thereport24.com
ঢাকা, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি 24, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০,  ১৬ শাবান 1445

শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার গণতান্ত্রিক বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন:  গয়েশ্বর 

২০২৪ ফেব্রুয়ারি ০৭ ১৪:১৪:৩৪
শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার গণতান্ত্রিক বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন:  গয়েশ্বর 

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক: শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার গণতান্ত্রিক বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন এবং তাদের পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র এমন মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ফ্যাসিস্ট হাসিনা সরকার নিজ অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে অবৈধ অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক সুবিধা দিয়ে আদায় করেছে ভারত, চীন ও রাশিয়ার সমর্থন। বিএনপির মতো একটি সফল গণতান্ত্রিক দলকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে মানবতাবিরোধী অপরাধে লিপ্ত হয়েছে হাসিনা সরকার ও তার অধীনস্থ রাষ্ট্রযন্ত্রের চিহ্নিত অংশ।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তিনি বলেন, গত ৭ জানুয়ারির নির্বাচন প্রহসনমূলক ও ডামি। ওই নির্বাচনের উদ্দেশ্য জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা বা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ছিল না। বরং নির্বাচনের নামে এটি ছিল জাতির সঙ্গে একটি সহিংস প্রতারণা। যার উদ্দেশ্য অবৈধভাবে, অনৈতিকভাবে ও অসাংবিধানিকভাবে শেখ হাসিনা সরকারের ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখা। এই সমন্বিত অপশক্তিকে উপেক্ষা করে জনগণের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় অবিচল রয়েছে বিএনপি।

তিনি বলেন, গণতন্ত্রের পক্ষে-বিপক্ষের এই লড়াই আজ কেবল আওয়ামী লীগের সঙ্গে বিএনপির লড়াই নয়। এই লড়াই জনবিদ্বেষী সরকারের সকল দোসরের সঙ্গে বাংলাদেশের সকল গণতন্ত্রকামী মানুষের লড়াই। এই দেশটি যেমন আমাদের সবার, তেমনি আওয়ামী লীগের কবল থেকে দেশকে স্বাধীন করবার দায়িত্বও আমাদের সবার। সমাজের সকল বিবেকবান মানুষ যদি স্ব স্ব অবস্থান থেকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন এবং সামর্থ্য অনুযায়ী ভূমিকা রাখেন, তবে ফ্যাসিবাদের পতন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

গয়েশ্বর বলেন, ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, বাংলাদেশে যতবার গণতন্ত্র হরণ করা হয়েছে, ততবার লুণ্ঠিত সেই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করেছে বিএনপি। বাংলাদেশের বিদ্যমান অস্বাভাবিক অচলাবস্থা যদি অব্যাহত থাকে তাহলে তার অনিবার্য পরিণতি ও সম্পূর্ণ দায় আওয়ামী লীগকেই বহন করতে হবে। তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক অধিকারকে রুদ্ধ করার এই অশুভ প্রক্রিয়া বাংলাদেশের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক সংকটকে ঘনীভূত করে তুলবে।

তিনি বলেন, গত ১৫ বছর ধরে গণবিদ্বেষী সরকার যে দুর্নীতি-দুঃশাসন ও দমন-দুর্বৃত্তায়ন চালিয়েছে, সমাজের প্রতিটি শ্রেণি-পেশার মানুষ তাতে বৈষম্য, অবিচার ও নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই আওয়ামী লীগ ও তার সুবিধাভোগী দোসররা আরও একবার জোরপূর্বক ভোটাধিকার হরণ করায় বাংলাদেশের জনগণ ব্যথিত, মর্মাহত ও সংক্ষুব্ধ। এই জনরোষ আবারও প্রমাণ করেছে আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুধু গণবিরোধীই নয়, এটি পরিপূর্ণভাবে ব্যর্থ ও অন্তঃসারশূন্য।

গয়েশ্বর বলেন, দেশব্যাপী নজিরবিহীন হুমকি-ভীতি উপেক্ষা করে, ভাগ-বাটোয়ারার নির্বাচনে, শতকরা ৫ ভাগেরও কম ভোটার উপস্থিতি একটি সুস্পষ্ট বার্তা দেয়।

তিনি বলেন, বিএনপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মূল উদ্দেশ্য গণমানুষের ন্যায্য দাবি দাওয়া আদায়ের আকাঙ্ক্ষা পূরণের লক্ষ্যে শান্তিপূর্ণ গণআন্দোলন গড়ে তোলার জন্য মানুষের কাছে যাওয়া, মানুষকে সম্পৃক্ত করা, জনমত সৃষ্টি করা। গণতন্ত্রহীনতার যে পরিস্থিতি সেটি থেকে উত্তরণের জন্য শেখ হাসিনার অধীনে প্রহসনের ভোট বর্জন করা।

