thereport24.com
ঢাকা, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১,  ১৫ জিলহজ ১৪৪৫

রোজার আগে বেড়েছে পাম অয়েলের দাম

২০২৩ মার্চ ১৯ ১৪:৪১:১১
রোজার আগে বেড়েছে পাম অয়েলের দাম

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক:রোজার বাকি হাতেগোনা কয়েকদিন। প্রতিবারই রোজা আসলে দেখা যায় এই মাসের বিশেষ চাহিদা রয়েছে এমন কিছু পণ্যের দাম বাড়তে থাকে। সাধারণত রমজান মাসে খেজুর,চিনি,তেল,ছোলা ও পেঁয়াজ এই ৫ টি পণ্যের চাহিদা রয়েছে এই মাসে। বাকি ১১ মাসে যে চাহিদা রয়েছে তার প্রায় কয়েকগুন বেশি চাহিদা রমজান মাসেই। রাজধানীর একাধিক পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে এসব পণ্য নিয়ে খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন,পাইকারি ব্যবসায়ীরা তাদের প্রয়োজন মোতাবেক পণ্য দিচ্ছেন না। অন্যদিকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেনএলসি খুলতে না পারার জন্য এই অবস্থা।

যদিও গত রবিবার বিকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সরকারের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া বলেন, আগের বছরগুলোর তুলনায় এবারের রোজার জন্য ‘অনেক বেশি’ পণ্য মজুদ আছে"। তিনি বলেন,“বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে তথ্য পেয়েছি, বিগত যেকোনো বছরের চেয়ে এ বছর সরকারের যে খাদ্য মজুদ, তার পরিমাণ অনেক বেশি"। তিনি আরো বলেন "এটা আমাদের জন্য অনেক বড় স্বস্তির"। এছাড়া, দ্রব্যমূল্য ও সরবরাহ নিয়ে ভয়ের কিছু নেই উল্লেখ করে আজ (রবিবার) বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ছোলার দাম একটু বাড়তে পারে তবে সমস্যা হবে না। পেঁয়াজসহ অন্যগুলোর দাম ঠিক রাখতে বাজার তদারকি করা হবে। দাম বাড়তে নিলে আমদানি করা হবে। তিনি আরো বলেন, "মুরগি যদিও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ার না তবু দাম সহনীয় রাখতে সংশ্লিষ্টদের সাথে কাজ করা হবে" । চিনির দাম নিয়ে সুখবর দিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা ব্যবসায়ীদের চিনির দাম কেজিতে ৫ টাকা কমানোর অনুরোধ করছি। তারা (ব্যবসায়ীরা) আমাদের সঙ্গে একমত হয়েছেন। আশা করি রোজার প্রথম সপ্তাহেই চিনির দাম কেজিতে ৫ টাকা কমবে। দ্য রিপোর্ট রাজধানীর অন্যতম বড় পাইকারি বাজার মৌলভীবাজার, কারওয়ান বাজারসহ একাধিক বাজার ঘুরে রোজার চাহিদা আছে এমন পণ্যগুলোর দাম জানার চেস্টা করেছে। আজ থাকছে তেলের দাম।

তেলের দাম গত দুই বছরে বেড়েছে অস্বাভাবিকভাবে । সর্বশেষ, ২০২১ সালের ১৯ অক্টোবর সরকার নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৬০ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেলের দাম ১৩৬ টাকা নির্ধারিত ছিলো। কিন্তু, বর্তমানে রাজধানীর বাজারে বোতলজাত এক লিটার তেল বিক্রি হচ্ছে ১৮৭ থেকে ১৯০ টাকায়। অন্যদিকে পাইকারি বাজারে ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এক লিটার সয়াবিন তেল। রমজানে তেলের সামগ্রী খাওয়ার প্রবণতা সবসময় থাকে। পেয়াজু,ছোলা সহ ইফতারে খাওয়া সব আইটেমে তেলের বহুমুখী ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। তবে সয়াবিন তেলের থেকে বেশি বেড়েছে পাম ওয়েলের দাম। টিসিবির হিসাবমতে পাম অয়েল প্রতি লিটার বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকায়। এক বছর আগে যা বিক্রি হয়েছিল ১২০ থেকে ১৩০ টাকায়। এছাড়া টিসিবির তথ্য মতে, খোলা ও বোতলজাত সয়াবিন তেল এখন ১৮০ থেকে ১৮৫ টাকা লিটারে বিক্রি হচ্ছে। অথচ এক বছর আগে এসব তেল বিক্রি হয়েছে ১৬৮ থেকে ১৭০ টাকা। রাজধানীর মগবাজার মোড়ে এক হোটেল ব্যবসায়ী বলেন, রোজার মধ্যে তিন বেলার ব্যবসায় করতে হয় এক বেলায়।ইফতারের যেসব পণ্য বিক্রি করতে হয় সবগুলোই তেলের উপাদান। রোজার মাঝে তেলের দাম বাড়তে থাকলে ব্যবসায় করা সম্ভব নয়।" মেরুল বাড্ডা বাজারে বাজার করতে আসা এক ক্রেতা বলেন, "রোজার কিছু উপাদান কিনতে এসেছি যা দেখছি সব অত্যাধিক দাম"। তিনি আফসোস করে বলেন "আগে ৫ লিটার তেল কিনতাম সবসময়। লাস্ট ৬ মাস ধরে লিটার করে কিনছি"।

মেরুল বাড্ডা বাজারের এক মুদি দোকানদার বলেন, "আমরাও রোজা রাখি। রোজার মাসে দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক থাকুক আমরা চাই। কিন্তু নিজের লসে তো বিক্রি করবো না। রোজা আসলে দেখা যাচ্ছে আমাদের বাড়তি দামে কিনতে হচ্ছে । এখন বেশি দামে কিনে তো আমরা কম দামে বিক্রি করবো না।" মৌলভিবাজারের আকতার সাইদ নামের এক পাইকারি ব্যবসায়ী বলেন, "তেলের দাম এখন কিছুটা স্থির আছে। রমজানে মাসে বাড়বে না আশা করছি"।

কনজ্যুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, "গত বছরের তুলনায় এবার সব ধরণের পণ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। ব্যবসায়ীদের অতিরিক্ত মুনাফা করার প্রবণতা আরও বেড়েছে। তিনি বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ায় মানুষের কষ্ট বেড়েছে"।

(দ্য রিপোর্ট/মাহা/১৯-০৩-২৩)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

অর্থ ও বাণিজ্য এর সর্বশেষ খবর

অর্থ ও বাণিজ্য - এর সব খবর