৯৭ তে নেমে গিয়েছিল লাল-সবুজরা। ১২ বছর আগে সালাউদ্দিন যখন দায়িত্ব নিয়েছিলেন তখন বাংলাদেশের ফিফা র‌্যাংকিং ছিল ১৫০-এর নিচে। এরপর ধারাবাহিকভাবেই অবনমন হয়েছে বাংলাদেশের।

আগামী ৩ অক্টোবর হবে বাফুফের নির্বাচন। ২১ পদের বিপরীতে এখন সভাপতি পদে লড়বেন ২ জন। সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ২, সহ-সভাপতি পদে ৮ আর সদস্য পদে ৩৪ জন প্রার্থীর নির্বাচনে লড়বেন। সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে আবদুস সালাম মুর্শেদীকে ভোটের ময়দানে লড়তে হবে সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মো.আসলামের সঙ্গে।

চার সহ-সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন আটজন। তারা হলেন- মহিউদ্দিন আহমেদ মহি, তাবিথ আউয়াল, শেখ মুহম্মদ মারুফ হাসান, এসএম আবদুল্লাহ আল ফুয়াদ, কাজী নাবিল আহমেদ এমপি, আমিরুল ইসলাম বাবু, আতাউর রহমান ভূঁইয়া ও ইমরুল হাসান।

রোববার প্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ ও ব্যালট নাম্বার প্রদান করবে নির্বাচন কমিশন। দেশের ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থার দায়িত্ব আগামী চার বছরের জন্য কাদের হাতে থাকবে, তা নির্ধারণে ভোট দেবেন ১৩১ জন কাউন্সিলর।

(দ্য রিপোর্ট/আরজেড/১৩সেপ্টেম্বর, ২০২০)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

খেলা এর সর্বশেষ খবর

খেলা - এর সব খবর