thereport24.com
ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭, ৫ কার্তিক ১৪২৪,  ২৯ মহররম ১৪৩৯

শুরু হচ্ছে ‘১০ম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’

২০১৭ জানুয়ারি ১০ ১৮:১৭:০৩
শুরু হচ্ছে ‘১০ম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’

পাভেল রহমান, দ্য রিপোর্ট : চিলড্রেনস্ ফিল্ম সোসাইটি বাংলাদেশের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘১০ম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসব’।

ফ্রেমে ফ্রেমে আগামী স্বপ্ন- স্লোগান নিয়ে আগামী ২৪ থেকে ৩০ জানুয়ারি এই উৎসব অনুষ্ঠিত হবে একই সঙ্গে ঢাকা, রাজশাহী, রংপুর এবং পরবর্তিতে ৩ ও ৪ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে।

রাজধানী সেগুনবাগিচার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান উৎসব পরিচালক মোহাম্মদ আবীর ফেরদৌস। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র নির্মাতা মোরশেদুল ইসলাম, মুনিরা মোরশেদ মুন্নি প্রমুখ।

এ সময় লিখিত বক্তব্যে উৎসব পরিচালক জানান, ঢাকায় মূল উৎসব কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তন। উদ্বোধনী দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ১১টা, দুপুর ২টা, বিকাল ৪টা ও সন্ধ্যা ৬টায় মোট ৪টি করে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী হবে।

এবারের উৎসবে সারাদেশের মোট ১১টি ভেন্যুতে ৫৪টি দেশের দুই শতাধিক শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। উৎসবের সকল প্রদর্শনী অভিভাবকসহ শিশু-কিশোরদের জন্য উন্মুক্ত।

কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরি চত্বর ও শওকত ওসমান মিলনায়তনে ২৪ জানুয়ারি (শনিবার) বিকাল ৪টায় উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। এবারের উৎসব উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এবং সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। সভাপতিত্ব করবেন উৎসব উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান মুস্তাফা মনোয়ার। শিক্ষার্থীদের উপস্থিত থাকার জন্য উৎসব কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষকে বিশেষভাবে আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

উৎসব পরিচালক মোহাম্মদ আবীর ফেরদৌস লিখিত বক্তব্যে আরও জানান, উৎসবের অন্যতম আকর্ষণীয় বিভাগ হিসেবে থাকছে বাংলাদেশী শিশুদের নির্মিত প্রতিযোগিতা বিভাগ। এই বিভাগে এবার ৬০টি চলচ্চিত্র জমা পড়েছিল, যার মধ্যে নির্বাচিত ২১টি চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হচ্ছে। এই ২১টি চলচ্চিত্রের মধ্যে ৫টি চলচ্চিত্র পুরস্কার পাবে। পুরস্কার হিসেবে থাকছে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট ও আর্থিক প্রণোদনা। পুরস্কারের জন্য গঠিত ৫ সদস্যের জুরি বোর্ডের সবাইও শিশু-কিশোর অর্থাৎ ছোটরাই বাছাই করবে ছোটদের নির্মিত শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রগুলো।

প্রতিযোগিতা বিভাগে যাদের ছবি দেখানো হবে তাদের উৎসব কমিটির পক্ষ থেকে প্রতিনিধি হিসেবে উৎসবে অংশ নেয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এছাড়াও সুবিধাবঞ্চিত এবং শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী শিশুদেরও উৎসব প্রতিনিধি হিসেবে উৎসবে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানানো হবে।

এবারও ইয়াং বাংলাদেশী ট্যালেন্ট শীর্ষক বিভাগটি রয়েছে যেখানে ১৯ থেকে ২৫ বছর বয়সী তরুণ নির্মাতারা অংশ নিবেন। এছাড়াও রয়েছে সোস্যাল ফিল্ম সেকশন, যেখানে আবহাওয়া ও জলবায়ু নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলোকে নিয়ে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। একই সঙ্গে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা বিভাগে উৎসব কমিটির দ্বারা মনোনীত বাংলাদেশসহ অন্যান্য দেশের মোট ২০টি চলচ্চিত্র অংশ নিবে। এই চলচ্চিত্রগুলো বিচার করার জন্য ভারতের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ডিজাইনের শিক্ষক শেখর মুখার্জী, চলচ্চিত্রকার অমিতাভ রেজা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণমাধ্যম এবং সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষিকা সাবরিনা সুলতানাকে সদস্য করে একটি জুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

এছাড়া প্রথমবারের মত বিভিন্ন দেশের শিশুদের বানানো চলচ্চিত্র নিয়ে একটি প্রতিযোগিতা বিভাগ থাকছে, যেখান থেকে একটি চলচ্চিত্রকে পুরস্কার দেওয়া হবে। এবার উৎসবে বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ১৫জন বিদেশী অতিথি উৎসবে প্রতিনিধি হিসেবে অংশগ্রহণ করবে। রয়েছে বিভিন্ন ইন্টারেক্টিভ সেশন যেখানে প্রতিনিধিরা বিভিন্ন বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে আলাপচারিতার সুযোগ পাবে।

উৎসবের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান হবে ৩০ জানুয়ারি বিকাল ৫টায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তনে। সমাপনীতে সকল প্রতিযোগিতা বিভাগে অংশ নেওয়া চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা ও পুরস্কার প্রদান করা হবে। সমাপনী অনুষ্ঠানে উৎসব উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান মুস্তাফা মনোয়ার এবং সিএফএস বাংলাদেশের সভাপতি ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল’সহ দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের গুণী ব্যক্তিবর্গ ও বিভিন্ন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূতগণ উপস্থিত থাকবেন।

উৎসব উপলক্ষে একটি লোগো ফিল্ম নির্মিত হয়েছে। ভিডিওটি দেখুন—

এছাড়াও উৎসব উপলক্ষে প্রকাশিত হবে স্যুভিনির, পোস্টার, টিশার্ট, ব্যাগ ইত্যাদি। এই উৎসবে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়েছে।

উৎসব আয়োজনে সহযোগিতা করছে, ব্রিটিশ কাউন্সিল, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, আলিয়াস ফ্রাঁসেজ, জার্মান কালচার সেন্টার, ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি, সময় টেলভিশন। অনলাইন মার্কেটিং পার্টনার হিসেবে আছে হুতুম নামে একটি সংগঠন এবং রেডিও পার্টনার হিসেবে আছে রেডিও নেক্সট।

ঢাকার বাইরে রাজশাহীতে এবং রংপুরে উৎসব আয়োজন করছে চিলড্রেনস্ ফিল্ম সোসাইটি রাজশাহী এবং চিলড্রেনস্ ফিল্ম সোসাইটি রংপুর শাখা। চট্টগ্রামে আয়োজন করছে চিলড্রেনস ফিল্ম সোসাইটি।

আরও বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে— www.cfsbangladesh.org/festival2017 এই ঠিকানায়।

(দ্য রিপোর্ট/পিএস/এফএস/জানুয়ারি ১০, ২০১৭)

পাঠকের মতামত:

SMS Alert

জলসা ঘর এর সর্বশেষ খবর

জলসা ঘর - এর সব খবর



রে