thereport24.com
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪,  ২৮ শাবান ১৪৩৮

গণগ্রন্থাগার ও জাদুঘর কমপ্লেক্সের জন্য নকশা প্রতিযোগিতা

২০১৭ জানুয়ারি ১০ ১৭:০৭:২৪
গণগ্রন্থাগার ও জাদুঘর কমপ্লেক্সের জন্য নকশা প্রতিযোগিতা

দ্য রিপোর্ট প্রতিবেদক : গণগ্রন্থাগার ও জাতীয় জাদুঘর কমপ্লেক্সের নকশার জন্য উন্মুক্ত স্থাপত্য প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। এজন্য সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও ইনস্টিটিটিউট অব আর্কিটেক্টস বাংলাদেশ (আইইবি) এর মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) এমওইউ স্বাক্ষরিত হয়।

সমঝোতা স্মারকে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন ও পরিকল্পনা) মো. আমিনুল ইসলাম ও আইইবি’র সভাপতি স্থপতি কাজী গোলাম নাসির স্বাক্ষর করেন। এ সময় সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও সংস্কৃতি সচিব আকতারী মমতাজ উপস্থিত ছিলেন।

উপযুক্ত নান্দনিক শৈলীর নকশা পাওয়ার পাশাপাশি স্থাপত্যবিদদের অনুপ্রাণিত করতে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। এ প্রতিযোগিতা আয়োজনে সব ব্যয় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় বহন করবে।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে, বর্তমান চাহিদা ও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে গণগ্রন্থাগার ও জাতীয় জাদুঘর পুনর্নির্মাণে একটি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। ‘গণগ্রন্থাগার ও জাতীয় জাদুঘর কমপ্লেক্স প্রকল্প’ অনুযায়ী গণগ্রন্থাগারের জন্য নান্দনিক স্থাপত্যশৈলীর সুবিন্যস্ত বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে। এতে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র স্থানান্তর করা হবে। পাশাপাশি জাতীয় জাদুঘরের জন্যও একটি বহুতল ভবন নির্মাণ করা হবে। এটির অবস্থান হবে জাতীয় জাদুঘরের বর্তমান ভবনের ঠিক পিছনে।

এ সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী আইইবি আগামী ছয় মাসের মধ্যে এ স্থাপত্য উন্মুক্ত প্রতিযোগিতা শেষ করবে।

এ প্রতিযোগিতার জন্য আইইবি সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে স্থপতিদের এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে আহ্বান জানাবে। প্রতিযোগীরা এ কমপ্লেক্সের জন্য নকশা আইইবি’র কাছে জমা দেবে। সে-সব নকশা মূল্যায়নের জন্য দেশের প্রথিতযশা স্থপতিদের নিয়ে একটি জুরি কমিটি গঠন করা হবে। এ জুরি কমিটির সদস্য সংখ্যা হবে সাতজন।

জুরি কমিটি গণগ্রন্থাগার ও জাতীয় জাদুঘর কমপ্লেক্সের জন্য সেরা নকশা নির্বাচন করবে। এ সাত সদস্যের জুরি কমিটির চারজনকে নির্বাচন করবে আইইবি এবং তিনজনকে নির্বাচন করবে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এ কমিটি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের নকশার মধ্য থেকে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার জন্য তিনটি নকশা চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করবে। অন্যান্য নকশার মধ্য থেকে বিশেষ পুরস্কারের জন্য আরও তিনটি নকশা নির্বাচন করবে।

এ প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরস্কার হিসেবে থাকবে ১০ লাখ টাকা ও একটি সার্টিফিকেট, দ্বিতীয় পুরস্কার হিসেবে থাকবে সাত লাখ টাকা ও একটি সার্টিফিকেট এবং তৃতীয় পুরস্কার হিসেবে থাকবে পাঁচ লাখ টাকা ও একটি সার্টিফিকেট। বাকি তিনটি বিশেষ পুরস্কারের প্রত্যেকটির জন্য থাকবে এক লাখ টাকা ও একটি সার্টিফিকেট।

অনুষ্ঠানে সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, ‘যে স্থাপত্যবিদের নকশা এ প্রতিযোগিতায় প্রথম হবে সেই নকশা অনুযায়ী কমপ্লেক্স তৈরি করা হবে। তা সবার কাছে আকর্ষণীয় ও দৃষ্টিনন্দন হবে বলে আমরা মনে করি। এ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমরা যেমন এ প্রকল্পের জন্য একটি উপযুক্ত স্থাপত্যশৈলীর নকশা পাবো পাশাপাশি যারা স্থাপত্য নিয়ে কাজ করছেন তারা এ কাজে আরও উৎসাহ ও প্রেরণা পাবেন।’

(দ্য রিপোর্ট/আরএমএম/এপি/জানুয়ারি ১০, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

শিক্ষা এর সর্বশেষ খবর

শিক্ষা - এর সব খবর



রে