গয়েশ্বর বলেন, দেশজুড়ে জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে বিএনপির সমাবেশসমূহে যেভাবে লক্ষ-লক্ষ মানুষ উপস্থিত হয়েছেন, ঢাকার সকল মহাসমাবেশে যেভাবে ১০ লক্ষেরও বেশি মানুষের সমাগম হয়েছে, বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন ধারাবাহিক জনস্রোত অভূতপূর্ব।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেছেন, পৃথিবীর ইতিহাসে বিএনপির মতো আর কোন রাজনৈতিক দল কি আছে, যার ৫০ লক্ষেরও বেশি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মিথ্যা রাজনৈতিক মামলা দায়ের করা হয়েছে? কোন অপরাধে, আমাদের ২ হাজার ৭০০ এরও বেশি নেতাকর্মীকে শেখ হাসিনা ও তার অনুগত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হত্যা করেছে? প্রায় ৭০০ জন নিরপরাধ মানুষকে গুম করেছে? কিসের ভিত্তিতে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বাকস্বাধীনতা হরণ করে, একের পর এক সাজানো মামলার পাতানো রায় দেওয়া হচ্ছে?

তিনি বলেন, বানরের পিঠা ভাগের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ২৫ হাজারেরও বেশি নেতাকর্মীকে কেন ফ্যাসিস্ট সরকার পরিকল্পিতভাবে গ্রেপ্তার করেছে? এই সময়ে বিএনপির রাজনীতি করার অপরাধে কেন ১১ জন কর্মীকে কারাগারে হত্যা করেছে? ফ্যাসিবাদের সঙ্গে আপস না করার অজুহাতে, বিএনপির ৫০ লক্ষ নেতাকর্মী তাদের নাগরিক জীবন থেকে বঞ্চিত। আমাদের প্রত্যেকে, প্রতিদিন, পুলিশি নিপীড়ন ও বিচার বিভাগের অবিচারের শিকার হচ্ছি। তবে এই আক্রোশ, এই আক্রমণ, এই অত্যাচার-যেন বিএনপির গণসম্পৃক্ততার কাছে পরাজিত, গণঅভ্যুত্থানের ভয়ে শঙ্কিত গণবিরোধী আওয়ামী লীগের ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার মরিয়া প্রয়াস। সময়ের সাথে, বিএনপির আন্দোলনের মাত্রা যত বেড়েছে, নজিরবিহীন গুম-খুন, হামলা-মামলার মাধ্যমে, সরকারের নির্যাতনের মাত্রা তত বেড়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, প্রশাসন ও আদালতের কতিপয় সরকারি কর্মকর্তা, রাজনৈতিক বিবেচনায় পদোন্নতি ও সুযোগ-সুবিধা পেয়ে ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডারে পরিণত হয়েছেন। তারাই আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠনে পরিণত করেছেন বিচার বিভাগ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, জনপ্রশাসন, নির্বাচন কমিশন, দুদকসহ সাংবিধানিক ও বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানসমূহকে।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা বাকশালের মতোই বাংলাদেশে আবারও ৭৫-এর মতো একদলীয় শাসন কায়েম করতে চাচ্ছে। হাসিনার একমাত্র সাফল্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের মাধ্যমে ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখা, লাগামহীন নৈরাজ্য ও মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা দুর্নীতি। প্রতিটি খাতের প্রতিটি খরচেই হাসিনা সরকারের অস্বাভাবিক লুটপাটে বাংলাদেশ আজ দেউলিয়া হওয়ার পথে। বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে সরকারি যোগসাজশে ৮১ মিলিয়ন ডলার ডলার চুরি হয়েছে- এগুলো কার টাকা? এই পুরো টাকা বাংলাদেশের জনগণের। ব্যর্থ সরকার বাড়িয়ে চলছে বৈদেশিক ঋণের বোঝা, যা ইতোমধ্যে ছাড়িয়ে গিয়েছে ১০০ বিলিয়ন ডলার।

গয়েশ্বর বলেন, বাজার ব্যবস্থাপনার ব্যর্থতায় ও আওয়ামী সিন্ডিকেটের কারণে, প্রতিটি দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিতে নাভিশ্বাস উঠছে সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের। আয় না বাড়লেও লাগামহীনভাবে বাড়ছে ব্যয়, বেড়ে চলেছে প্রতিটি পণ্যের দাম। সরকারি হিসাবে বাংলাদেশের প্রায় ১ কোটি ২৯ লক্ষ তরুণ, নিষ্ক্রিয় ও বেকার, যদিও প্রকৃতপক্ষে এই সংখ্যা আরও অনেক বেশি।

তিনি বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনায় সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ শেখ হাসিনার অপশাসন থেকে মুক্তি চায় বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষ। ১২ কোটি ভোটারের ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন নিশ্চিত করে, শান্তিপূর্ণ ও ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন মাধ্যমে, বিএনপি আবারও স্থাপন করবে একটি নির্বাচিত ও জবাবদিহিতামূলক সরকার ইনশাআল্লাহ।

আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইমলাম খান, ড. আব্দুল মঈন খান, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, নিতাই রায় চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. সিরাজুল ইসলাম, আবুল খায়ের ভুইয়া, তাহসিনা রুশদির লুনা, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, হারুন অর রশিদ প্রমুখ।

পাঠকের মতামত:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

SMS Alert

রাজনীতি এর সর্বশেষ খবর

রাজনীতি - এর সব খবর